বাংলাদেশের ‘ম্যাচ উইনারদের’ নিয়ে ভাবনায় ইংল্যান্ড

টি-টোয়েন্টিতে এই প্রথম মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল। তবে সংস্করণ তো আর একটি নয়। বাংলাদেশ দল তাই অচেনাও নয় ইংল্যান্ডের জন্য। এই  দলের শক্তি-সামর্থ্য ইংলিশদের জানা, গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের খুব ভালো করে চেনা। সাকিব আল হাসান, মুস্তাফিজুর রহমানদের বাংলাদেশকে নিয়ে তাই বেশ সাবধানী ইংল্যান্ড।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বুধবার আবু ধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশ।

ক্যারিবিয়ানদের গুঁড়িয়ে দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করেছে আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দল ইংল্যান্ড। বাংলাদেশ হেরেছে উপমহাদেশের দল শ্রীলঙ্কার কাছে। প্রথম রাউন্ডে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষেও হেরেছিল মাহমুদউল্লাহর দল।

সব মিলিয়ে সুপার টুয়েলভে এলেও খুব ভালো অবস্থায় নেই বাংলাদেশ। তবে তাদের সামর্থ্য নিয়ে কোনো সংশয় নেই ইংল্যান্ডের বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান বাটলারের মনে।      

“বাংলাদেশ শক্তিশালী একটি দল। আমার মনে হয়, গত কয়েক বছরে, বিশেষ করে ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টিতে ওদের অনেক সাফল্য রয়েছে। ঘরের মাঠে যেমন কন্ডিশন পায়, অনেকটা তেমন কন্ডিশনেই খেলবে ওরা। ওদের দলে বেশ অভিজ্ঞ কয়েকজন খেলোয়াড় আছে।” 

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দারুণ কিছু সাফল্য আছে সাকিবের। আর মুস্তাফিজ তো বাটলারের আইপিএল সতীর্থ। মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর সামর্থ্যও তার অজানা নয়। বাংলাদেশ দলের এই ম্যাচ উইনারদের নিয়ে সতীর্থদের সতর্ক করে দিলেন তিনি।

“বাংলাদেশ স্পিন নির্ভর একটি দল। ওরা অনেক ফিঙ্গার স্পিনার খেলায়, যাদের প্রচুর অভিজ্ঞতা রয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় সাকিবের কথা, সে বিশ্ব জুড়ে অনেক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে।”

“সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ অনেক দিন ধরেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলছে। বাঁহাতি পেস ও অসাধারণ স্লোয়ার বল নিয়ে মুস্তাফিজও একটি হুমকি। বাংলাদেশ ম্যাচ উইনারে পূর্ণ একটি দল।”