ফারাবীর হুমকিতে

মৌলবাদী হুমকির মুখে একজন লেখকের বই ‘তুলে নিয়েছে’ অনলাইনে বাংলা বই বিক্রির ওয়েবসাইট ‘রকমারি ডটকম’।

এর আগে হত্যার উস্কানি দিয়ে গ্রেপ্তার হওয়া ‘ব্লগার’ ফারাবী সাইফুর রহমান শনিবার লেখক অভিজিৎ রায়ের বই বিক্রি তালিকা থেকে সরিয়ে না নিলে রকমারির কার্যালয়ে আক্রমণ করা হবে বলে ফেইসবুকে হুমকি দেন।

অভিজিৎ রায়ের ‘বিশ্বাসের ভাইরাস’ বইটিকে ‘আল্লাহ ও তার রাসূলকে নিয়ে ব্যঙ্গ করা হয়েছে’ উল্লেখ করা হয় হুমকিতে।

“সৈয়দ আবুল মকসুদ, ফারুক ওয়াসীফের বইয়ের বিজ্ঞাপনও এই রকমারি ওয়েবসাইটের ১ম পৃষ্ঠায় থাকে না, কিন্তু ঠিকই অভিজিৎ রায়/ভাইরাস জিৎ রায়ের বইগুলির বিজ্ঞাপন রকমারি ওয়েবসাইটের ১ম পৃষ্ঠায় থাকে।”

“... অভিজিৎ রায়ের বইগুলিতে নতুন কিছু নাই। অভিজিৎ রায়ের বইগুলি সব খৃস্টান মিশনারিদের দ্বারা পরিচালিত ওয়েবসাইট থেকে কপিপেস্ট করা। আনসারিং ইসলাম এই ওয়েবসাইটটার লেখাগুলি চুরি করে তারপর বাংলা অনুবাদ করে অভিজিৎ রায় তার নিজের নামে চালিয়ে দিচ্ছে।”

ফারাবীর হুমকির প্রতিউত্তরে রকমারির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিইও মাহমুদুল হাসান সোহাগ তাকে বইটিকে ‘নেগেটিভ রেটিং’ দেয়ার এবং ওয়েবসাইটে রিভিউ মন্তব্যের মাধ্যমে মতপ্রকাশের পরামর্শ দেন।

এতে সন্তুষ্ট না হলে অভিজিৎ রায় প্রণীত বইগুলোকে ওয়েবসাইটে ‘আউট অফ প্রিন্ট’ চিহ্নিত করে রাখা হয়।

ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় অভিজিৎ রায় ফেইসবুকে লিখেছেন,“রকমারির উচিৎ লেখকের স্বাধীনতার প্রতি অবিচল থাকা। আমার বই রাষ্ট্র থেকে ব্যান করা হয়নি, আদালতে যায়নি। ফারাবীই বরং আদালতে চার্জশিটপ্রাপ্ত ফেরারী আসামি।”

“আমরা তো কোনো ধর্মীয় বই তালিকা থেকে সরাতে বলছি না। শুধু ধর্মীয় বই কেন, বহু জিহাদী বাণী সমৃদ্ধ উগ্র বইপত্র থেকে শুরু করে বড় বড় রাজাকারদের লেখা বই রকমারিতে পাওয়া যায়।”

অভিজিৎ রায় ‘মুক্তমনা ডটকম’ নামের একটি কমিউনিটি ব্লগিংসাইটের উদ্যোক্তা।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ফারাবী গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দারের জানাজা পড়ানোয় ইমামকে হত্যার হুমকি দিয়ে গত বছর আলোচনায় আসেন।

এরপর পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। ফেইসবুক ব্যবহার করে ইমামকে হত্যার হুমকি দেয়ায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে তার বিরুদ্ধে ঢাকার একটি আদালতে অভিযোগ গঠনও করা হয়।

হাই কোর্ট থেকে জামিন নিয়ে গত বছরের ২১ অগাস্ট কারাগার থেকে বেরিয়ে আসেন ফারাবী।