যে কারণে রিভিউ নেয়নি বাংলাদেশ

৫৭ ওভার বোলিংয়ে কেবল একটি সুযোগই তৈরি করতে পেরেছিল বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানকে পরাস্ত করা, বল প্যাডে লাগা এবং ইমপ্যাক্ট-লাইন, সবই ছিল ঠিকঠাক। আম্পায়ার আউট না দেওয়ার পর প্রয়োজন ছিল রিভিউ নেওয়া। সেটিই করতে পারেনি বাংলাদেশ। দিনের খেলা শেষে লিটন দাস জানালেন রিভিউ না নেওয়ার কারণ।

পাকিস্তানের ইনিংসের ত্রয়োদশ ওভারের ঘটনা সেটি। একটু জোরের ওপর ডেলিভারি করেন তাইজুল ইসলাম, বল পিচ করে অ্যাঙ্গেলে ঢোকে ভেতরে। ব্যাটসম্যান আব্দুল্লাহ শফিক জায়গা বানিয়ে অফ সাইডে খেলার চেষ্টা করে পারেননি ঠিকঠাক।

বাংলাদেশের এলবিডব্লিউর আবেদন নাকচ করে দেন আম্পায়ার মাইকেল গফ। বাংলাদেশের অধিনায়ক মুমিনুল হক, কিপার লিটন দাস ও বোলার তাইজুল ইসলাম কিছুক্ষণ আলোচনা করে রিভিউ নেননি।

টিভিতে প্রথম দেখায় স্পষ্ট বোঝা যায়নি, বল আগে ব্যাটে লেগেছে নাকি প্যাডে। টিভি রিপ্লেতে অবশ্য পরিস্কার হয়, বল আগে লাগছিল প্যাডেই এবং পরে তা ছোবল দিত স্টাম্পে। রিভিউ নিলেই উইকেট পেয়ে যেত বাংলাদেশ।

এরপর আর কোনো সুযোগই তৈরি করতে পারেনি কোনো বোলার। কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৪৫ রান করে দিন শেষ করে পাকিস্তান।

খেলা শেষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে লিটন বললেন, সংশয় থেকেই তারা রিভিউ নেননি।

“দেখুন, রিভিউ জিনিসটা পুরোপুরি তাৎক্ষনিক। তাৎক্ষনিক মনে হয়েছে যে, বলটা আগে ব্যাটে লেগেছে। এ কারণে আমরা রিভিউ নেইনি। যদি মনে হতো যে প্যাডে আগে লেগেছে, তাহলে তো সন্দেহ নেই, সঙ্গে সঙ্গে আমরা রিভিউ নিয়ে নিতাম।”