ওমানকে উড়িয়ে গ্রুপ সেরা স্কটল্যান্ড, রানার্স-আপ বাংলাদেশ

প্রথম দুই ম্যাচে যেতে পারেননি দুই অঙ্কে। এবার ব্যাট হাতে ঝড় তুললেন কাইল কোয়েটজার। বোলারদের গড়ে দেওয়া ভিতের ওপর দাঁড়িয়ে অধিনায়কের কার্যকর ইনিংসে ওমানকে সহজেই হারিয়ে গ্রুপ সেরা হলো স্কটল্যান্ড। জায়গা করে নিল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে।

ওমানের আল আমেরাত স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার গ্রুপের শেষ ম্যাচে স্কটল্যান্ডের জয় ৮ উইকেটে। ১২৩ রানের লক্ষ্য তারা ছুঁয়ে ফেলে ১৮ বল বাকি থাকতেই। ২৮ বলে ৪১ রানের ইনিংস খেলেন কোয়েটজার।

প্রথম রাউন্ডে তিন ম্যাচের সবগুলো জিতে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপের সেরা হয়েছে স্কটল্যান্ড। সুপার টুয়েলভে স্কটিশরা খেলবে গ্রুপ ২-এ, যেখানে আছে ভারত, পাকিস্তান, নিউ জিল্যান্ড, আফগানিস্তান।

দুই জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ রানার্স-আপ বাংলাদেশ। পরের ধাপে মাহমুদউল্লাহর দল খেলবে গ্রুপ ১-এ, যেখানে তাদের সঙ্গী ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও দক্ষিণ আফ্রিকা।

চারবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে প্রথমবারের মতো প্রথম রাউন্ড পার হলো স্কটল্যান্ড। পাপুয়া নিউ গিনিকে ১০ উইকেটে হারিয়ে আসর শুরুর পর টানা দুই হারে বিদায় নিল ওমান।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা ওমানের কেবল তিন জন দুই অঙ্কে যেতে পারেন। ৩৫ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় সর্বোচ্চ ৩৭ রান করেন ওপেনার আকিব ইলিয়াস।

শুরুতেই তারা হারায় প্রথম দুই ম্যাচে দলের সেরা ব্যাটসম্যান জাতিন্দার সিংকে। এক বল খেলে বিদায় নেন তিনি রান আউট হয়ে। তিনে নেমে টেকেননি কাশ্যপ প্রজাপতিও।

১৩ রানে ২ উইকেট হারানো দলের স্কোর পঞ্চাশ পার করেন ইলিয়াস ও মোহাম্মদ নাদিম। এরপরই ইলিয়াস বিদায় নেন মিড অফে ক্যাচ দিয়ে।

২১ বলে দুই ছক্কায় ২৫ করে ফেরেন নাদিম। এরপর অন্যদের আসা-যাওয়ার মাঝে অধিনায়ক জিশান মাকসুদের ৩৪ রানের সৌজন্যে কোনোমতে ১২২ পর্যন্ত যেতে পারে ওমান।

২৫ রানে ৩ উইকেট নিয়ে স্কটল্যান্ডের সফলতম বোলার জশ ডেভি, ম্যাচ সেরাও তিনিই। মিচেল লিস্ক ও সাফিয়ান শারিফ নেন ২টি করে উইকেট।

ছোট লক্ষ্য তাড়ায় ৪টি চারে ১৯ বলে ২০ করে ফেরেন জর্জ মানজি। প্রথম দুই ম্যাচে শূন্য ও ৬ রান করা কোয়েটজারের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে এগিয়ে যায় স্কটল্যান্ড।

জিশানকে কাভারের ওপর দিয়ে ছক্কায় ওড়ানোর পর তিনি আরেকটি বিশাল ছক্কা মারেন ফায়াজ বাটকে। মিড উইকেটের ওপর দিয়ে আছড়ে ফেলেন মোহাম্মদ নাদিমকে।

তার ঝড় থামান খাওয়ার আলি। ২৮ বলে ৩ ছক্কা ও ২ চারে স্কটিশ অধিনায়ক করেন ৪১ রান। বাকিটা সারেন রিচি বেরিংটন ও ম্যাথু ক্রস।

পরপর চার-ছক্কায় ম্যাচ শেষ করে দেওয়া বেরিংটন অপরাজিত থাকেন ২১ বলে ৩১ রান করে, তার ইনিংসে ৩টি ছক্কার পাশে চার একটি। ২৫ বলে ২৬ রান করেন ক্রস।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ওমান: ২০ ওভারে ১২২ (ইলিয়াস ৩৭, জাতিন্দার ০, প্রজাপতি ৩, নাদিম ২৫, জিশান ৩৪, সন্দিপ ৫, নাসিম ২, সুরাজ ৪, ফায়াজ ৭, বিলাল ১, খাওয়ার ০; হুইল ৩-০-২৪-০, ডেভি ৪-০-২৫-৩, শারিফ ৪-০-২৫-২, ওয়াট ৪-০-২৩-১, গ্রিভস ২-০-৯-০, লিস্ক ৩-০-১৩-২)   

স্কটল্যান্ড: ১৭ ওভারে ১২৩/২ (মানজি ২০, কোয়েটজার ৪১, ক্রস ২৬*, বেরিংটন ৩১*; বিলাল ৩-০-১৫-০, ফায়াজ ৩-০-২৬-১, ইলিয়াস ২-০-১৪-১, জিশান ৩-০-১৯-০, খাওয়ার ৪-০-২৭-১, নাদিম ২-০-২২-০)

ফল: স্কটল্যান্ড ৮ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: জশ ডেভি

''