এমসিসির আইনে ব্যাটসম্যান এখন থেকে ‘ব্যাটার’

ক্রিকেটের পরিভাষায় নারী-পুরুষের ভেদাভেদ দূর করায় বড় এক পদক্ষেপ নিল মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি)। আইন সংশোধন করে ‘ব্যাটসম্যান’-এর বদলে এখন থেকে ‘ব্যাটার’ ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল ক্রিকেটের আইনকানুনের এই অভিভাবক সংস্থাটি।

এতদিন পুরুষদের ক্ষেত্রে ব্যাটসম্যান ও নারীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হতো ব্যাটার। এমসিসি কমিটির অনুমোদন হয়ে যাওয়ায় এখন থেকে উভয় ক্ষেত্রেই ব্যবহার করা হবে ব্যাটার।

বিবৃতিতে বুধবার এমসিসি জানায়, ‘খেলাটির প্রতি এমসিসির বৈশ্বিক দায়িত্ববোধের অপরিহার্য অংশ হিসেবেই এই সংশোধনী।”

এমসিসির ক্রিকেট ও অপারেশন্স বিষয়ক সহকারী সচিব জেমি কক্স বলেন, সময়ের ডাক শুনেই তাদের এই সিদ্ধান্ত।

“এমসিসি বিশ্বাস করে, ক্রিকেট খেলাটি সবার জন্যই এবং আধুনিক যুগে খেলাটির বদলে যাওয়া চিত্রকেই তুলে ধরছে এই পদক্ষেপ। ‘ব্যাটার’ শব্দটির ব্যবহার আমাদের ক্রিকেট পরিভাষায় একটি সহজাত বিবর্তন এবং খেলাটার সঙ্গে সম্পৃক্ত অনেকে ইতোমধ্যে এটি গ্রহণ করে নিয়েছে।”

“এই সমন্বয়কে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেওয়ার এটাই উপযুক্ত সময় এবং আইনের অভিভাবক হিসেবে এই পরিবর্তনগুলি ঘোষণা করতে পেরে আজ আমরা উচ্ছ্বসিত।”

২০১৭ সালে আইসিসি ও মেয়েদের ক্রিকেটের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনার পর মেয়েদের ক্রিকেটেও ‘ব্যাটসম্যান’ এবং বহুবচনের ক্ষেত্রে ‘ব্যাটসমেন’ ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল এমসিসি। এখন দুই ক্ষেত্রে থাকবে একই পরিভাষা।

বোলার ও ফিল্ডারের মতো ব্যাটারও সহজাত অগ্রগতির মধ্য দিয়ে এসেছে বলে বিবৃতিতে জানিয়েছে এমসিসি। গত কয়েক বছরে মেয়েদের ক্রিকেটের অসাধারণ অগ্রগতি ও জনপ্রিয়তার প্রসঙ্গটিও উঠে এসেছে এমসিসির বিবৃতিতে।

২০১৭ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ড ও ভারতের মেয়েদের ফাইনাল ম্যাচে ছিল গ্যালারি ঠাসা দর্শক। গতবছর অস্ট্রেলিয়া-ভারতের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ফাইনাল ম্যাচে মেলবোর্নে ছিল রেকর্ড সংখ্যক দর্শক। সম্প্রতি ইংল্যান্ডের দা হান্ড্রেড-এর মেয়েদের ফাইনালে লর্ডসে উপস্থিত ছিল ১৭ হাজার ১১৭ জন দর্শক, যা মেয়েদের ঘরোয়া ক্রিকেটের রেকর্ড।