দুর্যোগের ক্ষতি কমাতে বেসরকারি খাতকে পাশে চান প্রতিমন্ত্রী

ফাইল ছবি
দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বেসরকারি খাতে জরুরি দুর্যোগ সাড়াদান কেন্দ্র’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

এনামুর রহমান বলেন, “দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতকে এগিয়ে আসতে হবে।”

ঢাকা চেম্বারের উদ্যোগের ফলে ব্যবসায়ীরা দুর্যোগের সময় উপকৃত হবেন জানিয়ে তিনি বলেন, টেকসই উন্নয়নে বেসরকারি খাতকে সরকারের কর্মকাণ্ডে সহযোগিতা করতে হবে।

শিল্প প্রতিষ্ঠানে নিরাপত্তা নিশ্চিতে সরকার নানা রকম পদক্ষেপ নিয়েছে বলেও তিনি জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এর প্রধান উদ্দেশ্য বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্য এবং নগরে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর ভূমিকম্প সহনশীলতা ও সচেতনতা জোরদার করা।

বাংলাদেশের নগরে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীকে অধিকতর দুর্যোগ সহনশীল করে তোলার জন্য প্রাইভেট সেক্টরের মাধ্যমে বিভিন্ন অংশীদারদের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধি করা।

ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার (এনইওসি) এর কাজের মধ্যে আন্তঃসম্পর্ক রেখে সমন্বিতভাবে প্রাইভেট সেক্টর ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার (পিইওসি) প্রতিষ্ঠা করা।

অনুষ্ঠানে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি রিজওয়ান রহমান বলেন, “আমাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করা।

“আমরা দেখেছি অতীতে রানা প্লাজার সময় বেসরকারি খাত যেভাবে এগিয়ে এসেছে কিন্তু তাদের সময় লেগেছে কারণ প্রথমবারের মত বিশাল একটি দুর্ঘটনা। সেখান থেকে আমরা শিক্ষা নিয়েছি,সময়টা আমাদের জন্য খুবই প্রয়োজন।”

তিনি বলেন, “ডিজিটাল বাংলাদেশের যে সাকসেস আছে তা হাইলাইটস করার জন্য এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট ব্যবহার করে যেসব অ্যাপ্লিকেশন আমরা ব্যবহার করছি...।

“সবাইকে এক সঙ্গে যুক্ত করতে পারব। ফায়ার ডিপার্টমেন্ট, পুলিশ, মন্ত্রণালয়, ব্যবসায়ী এমন কি সাংবাদিকরা, আপনার এলাকার কোনো রকম দুর্যোগ হলে মোবাইলের মাধ্যমে লোকেশন পাঠিয়ে দেওয়া হবে।”

তিনি বলেন, “এটা করে দেখানোর চেষ্টা করছি যে প্রাইভেট সেক্টরের একটি অর্গানাইজেশন যদি এগিয়ে আসে। তাহলে দেখব জেলা পর্যায়ে অন্যরাও এগিয়ে আসবে এবং বাংলাদেশ একটি সুরক্ষা পাবে।”