ওয়ারীর ‘লকডাউন’ উঠল

ওই এলাকায় অবরুদ্ধ দশার প্রথম ও দ্বিতীয় সপ্তাহের তুলনায় সংক্রমণের হার কমেছে বলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন জানিয়েছে।
করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে টানা তিন সপ্তাহের ‘অবরুদ্ধ’ দশা থেকে মুক্ত হয়েছে পুরান ঢাকার ওয়ারীর একটি বড় এলাকা।

শুক্রবার রাত ১২টার পর থেকে ওই এলাকা থেকে লকডাউনের বিধি-নিষেধ তুলে নেওয়ার কথা ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, “স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও আইইডিসিআর থেকে লকডাউন বর্ধিত করার নতুন কোনো নির্দেশনা না থাকায় এবং প্রথম ও দ্বিতীয় সপ্তাহের তুলনায় সংক্রমণের হার তুলনামূলকভাবে হ্রাস পাওয়ায় লকডাউন তুলে নেওয়া হচ্ছে।”

করোনাভাইরাসের বিস্তারে ‘রেডজোন’ হিসেবে চিহ্নিত করে গত ৪ জুলাই ঢাকা সিটি করপোরেশনের ৪১ নং ওয়ার্ডের আওতাভুক্ত ওয়ারীর টিপু সুলতান রোড, লারমিনি স্ট্রিট, জাহাঙ্গীর রোড, ওয়্যার স্ট্রিট, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক, হেয়ার স্ট্রিট, জয়কালী মন্দির থেকে বলধা গার্ডেন, র‌্যাংকিং স্ট্রিট ও নবাব স্ট্রিট এলাকাগুলো অবরুদ্ধ করা হয়েছিল।

অবরুদ্ধ হল ওয়ারীর ‘রেড জোন’  

শনিবার সকাল ৬টা থেকে অবরুদ্ধ হচ্ছে ওয়ারী  

অবরুদ্ধ ঘোষণার পর ওই এলাকায় ২৫ জুলাই পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছিল সরকার।

অবরুদ্ধ দশায় কতজনের করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে জানতে চাইলে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সারওয়ার হোসেন আলো বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছেন, “গত ৪ জুলাই থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত মোট ৩০৯ জন করোনা টেস্ট করিয়েছেন। তাদের মধ্যে ৮০ জনের কোভিড-১৯ সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।”

লকডাউন উঠলেও ওই এলাকায় করোনাভাইরাস টেস্টিং বুথ ও ই-কমার্সের মাধ্যমে খাদ্য সামগ্রী সরবরাহসহ অন্যান্য সেবা ৩০ জুলাই পর্যন্ত চলবে।

অবরুদ্ধ ওয়ারীতে ‘মুখ চেনাদের’ ছাড়  

ওয়ারীতে নমুনা পরীক্ষা বাড়াতে জোর মেয়র তাপসের  

‘লকডাউনে’ যেমন চলছে ওয়ারী  

এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে স্থানীয় কাউন্সিলরের উদ্যোগে মাইকিং করা হচ্ছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন জানিয়েছে, “মাস্ক পরাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে মসজিদ ও ধর্মীয় উপাসনালয়গুলো থেকে আজ দিনব্যাপী বারবার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

“স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নতুন করে প্রয়োজনীয়তা অনুভব করলে তবে পরবর্তীতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার বিভাগের নির্দেশনা অনুসরণপূর্বক প্রয়োজনীয় কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হবে।”