কোভিড: সংক্রমণ বাড়ায় যুক্তরাষ্ট্রে টিকাপ্রাপ্তদেরও মাস্ক পরার নির্দেশনা

টিকা নেওয়া থাকলেও চার দেয়ালের ভেতরে মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা পুনর্বহালের পর লস অ্যাঞ্জেলেসের একটি কফিশপ।
কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রমে সাফল্য ও সংক্রমণের হার কমায় যুক্তরাষ্ট্রে মাত্র দুই মাস আগেই মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা শিথিল করা হয়েছিল। অথচ এখন সেই সিদ্ধান্তই আংশিক পুনর্বহাল করেছে সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)।

নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের যেসব অংশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি দেখা যাচ্ছে ওইসব এলাকায় এরইমধ্যে যারা পুরোপুরি কোভিড-১৯ টিকা নিয়েছেন, চার দেয়ালের ভেতরে তাদেরও মাস্ক পরতে হবে। মঙ্গলবার থেকে সিডিসির এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে।

এছাড়া টিকা দেওয়া থাকুক বা না থাকুক এবং এলাকাভিত্তিক সংক্রমণের হার যাই থাকুক না কেন, শিক্ষক, কর্মী, শিক্ষার্থী ও বিদ্যালয়ের দর্শনার্থীদেরও মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়েছেন সিডিসির কর্মকর্তারা।

সেদেশে আসন্ন শরৎ সেমিস্টারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে ফিরতে সব ধরনের সতর্কতা মেনে চলার আহ্বানও জানিয়েছেন সংস্থার কর্মকর্তারা।

ফ্লোরিডা ও মিজৌরি রাজ্যে সংক্রমণ বাড়ায় এবং পুরোপুরি টিকাপ্রাপ্তদের মধ্যেও করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরন শনাক্ত হওয়ায় সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বাধ্য হয়েছে সিডিসি।

মঙ্গলবার এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে সিডিসির পরিচালক রোচেল ওয়ালেনস্কি বলেন, “ডেল্টা ধরনটি প্রতিদিনই আমাদের কৌশলকে পরাজিত করার আগ্রহ দেখিয়ে চলেছে।”

করোনাভাইরাসের এই ধরনটি অন্য ধরনগুলোর চেয়ে ভিন্ন আচরণ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “এই নতুন ইঙ্গিতগুলো উদ্বেগজনক এবং দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের নির্দেশনাগুলো হালনাগাদ করতে হচ্ছে।”

মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি জেন পসাকি বলেন, ‘চলমান এই মহামারী নিয়ন্ত্রণে’ নির্দেশনা বদলানো গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন এই পদক্ষেপকে সমর্থন করে।

বাইডেন প্রশাসনের মহামারী বিষয়ক শীর্ষ উপদেষ্টা অ্যানথনি ফাউচি বলেন, “ভাইরাসটি পরিবর্তিত হচ্ছে; আমরা একটি গতিশীল পরিস্থিতির মোকাবেলা করছি। ভাইরাসের বিবর্তনের সঙ্গে তালমিলিয়ে নির্দেশনায় পরিবর্তন এনে সঠিক পদক্ষেপই নিয়েছে সিডিসি।

“আপনারা বলতে পারবেন না যে এটা শুধু আগুপিছু করা। বরং তারা বিজ্ঞানসম্মতভাবে পাওয়া নতুন তথ্যউপাত্ত নিয়েই কাজ করছে।”

ডেল্টা ধরনটির বিরুদ্ধে কোভিড-১৯ এর টিকা দারুনভাবে কার্যকর প্রমাণ হয়েছে, বিশেষ করে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এবং মৃত্যু ঠেকানোর ক্ষেত্রে।

তবে সিডিসির এই নতুন নির্দেশনা টিকাপ্রাপ্ত এবং টিনা না নেওয়া- সবার জন্যই প্রযোজ্য হবে, যা মে মাসে সিডিসির ঘোষিত সিদ্ধান্তের বড় পরিবর্তন। ওই সময় সংস্থাটি বলেছিল টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের মাস্ক পরার দরকার নেই।

সংক্রমণ বাড়ায় এরইমধ্যে লস অ্যাঞ্জেলেস এবং সেন্ট লুইস কাউন্টির মতো অনেক পৌর এলাকায় মাস্ক পরার নির্দেশনা পুনর্বহাল করা হয়েছে। তবে আরকানসাস রাজ্যে এখনও মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হয়নি, সেখানে টিকাদানের হারও কম।

সিডিসির পরিচালক মঙ্গলবারও জনগণকে দ্রুত টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি স্বীকার করেছেন, টিকাপ্রাপ্তদের কেউ কেউ ডেল্টা ধরনে সংক্রমিত হতে পারেন, তবে সেই হার খুবই কম। এর আগে সংস্থার কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, টিকাপ্রাপ্তদের মধ্যে যারা সংক্রমিত হচ্ছেন তাদের মধ্যে মাত্র তিন শতাংশকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হচ্ছে।

কয়েক মাস ধরে নিম্নমুখী থাকার পর যুক্তরাষ্ট্রে আকস্মিকভাবেই সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি দেখা দিয়েছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত দৈনিক গড় সংক্রমণ ৫৬ হাজার ছাড়িয়েছে, যা চার সপ্তাহ আগের সংখ্যার চারগুণ। প্রায় সব রাজ্যেই হাসপাতালে রোগী ভর্তির সংখ্যাও বাড়তে শুরু করেছে। এছাড়া মৃত্যুর সংখ্যাও গড়ে দৈনিক ২৭৫ জন করে বেড়েছে।