সারাদিনে খেলা হলো ৬.২ ওভার

প্রথম দিনের খেলা আগেভাগেই শেষ হওয়ার পর মিরপুর টেস্টের দ্বিতীয় দিনে খেলা শুরু হতে পারেনি বৃষ্টির কারণে।

পাকিস্তান  ১ম ইনিংস : ৬৩.২ ওভারে ১৮৮/২

অপেক্ষার সমাপ্তি

টানা বৃষ্টিতে খেলা আর শুরু হতেই পারল না। অবস্থা বুঝে দুপুর ৩টায়ই দিনের খেলার সমাপ্তি টেনে দিলেন আম্পায়াররা।

প্রথম দিনে খেলা হয়েছিল ৫৭ ওভার। দ্বিতীয় দিনে হতে পারল মোটে ৬.২ ওভার। বাবর আজম ও আজহার আলি তাতেই তুলে ফেলেন ২৭ রান। তৃতীয় উইকেটে দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটি পেরিয়ে যায় শতরান।

যেটুকু সময় মিলেছে, সহায়ক কন্ডিশনেও ভালো বোলিং করতে পারেননি বাংলাদেশের দুই পেসার ইবাদত হোসেন চৌধুরি ও সৈয়দ খালেদ আহমেদ।

তৃতীয় দিনেও খেলা শুরু হবে সকাল সাড়ে ৯টায়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান ১ম ইনিংস: (আগের দিন ১৬১/২) ৬৩.২ ওভারে ১৮৮/২ (আজহার ৫২*, বাবর ৭১*; ইবাদত ১২-১-৪৮-০, খালেদ ৭.২-১-২৬-০, সাকিব ১৫-৬-৩৩-০, তাইজুল ১৭-৫-৪৯-২, মিরাজ ১২-২-৩১-০)

বৃষ্টির খেলা চলছে

খেলা বন্ধ হওয়ার পর এক ঘণ্টা পেরিয়ে গেল, বৃষ্টি থামাথামির নাম নেই। উইকেটের চারপাশ তো বটেই, ঢেকে রাখা হচ্ছে এখন আউটফিল্ডের নানা অংশও।

এমন বিরূপ প্রাকৃতিক অবস্থার মধ্যেও কিছু দর্শক গ্যালারিতে অপেক্ষায়, কখন শুরু হবে খেলা। তবে খুব সহসাই শুরু হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।

আবার বৃষ্টি

অনেক অপেক্ষার পর শুরু হওয়া খেলা চলতে পারল কেবল আধঘণ্টার মতো। আবার বৃষ্টিতে ১টা ২০ মিনিটে বন্ধ হলো খেলা।

খেলা বদ্ধ হওয়ার সময় ৬৩.২ ওভারে পাকিস্তানের রান ২ উইকেটে ১৮৮।

দ্বিতীয় দিনে খেলা হয়েছে ৬.২ ওভার, রান এসেছে ২৭।

বাবর আজম খেলছেন ৭১ রানে, আজহার আলি ৫২ রানে।

মেঘলা আকাশের নিচেও বাংলাদেশের দুই পেসার ইবাদত ও খালেদ কোনো প্রভাব রাখতে পারেননি। দুই ব্যাটসম্যান রান বাড়াতে থাকেন অনায়াসেই। সেখানেই বাধা হয়ে দাঁড়াল বৃষ্টি।

আজহারের ফিফটি

দিনের প্রথম মাইলফলকে পৌঁছে গেলেন আজহার আলি। আগের টেস্টে শূন্য রানে আউট হওয়া ব্যাটসম্যান এবার ফিফটি করলেন ১২৬ বলে।

৯১ টেস্টে তার ৩৪তম ফিফটি এটি, বাংলাদেশের বিপক্ষে সপ্তম টেস্টে তৃতীয়। ক্যারিয়ারে তার সেঞ্চুরি আছে ১৮টি, বাংলাদেশের বিপক্ষে একটি।

শতরানের জুটি

বাবর আজম ও আজহার আলির জুটি পা রাখল তিন অঙ্কে। ইবাদত হোসেনের বলে আজহারের সিঙ্গেলে পূর্ণ হলো জুটির শতরান।

২০৪ বলে সেঞ্চুরি হলো এই জুটি। তাতে ৬৪ রানই এসেছে বাবরের ব্যাট থেকে, আজহারের অবদান ৩৪ রান।

খেলা শুরু

দফায় দফায় বাধার পর অবশেষে খেলা শুরু হলো দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে। সৈয়দ খালেদ আহমেদ প্রথম বলটিই করলেন লেহ স্টাম্পের বাইরে। আলতো করে ছুঁইয়ে ফাইন লেগ দিয়ে বল বাউন্ডারিতে পাঠালেন বাবর আজম।

খেলা শুরুর নতুন সময়

বৃষ্টি থেমে যাওয়ায় উঁকি দিয়েছে নতুন সম্ভাবনা। কাভার সরানো হয়েছে। ১২টা ৫০ মিনিটে খেলা শুরুর সময়ও নির্ধারণ করেছেন আম্পায়াররা। যদিও আকাশ মেঘলা, আলো যথেষ্ট নয় বলেই মনে হচ্ছে। তবে ফ্লাড লাইট জ্বালানো হয়েছে।

বৃষ্টি চলছে

লাঞ্চ বিরতির নির্ধারিত সময় শেষ হয়েছে ১২টা ১০ মিনিটে, তবে বৃষ্টির কোনো বিরতি নেই! থেমে থেমে চলছে কেঁদে চলেছে আকাশ। উইকেট ও মাঠের বড় একটি অংশ ঢেখে রাখা কাভারে। খেলা শুরুর আপাতত কোনো সম্ভাবনা নেই।

আগেই লাঞ্চ বিরতি

বৃষ্টিতে ভেসে গেলে প্রথম সেশন। লাঞ্চ বিরতির ঘোষণা এলো আগেই। সকাল সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১২ টা ১০ মিনিট পর্যন্ত লাঞ্চ বিরতি।

প্রথম দিনের শেষ সেশনের পর দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশন, টানা দুটি সেশন খেলা হতে পারল না প্রকৃতির প্রতিবন্ধকতায়।

আবার অপেক্ষার পালা

রোদ-মেঘ-বৃষ্টির লুকোচুরি চলছেই। খেলা শুরু হওয়ার কথা ১১টা ২০ মিনিটে, কিন্তু মিনিট তিনেক আগে আবার ঝিরঝির বৃষ্টির আবির্ভাব। তাতে আবারও উইকেটে ফিরল কাভার। নতুন করে আবার খেলা শুরু হওয়ার অপেক্ষা। 

খেলা শুরুর ঘোষণা

অবশেষে অপেক্ষার অবসান। বৃষ্টি থেমেছে, কাভার সরেছে। মাঠও খেলা শুরুর জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। আম্পায়াররা জানিয়েছেন, খেলা শুরু হবে সকাল ১১টা ২০ মিনিটে। চেষ্টা করা হবে, গোটা দিনে অন্তত ৭৮ ওভার খেলা চালানোর।

আবার বৃষ্টি

আম্পায়ারদের মাঠ পরিদর্শনের মিনিট দুয়েক আগে আবার শুরু হলো বৃষ্টি। প্রবল বেগে অবশ্য নয়, স্রেফ টিপটিপ। তবে মাঠ পরিদর্শন পিছিয়ে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট সেটুকুই। আবার উইকেট ঢেকে রাখা হলো । আবারও শুরু হলো অপেক্ষা।

সরানো হলো কাভার

বৃষ্টি থেমেছে মিরপুরে। আকাশে কালো মেঘ যদিও আছে, তবে আলোর রেখাও ফুটেছে।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সরানো হয়েছে উইকেটের কাভার।

আম্পায়াররা মাঠ পরিদর্শন করবেন ১০টা ৪০ মিনিটে।

খেলা শুরু হতে দেরি

সকাল সোয়া ৯টায় মাঠ পরিদর্শন করার কথা ছিল আম্পায়ারদের। তবে বৃষ্টির কারণে তারা মাঠেই নামতে পারেননি। দিনের খেলা শুরু হতে তাই দেরি হচ্ছে নিশ্চিতভাবেই।

দিনের শুরুতেই আঁধার

আগের দিনটি শেষ হয়েছিল যেখানে, নতুন দিনের শুরু যেন সেখান থেকেই। সকাল থেকেই আকাশ কালো মেঘে ঢাকা। চারপাশ অনেকটাই অন্ধকার। উইকেটের ঘোমটা সরানোর সুযোগও হয়নি। সকাল ৯টার পরপর শুরু হয় টিপটিপ বৃষ্টি।

দুই দল অবশ্য সময়মমতোই চলে আসে মাঠে। গা গরমও করে নেন ক্রিকেটাররা। এরপর ঝিরঝির বৃষ্টিতেই মাঠে বোলিং, ফিল্ডিং ও ব্যাটিং অনুশীলন করেন কয়েকজন ক্রিকেটার। বৃষ্টির মাত্রা একটু বাড়ার পর অবশ্য মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন তারাও।

প্রথম দিনে এগিয়ে পাকিস্তান

প্রথম দিনের প্রথম সেশনে লড়াই জমে উঠেছিল দারুণভাবে। প্রথম ঘণ্টায় পাকিস্তান দারুণ শুরু করলেও পরে তাইজুল ইসলামের সৌজন্যে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। তবে বাবর আজম ও আজহার আলির জুটিতে দ্বিতীয় সেশন নিজেদের করে নেয় পাকিস্তান। আলোকস্বল্পতায় খেলা ৩৩ ওভার আগেই শেষ হওয়ার সময় এগিয়ে ছিল সফরকারী দলই।

প্রথম দিনের সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান ১ম ইনিংস: ৫৭ ওভারে ১৬১/২ (আবিদ ৩৯, শফিক ২৫, আজহার ৩৮*, বাবর ৬০*; ইবাদত ৯-১-২৮-০, খালেদ ৪-১-১৯-০, সাকিব ১৫-৬-৩৩-০, তাইজুল ১৭-৫-৪৯-২, মিরাজ ১২-২-৩১-০)।