মইন-বেয়ারস্টোর পর রাহুল-কিষানের ঝড়

৪৬ বলে ৭০ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলার পথে ইশান কিষানের একটি শট। ছবি: বিসিসিআই।
বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে দলকে বড় সংগ্রহ এনে দিলেন জনি বেয়ারস্টো, মইন আলি। কিন্তু রান তাড়ায় তাদের ছাড়িয়ে গেলেন লোকেশ রাহুল, ইশান কিষান। ব্যাট হাতে তাদের ঝড়ে স্রেফ উড়ে গেল ইংল্যান্ড।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচে সোমবার ইংলিশদের ৭ উইকেটে হারিয়েছে ভারত। প্রতিপক্ষের ১৮৮ রান তারা পেরিয়ে গেছে ৬ বল বাকি থাকতে।

দুবাইয়ের একাডেমি মাঠে বেয়ারস্টোর ৩৬ বলে ৪৯ ও মইনের ২০ বলে ৪৩ রানের ইনিংসে বড় পুঁজি গড়ে ইংল্যান্ড। ২০ বলে ৩০ রান করে অবদান রাখেন লিয়াম লিভিংস্টোনও।

লক্ষ্য তাড়ায় ২৪ বলে ৫১ রান করেন রাহুল। আর ৪৬ বলে ৭০ রান করে স্বেচ্ছায় মাঠ ছাড়েন কিষান। শেষ দিকে রিশাভ পান্ত খেলেন ১৪ বলে ২৯ রানের ক্যামিও।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ইংল্যান্ডের টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান জেসন রয়, জস বাটলার ও দাভিদ মালান ভালো শুরু পেয়েও বড় করতে পারেননি ইনিংস। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানো দলের রানের গতিতে ভাটা পড়তে দেননি বেয়ারস্টো ও লিভিংস্টোন।

তাদের বাউন্ডারির সংখ্যা সমান চারটি করে চার ও একটি করে ছক্কা।

মোহাম্মদ শামিকে টানা ২ চার মারা মইন চড়াও হন ভুবনেশ্বর কুমারের ওপর। ইনিংসের শেষ তিন বলে এই পেসারকে এক চার ও ২ ছক্কায় ওড়ান মইন। তার ৪৩ রানের অপরাজিত ইনিংসে ওই দুই ছক্কার পাশে রয়েছে ৪টি চার।

রান তাড়ায় রাহুল ঝড় বইয়ে দেন ক্রিস ওকসের ওপর দিয়ে। এই পেসারের ওভারে ৩ চারের সঙ্গে মারেন একটি ছক্কা। পরের ওভারে মার্ক উডকে ২ চার ও এক ছক্কায় ওড়ান কিষান।

ক্রিস জর্ডান ও মইনকে একটি করে ছক্কা মারা রাহুল ২৩ বলে ফিফটি করেন উডকে চার হাঁকিয়ে। তার ৩ ছক্কা ও ৬ চারে ৫১ রানের ইনিংস শেষ পরের বলেই।

আদিল রশিদকে দুটি ছক্কায় ৩৬ বলে ফিফটি স্পর্শ করেন কিষান, ওই ওভারেই মারেন আরও দুটি চার। কয়েক ওভার পর তিনি স্বেচ্ছাবসরে যান ৭ চার ও ৩ ছক্কায় ৭০ করে।

প্রস্তুতি ভালো হয়নি বিরাট কোহলির। ভারত অধিনায়ক আউট হন ১৩ বলে ১১ রান করে। সূর্যকুমার যাদব যেতে পারেননি দুই অঙ্কে।

মইনকে টানা দুই ছক্কায় ওড়ান পান্ত। পরে জর্ডানকে ছক্কা মেরে দলকে পৌঁছে দেন জয়ের বন্দরে।