অনেকে ইচ্ছা করে ‘মিসিং’ হয়ে বিব্রত করছে আমাদের: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্র্যাবের অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল
গুম নিয়ে অভিযোগের মধ্যে সরকারি সংস্থাগুলোর পক্ষে দাঁড়ালেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

তার দাবি, সরকারকে বিব্রত করতে অনেকে ‘ইচ্ছা করে’ নিখোঁজ হচ্ছেন।

বহু ঘটনার মধ্যে সম্প্রতি এক সাংবাদিকের পর এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নিখোঁজ হওয়ার প্রেক্ষাপটে বুধবার বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নে একথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

গত নয় বছর ধরে সরকারি বাহিনীগুলো বহু নেতা-কর্মীকে গুম করেছে বলে অভিযোগ করে আসছে বিএনপি; যার মধ্যে দলের কেন্দ্রীয় নেতা ইলিয়াস আলী ও চৌধুরী আলমও রয়েছেন।

দেশি-বিদেশি মানবাধিকার সংগঠনগুলোও বাংলাদেশে গুমের ঘটনা নিয়ে উচ্চকিত। তবে বিএনপিসহ মানবাধিকার সংগঠনের অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে সরকার।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবারও আগের সুরেই বলেন, “অনেকে ইচ্ছা করে মিসিং হয়ে যাচ্ছে বা আত্মগোপনে গিয়ে আমাদের বিব্রত করছে।

“এ ধরনের মিসিংয়ের সুরাহা করা গোয়েন্দাদের জন্য একটু কষ্টকর। তারপরও আশা করি, তাদের ফিরিয়ে আনতে পারব।”

‘ইচ্ছাকৃতভাবে নিখোঁজ’ এই অনেকের সংখ্যা কত, তা জানাননি আসাদুজ্জামান কামাল।

কয়েক মাস আগে লেখক-কলামনিস্ট ফরহাদ মজহার নিখোঁজ হওয়ার পর তাকে উদ্ধার করে পুলিশ বলেছিল, তিনি নিজেই নিখোঁজের ‘নাটক’ সাজিয়েছিলেন। তারও আগে নিখোঁজদের মধ্যে কেবল বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদকে ভারতে পাওয়া গিয়েছিল।  

মানবাধিকার সংগঠনের নেতারা বলে আসছেন, নিখোঁজ যেভাবেই হোক, তাদের উদ্ধারের দায়িত্ব সরকারের।

এক অনুষ্ঠানে কাঁদছেন ঢাকার পূর্ব নাখালপাড়ার বিএনপিকর্মী আবদুল কাদির ভূঁইয়া মাসুমের মা আয়েশা আলী, যার ছেলে ৪ বছরেও ফেরেননি

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “আমাদের গোয়েন্দা বাহিনী কাজ করছে। আশা করি, তাদের ফিরিয়ে দিতে পারব।”

“মিসিং হওয়ার পেছনে কিছু কারণ থাকে’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এর আগে এক অনুষ্ঠানে ব্যাখ্যা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দিয়েছিলেন এভাবে- “নানা কারণে আমাদের দেশে মানুষ গুম হয়। কোনো সময় ব্যবসায়িক কারণে, যখন দেনা হয়ে যায় তখন লুকিয়ে থাকে। কখনো বা সামাজিক কারণে লুকিয়ে থাকে। কখনোবা বড় বড় অপরাধী যখন দেখে, পাপের ভার এমনই হয়ে গেছে যে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তার খোঁজ শুরু করেছে, সেই সময় সে আত্মগোপনে যায়।”

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষক মুবাশ্বার হাসান সিজার নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে কামাল বলেন, “সম্পূর্ণ খবর আমার কাছে নেই। তবে অবশ্যই আমরা ব্যবস্থা নেব।

“একজন লোক মিসিং হয়ে যাবে, আর আমাদের আইনশৃঙ্খলা ও গোয়েন্দা বাহিনী বসে থাকবে, এটা হতে পারে না। অবশ্যই আমরা দেখব কেন ও কীভাবে মিসিং হয়েছে।”

পুলিশ সদস্যদের অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “যে অন্যায় করবে, তার বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। কাউকে ক্ষমা করা হয় না।”

লেখক অভিজিৎ রায় হত্যাকাণ্ডে জড়িত একজন গ্রেপ্তার হওয়ায় ‘অনেক কিছু’ জানা গেছে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

“গ্রেপ্তারকৃতরা অনেক তথ্য দিচ্ছে। সেগুলো আপনাদের ধারাবাহিকভাবে জানাবেন আমাদের গোয়েন্দারা।”

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সংস্কারকৃত অফিস উদ্বোধন এবং সদস্যদের পরিচয়পত্র তুলে দেন আসাদুজ্জামান কামাল।