আক্ষেপের রেকর্ডে ‘রাজা’ এখন মুশফিক

হাতছানি ছিল দুটি মাইলফলকের। খুব কাছে গিয়েও ধরা দিল না একটিও। উল্টো সঙ্গী হলো অনাকাঙ্ক্ষিত এক রেকর্ড। বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশিবার ‘নার্ভাস নাইন্টিজ’-এ আটকা পড়ার রেকর্ড এখন মুশফিকুর রহিমের।

চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিন সকালে ফাহিম আশরাফের বলে ৯১ রানে আউট হন মুশফিক।

এই নিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে নব্বই ছুঁয়েও সেঞ্চুরিতে যেতে পারলেন না তিনি ৪ বার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সব মিলিয়ে ৮ বার। দুটিই বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ।

একটি রেকর্ডে তিনি স্পর্শ করেছেন সাকিব আল হাসানকে, আরেকটিতে ছাড়িয়েই গেছেন তাকে।

সাকিবও টেস্টে নব্বইয়ে আটকে গেছেন ৪ বার। তিন সংস্করণ মিলিয়ে তার এই অভিজ্ঞতা হয়েছে ৭ বার।

তামিম ইকবাল টেস্টে নব্বইয়ে থমকে গেছেন ৩ বার, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মোট ৬ বার।

মুশফিক শনিবার দিন শুরু করেন ৮২ রান নিয়ে। আগের দিন যেভাবে ইনিংসটি শুরু করেছিলেন, নতুন দিনেও সেভাবেই ধীরস্থির ব্যাটিংয়ে এগোচ্ছিলেন তিনি। আরেকপ্রান্তে সেঞ্চুরিয়ান লিটন দাস আউট হয়ে যান আগের দিনের সঙ্গে ১ রান যোগ করে। অভিষিক্ত ইয়াসির আলি চৌধুরিও ফেরেন দ্রুত। মুশফিকের ওপর তাই দায়িত্বও ছিল বেশি। কিন্তু ফাহিম আশরাফের একটি অফ স্টাম্প ঘেঁষা ডেলিভারিতে শেষ হয় তার প্রতিরোধ।

আউটটি নিয়ে যদিও খানিকটা সংশয়ের অবকাশ আছে। টিভি রিপ্লেতে বল যখন মুশফিকের ব্যাট পেরিয়ে যাচ্ছে, ঠিক একই সময়ে ব্যাট লেগেছে তার প্যাডেও। মাঠের আম্পায়ার আউট দেন, মুশফিক রিভিউ নিয়েও টিকতে পারেননি। তবে সত্যিই তার ব্যাটে বল লেগেছে কিনা, সেটি নিশ্চিত হওয়া কঠিনই ছিল।

তাতে আক্ষেপই কেবল বাড়ল আরও। আর দুটি মাত্র রান করলেই তামিম ইকবালকে ছাড়িয়ে টেস্টে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রান হয়ে যেত মুশফিকের। অষ্টম টেস্ট সেঞ্চুরি ছিল স্রেফ ৯ রানের দূরত্বে। হলো না সেসব কিছুই।

ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির স্বাদ চট্টগ্রামের এই জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামেই পেয়েছিলেন মুশফিক। সেই ২০১০ সালে, ভারতের বিপক্ষে। তবে এরপর আর এই মাঠে টেস্ট সেঞ্চুরি তিনি পাননি। বরং ক্যারিয়ারে যে ৪ বার নব্বইয়ে আটকে গেছেন, তার ৩টিই এই মাঠে!

টেস্টে নব্বইয়ে সবচেয়ে বেশিবার আটকে যাওয়ার বিশ্বরেকর্ডের শীর্ষে আছেন যৌথভাবে শচিন টেন্ডুলকার, রাহুল দ্রাবিড় ও স্টিভ ওয়াহ। তিনজনই এই স্বাদ পেয়েছেন ১০ বার করে। তিন সংস্করণ মিলিয়ে শীর্ষে টেন্ডুলকার, ২৮ বার।