একাদশ সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশন শেষ হল

শেষ হল জাতীয় সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশন। নয় কার্যদিবসের এই অধিবেশন শুরু হয়েছিল গত ১৪ নভেম্বর।

রোববার অধিবেশন সমাপনী সম্পর্কে রাষ্ট্রপতির আদেশ পড়ে শোনানোর মধ্যদিয়ে অধিবেশনের সমাপ্তি টানেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

এর আগে সংসদ কক্ষে দেখানো হয় ১৯৭১ সালের ৩ জানায়ারি ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে ৭০ এর ঐতিহাসিক নির্বাচনের জয়ের পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ।

করোনাভাইরাস মহামারী মধ্যে অনুষ্ঠিত অন্য অধিবেশনগুলোর মতো এবারও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংসদ চলে। এক্ষেত্রে কোভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ থাকা সংসদ সদস্যরাই অধিবেশনে যোগ দেন। প্রতিদিন ১০০-১২০ জন সংসদ সদস্যের উপস্থিতিতে বসে সংসদ।

তবে গত ২৪ ও ২৫ নভেম্বর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর উপলক্ষে বিশেষ আলোচনায় কোভিড-১৯ নেগেটিভ সকল সদস্য অংশ নেন।

এই অধিবেশনে ২৪ নভেম্বর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর বিশেষ আলোচনায় স্মারক বক্তৃতা দেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। পরে সংসদে বিশেষ আলোচনা জন্য প্রস্তাব তোলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দুদিন আলোচনার পর সেই প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে পুরস্কার চালু করায় জাতিসংঘ শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা- ইউনেস্কোকে ধন্যবাদ জানাতে জাতীয় সংসদে একটি প্রস্তাব গ্রহণ করে সংসদ।

সংসদ সচিবালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এবারের অধিবেশনে নয়টি বিল পাস হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর জন্য ৪১টি প্রশ্ন পাওয়া যায়, যার মধ্যে তিনি ১০টির উত্তর দিয়েছেন। অন্য মন্ত্রীদের এক হাজার ১২টি প্রশ্ন পাওয়া যায়, যার মধ্যে মন্ত্রীরা ৫৬৬টি প্রশ্নের উত্তর দেন।

এই অধিবেশন চলাকালীন টাঙ্গাইলের সংসদ সদস্য একাব্বর হোসেন মারা যান।

আরও পড়ুন