অবৈধ সম্পদ: সাবেক পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীর ৪ বছর জেল

প্রতীকী ছবি
অবৈধ সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযেগে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের মামলায় অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীকে আলাদা দুটি ধারায় চার বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

সম্পদের তথ্য গোপন, জ্ঞাত আয় বর্হিভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দণ্ডিত মাহমুদা খানম স্বপ্না একজন গৃহিণী। তার স্বামী মোস্তাফিজুর রহমান একজন পুলিশ পরিদর্শক ছিলেন।

মঙ্গলবার ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ হাফিজুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে ‘অসাধু উপায়ে অর্জিত’ স্বপ্নার ২১ লাখ ৫৪ হাজার ২৩৫ টাকা ‘রাষ্ট্রের অনুকূলে’ বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন আদালতের পেশকার শরীফুল ইসলাম।

মালার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৫ সালের ১৪ মে দুদকে সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিল করেন মাহমুদা খানম স্বপ্না। সেখানে তিনি ১৭ লাখ ৬২ হাজার ১৮৩ টাকার সম্পদ অর্জনের তথ্য গোপন করেন। এছাড়া তার ৪১ লাখ ৪১ হাজার ২৬৯ টাকার সম্পদের কোনো বৈধ উৎস পাওয়া যায়নি।

এসব অভিযোগে ২০১৬ সালের ২৯ জুন দুদক উপ-পরিচালক আবুবকর সিদ্দিক রমনা থানায় মামলা করেন। পরে তদন্ত করে কমিশনের উপসহকারী পরিচালক নাজিম উদ্দিন ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

এর প্রায় পাঁচ বছর পর মাহমুদা খানম স্বপ্নাকে দুদক আইন ২০০৪ এর ২৬ (২) ধারায় এক বছর  বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং ২৭ (১) ধারায় তিন বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ড এবং অর্থদণ্ড দিল আদালত।