এক বছরে ৪ গৃহকর্মী খুন, ৮ জনের মৃত্যুও রহস্যাবৃত: বিলস

প্রতীকী ছবি
সদ্য শেষ হওয়া ২০২১ সালে বাংলাদেশে ৩৮ জন গৃহকর্মী নানা ধরনের নির্যাতনের শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিলস)।

এদের মধ্যে চারজন হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন, আর আটজনের মৃত্যুও রহস্যাবৃত বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে বছরব্যাপী গৃহকর্মী নির্যাতনের পরিসংখ্যান রোববার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায় বিলস।

এতে বলা হয়, নির্যাতিত গৃহকর্মীদের মধ্যে ১২ জন নিহত এবং দুইজন আত্মহত্যা করেন। নিহতদের মধ্যে চারজন হত্যাকাণ্ডের শিকার এবং আটজনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

নির্যাতনে ২৪ জন গৃহকর্মী আহত হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে। তাদের মধ্যে ১৫ জন শারীরিক নির্যাতন, পাঁচজন ছুরিকাঘাত, তিনজন ধর্ষণ এবং একজন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়।

যারা হত্যা, নির্যাতন, ধর্ষণের শিকার হয়েছে, তাদের অধিকাংশের বয়স ১০ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে।

বিলসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০২০ সালে হত্যা ও নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন ৪৪ জন গৃহশ্রমিক। এর মধ্যে ২০ জন নিহত, ২৩ জন আহত এবং একজন নিখোঁজ হয়েছিলেন।

এবারের পরিসংখ্যান দিয়ে বিলস বলেছে, “এই হিসাব দেশের সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তির উপর নির্ভর করে করা হলেও বাস্তব পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ।

“কারণ অনেক নির্যাতনের ঘটনায় অর্থ ও চাপের মুখে সমঝোতা করা হয়। গৃহকর্মী বা তাদের পরিবারের সদস্য অর্থনৈতিকভাবে দূবর্ল হওয়ার কারনে মামলা মকদ্দামায় যেতে চান না বা যেতে সাহন পান না। অনেক সময় প্রভাবশীলরা নির্যাতনের ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে ফেলে।”

নির্যাতনের ঘটনায় দোষীদের আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত এবং ক্ষতিগ্রস্তদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছে সংস্থাটি।