হেরে যাওয়া ম্যাচই আশা দেখাচ্ছে ক্যারিবিয়ানদের

প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ছবি: উইন্ডিজ ক্রিকেট
সিরিজের শুরুটা ভালো হয়নি। তবে ৬ উইকেটে হেরে যাওয়া ওই ম্যাচ থেকেই ভালো করার রসদ খুঁজে পাচ্ছেন আলজারি জোসেফ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের তরুণ এই পেসার জানান, ঠিক কিসের বিরুদ্ধে লড়তে হবে এর পরিষ্কার একটা ধারণা পেয়েছেন তারা। প্রথম ম্যাচের অভিজ্ঞতা থেকে পরের ম্যাচের জন্য আরও ভালোভাবে প্রস্তুত থাকার ব্যাপারে আশাবাদী তিনি।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে হেরে তিন ম্যাচের সিরিজে পিছিয়ে পড়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শুক্রবার একই মাঠে হবে দ্বিতীয় ওয়ানডে। এর আগের দিন ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে জোসেফ বলেন, প্রথম ম্যাচ আশা দেখাচ্ছে তাদের।

“বোলাররা গত ম্যাচে যেমন করেছে তাতে ২২০ রান হলে সম্ভবত অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং সংগ্রহ হতো। শুরুতে দ্রুত কিছু উইকেট তুলে নিতে পারলে খেলার চিত্র ভিন্ন হতে পারত।”

“অভিজ্ঞতার ঘাটতি ছিল, সঙ্গে নিজেদের প্রয়োগেও ব্যর্থতা ছিল। আমরা বুঝতে পেরেছি সামনে কী আসছে। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আমাদের তাই কোনো অজুহাতের সুযোগ থাকবে না। আমরা ওদের বোলিং আক্রমণ দেখেছি। ব্যাটিংয়ের কিছুটা দেখেছি। তাই দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ভালো করার জন্য আমাদের ভালোভাবে প্রস্তুত থাকা উচিত।”   

বাংলাদেশের বিপক্ষে সব মিলিয়ে টানা ছয় ওয়ানডেতে হেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙতে পেসারদের এগিয়ে আসার তাগিদ দিলেন জোসেফ। বোলিং করতে বললেন টেস্টের মতো একই ধৈর্য নিয়ে।

“সত্যি বলতে, ব্যাটিংয়ের জন্য সেরা উইকেট ছিল না। ফাস্ট বোলিং গ্রুপ হিসেবে আমাদের ভালো জায়গায় আরও ধারাবাহিক হতে হবে। একই সঙ্গে ধৈর্য ধরতে হবে। যদিও আমি জানি, এটা বড় দৈর্ঘ্যের ম্যাচ নয়, ৫০ ওভারের ম্যাচ। এই উইকেটে সফল হতে হলে, পেসারদের ধৈর্য ধরে ভালো জায়গায় বোলিং করে যেতে হবে।   

প্রথম ওয়ানডেতে হারের অভিজ্ঞতা থেকে জোসেফরা বুঝতে পেরেছেন সাফল্যের পথ।

“সবাই নিজেদের ভূমিকা জানি। আমরা সবাই জানি, প্রথম ম্যাচে আমরা নিজেদের সেরা ক্রিকেট খেলতে পারিনি। আমাদের দৃঢ়ভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হবে, আরও গভীরে যেতে হবে এবং পুরোটা সময় বাংলাদেশকে চাপে রাখতে হবে। প্রথম বল থেকে শুরু করে তিনশ বল এভাবেই খেলতে হবে।”