ইলেকট্রিক্যাল-ইলেকট্রনিকস খাতের উন্নয়নে নীতিমালা দাবি

ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিকস খাতের উন্নয়নে সুনির্দিষ্ট নীতিমালার দাবি জানানো হয়েছে এফবিসিসিআইয়ের এক সভায়।

এফবিসিসিআইয়ের স্ট্যান্ডিং কমিটির শনিবারের সভায় সংগঠনের ভাইস প্রেসিডেন্ট এম এ রাজ্জাক খান রাজ বলেন, “ব্যাংক, বীমা, স্টিল, গার্মেন্টস, চামড়াসহ প্রায় সব খাতে নীতিমালা থাকলেও ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিকস খাতের উন্নয়নে কোনো সুনির্দিষ্ট নীতিমালা নেই। ফলে দেশের অল্প কিছু কোম্পানি ছাড়া বেশিরভাগই মন্দা অবস্থায় আছে। সেজন্য সুনির্দিষ্ট নীতিমালার প্রয়োজন।

“ছোট ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের বাঁচিয়ে রাখতে না পারলে তারা ব্যাংক থেকে নেওয়া ঋণ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হবে। ফলে ব্যাংক ও উদ্যোক্তা উভয়ই ক্ষতিগ্রস্ত হবে।”

সভায় এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, “একসময় ইলেকট্রিক্যাল পণ্য আমদানি করতে হতো আমাদের। এখন প্রায় ৮০ শতাংশই দেশে তৈরি হয়। ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিকস খাতের প্রসারের জন্য কমপ্লায়েন্স একটি বড় ইস্যু। মানসম্মত পণ্য তৈরি করতে পারলে বিশ্ববাজারে ইলেকট্রিক্যাল পণ্যের বাজার ধরা সম্ভব।”

এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু বলেন, “ইলেকট্রিক্যালসহ যেসব খাতের পণ্য দেশের বাইরে রপ্তানি করে রাজস্ব আয় করা সম্ভব, সেসব খাতকে পূর্ণ সহযোগিতা করতে হবে।”

সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআইয়ের প্যানেল উপদেষ্টা ও কমিটির কো-চেয়ারম্যান ড. কাজী ইকবাল, সহসভাপতি এম এ মোমেন, আমিন হেলালী, পরিচালক হাফেজ হারুন, সাবেক পরিচালক খন্দকার রুহুল আমীন, কমিটির কো-চেয়ারম্যান মফিজুর রহমান।