ইউনেসক্যাপের ৪ প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং কাউন্সিলর হল বাংলাদেশ

জাতিসংঘের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক কমিশনের (ইউনেসক্যাপ) চারটি আঞ্চলিক প্রতিষ্ঠানেরই গভার্নিং কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে অনুষ্ঠিত ইউনেসক্যাপের ৭৮তম কমিশন সেশনে এ নির্বাচন হয় বলে ব্যাংককে বাংলাদেশ দূতাবাস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে।

ভারতের পরই বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশ হিসেবে একযোগে জাতিসংঘের এ সংস্থার চারটি প্রতিষ্ঠানেরই কাউন্সিল সদস্য নির্বাচিত হল। ২০২২-২০২৪ মেয়াদের জন্য বাংলাদেশ এসব পদে থাকছে।

বাংলাদেশ গত মেয়াদেও কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য ছিল। তবে একসঙ্গে চারটি প্রতিষ্ঠানের সদস্য হওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম বলে ব্যাংককে বাংলাদেশ দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা জানান।

এই চার প্রতিষ্ঠান হচ্ছে: জাপানের মাকুহারিতে অবস্থিত স্ট্যাটিসটিক্যাল ইনস্টিটিউট ফর এশিয়া অ্যান্ড প্যাসিফিক বা এসআইএপি, কোরিয়ার ইনচেয়ন শহরে অবস্থিত এশিয়ান অ্যান্ড প্যাসিফিক ট্রেনিং সেন্টার ফর ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন টেকনলজি ফর ডেভেলপমেন্ট (এপিসিআইসিটি), চীনের বেইজিংয়ে অবস্থিত সেন্টার ফর সাসটেইনেবল এগ্রিকালচারাল মেকানাইজেশন (সিএসএএম) এবং ইরানের তেহরানে অবস্থিত এশিয়ান অ্যান্ড প্যাসিফিক সেন্টার ফর দ্য ডেভেলপমেন্ট অব ডিজেস্টার ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট (এপিডিআইএম)।

ব্যাংককে বাংলাদেশ দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ইউনেসক্যাপের ৫৩টা সদস্য রাষ্ট্র এবং নয়টি সহযোগী সদস্য রাষ্ট্র রয়েছে। প্রতিটি আঞ্চলিক প্রতিষ্ঠানে আটজন গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হয়।

আর যে রাষ্ট্রে সংস্থাগুলোর দপ্তর অবস্থিত সেই দেশটিও পদাধিকার বলে সদস্য থাকে।   

গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম ও অর্থায়নের সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে মতামত দেওয়ার সুযোগ পাবে।