উইলিয়ামসের সেঞ্চুরি ছাপিয়ে শ্রীলঙ্কার জয়

রেজিস চাকাভার ফিফটির পর ব্যাটিং মাস্টারক্লাসে দারুণ এক সেঞ্চুরি উপহার দিলেন শন উইলিয়ামস। জিম্বাবুয়ে পেল তিনশর কাছাকাছি পুঁজি। তাদের বোলাররা অবশ্য পারলেন না তেমন কিছু করে দেখাতে। পাথুম নিসানকা, দিনেশ চান্দিমাল ও চারিথ আসালাঙ্কার ফিফটিতে জয় তুলে নিল শ্রীলঙ্কা।

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে রোববার লঙ্কানদের জয় ৫ উইকেটে। পাল্লেকেলের ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে জিম্বাবুয়ের ২৯৬ রান ৯ বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় স্বাগতিকরা।

ক্যারিয়ারে পঞ্চম ওয়ানডে সেঞ্চুরিতে ৮৭ বলে ১০০ রানের ইনিংস খেলেন উইলিয়ামস। কিপার-ব্যাটসম্যান চাকাভা ৮১ বলে করেন ৭২ রান।

রান তাড়ায় শ্রীলঙ্কার তিন ব্যাটসম্যান থমকে যান ৭১ থেকে ৭৫ রানের মধ্যে! ওপেনার নিসানকা ৭১ বলে করেন ৭৫। চান্দিমালও ঠিক ৭৫ রান করেন ৯১ বলে। ৬৮ বলে ৭১ রান আসে আসালাঙ্কার ব্যাট থেকে।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে অভিষিক্ত টাকুদজোয়ানাশে কাইটানো ও চাকাভার ব্যাটে জিম্বাবুয়ের শুরুটা হয় দারুণ। দুজনে উপহার দেন ৮৯ বলে ৮০ রানের উদ্বোধনী জুটি। ফিফটির সম্ভাবনা জাগিয়ে কাইটানো থামেন ৫০ বলে ৪২ রান করে।

চাকাভা অবশ্য আউট হতে পারতেন ২ রানে। কিন্তু স্লিপে তার ক্যাচ ফেলেন আসালাঙ্কা। এর আগেই একটি ধাক্কা খায় শ্রীলঙ্কা। এক ওভার বল করে পায়ের পেশিতে টান লাগায় মাঠ ছাড়েন অভিষিক্ত পেসার চামিকা গুনাসেকারা।

জীবন পেয়ে চাকাভা ফিফটি পূর্ণ করেন ৪৯ বলে। শততম ওয়ানডে খেলতে নামা অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ৯ রান করে বোল্ড হন তিনি কামিদু মেন্ডিসের বলে।

সেঞ্চুরির পথে এগোতে থাকা চাকাভাকে থামান জেফরি ভ্যান্ডারসে। লেগ স্পিনারকে স্লগ সুইপের চেষ্টায় বল আকাশে তোলেন ব্যাটসম্যান। ৬ চার ও একটি ছক্কায় গড়া চাকাভার ৭২ রানের ইনিংসটি।

এরপর বলতে গেলে দলকে প্রায় একাই টানেন উইলিয়ামস। ভালো শুরু করে ইনিংস বড় করতে পারেননি ওয়েসলি মাধেভেরে (২০), সিকান্দার রাজা (১৮)।

উইলিয়ামস ফিফটি পূর্ণ করেন ৫২ বলে। শেষের আগের ওভারে ৮৬ বলে স্পর্শ করেন তিন অঙ্ক। শেষ ওভারে চামিকা করুনারত্নের স্লোয়ারে বোল্ড হয়ে থামেন তিনি। ৯ চার ও ২ ছক্কায় গড়া ১০০ রানের ইনিংসটি। শেষ দুই বলে ছক্কা-চারে স্কোর তিনশর কাছে নিয়ে যান রিচার্ড এনগারাভা।

শ্রীলঙ্কার সফল ও সবচেয়ে খরুচে বোলার চামিকা। ডানহাতি পেসার ১০ ওভারে ৬৯ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। মাহিশ থিকশানা ১০ ওভারে ৪০ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন।

রান তাড়ায় ৪০ বলে ৪০ রানের উদ্বোধনী জুটিতে শ্রীলঙ্কার সুর বেঁধে দেন নিসানকা ও কুসল মেন্ডিস। ২৪ বলে ২৬ রান করা মেন্ডিসকে কট বিহাইন্ড করে জিম্বাবুয়েকে প্রথম সাফল্য এনে দেন ব্লেসিং মুজারাবানি।

তিনে নেমে একটি করে চার-ছক্কায় ১৭ রান করে বিদায় নেন কামিন্দু মেন্ডিস। তৃতীয় উইকেটে নিসানকা ও চান্দিমাল ৬৪ বলে ৬৬ রানের জুটিতে এগিয়ে নেন দলকে।

দারুণ ব্যাটিংয়ে ৪৮ বলে ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি করে ছুটতে থাকা নিসানকাকে কট বিহাইন্ড করে জুটি ভাঙেন সিকান্দার রাজা। জিম্বাবুয়ে উইকেটটি পায় রিভিউ নিয়ে। ১০ চারে সাজানো নিসানকার ৭৫ রানের ইনিংস।

এরপরই ইনিংসের সেরা জুটিটা পায় শ্রীলঙ্কা। চতুর্থ উইকেটে ১২৭ বলে ১২৯ রানের জুটিতে দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে যান চান্দিমাল ও আসালাঙ্কা।

আসালাঙ্কাকে ৩২ রানে একবার এনগারাভার বলে এলবিডব্লিউ দিয়েছিলেন আম্পায়ার। রিভিউ নিয়ে সে যাত্রায় বেঁচে যান ব্যাটসম্যান। ফিফটি করেন তিনি ৫৭ বলে। চান্দিমালের লাগে ৬৪ বল।

নিজের পরপর দুই ওভারে এই দুজনকে ফিরিয়ে দেন এনগারাভা। ম্যাচের সেরা চান্দিমালের ৭৫ রানের ইনিংসে ৪টি চারের পাশে ছক্কা একটি। আসালাঙ্কার ৭১ রানের ইনিংস গড়া ৬ চার ও ২ ছক্কায়। বাকিটা সারেন চামিকা ও অধিনায়ক দাসুন শানাকা।   

একই মাঠে আগামী মঙ্গলবার হবে দ্বিতীয় ওয়ানডে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

জিম্বাবুয়ে: ৫০ ওভারে ২৯৬/৯ (কাইটানো ৪২, চাকাভা ৭২, আরভিন ৯, উইলিয়ামস ১০০, মাধেভেরে ২০, রাজা ১৮, বার্ল ৪, মাসাকাদজা ৬, মুজারাবানি ৩, চাতারা ১*, এনগারাভা ১০*; প্রদিপ ১০-১-৫৪-২, গুনাসেকারা ১-০-৮-০, থিকশানা ১০-০-৪০-০, শানাকা ৪-০-৩৪-০ চামিকা ১০-১-৬৯-৩, ভ্যান্ডারসে ৬-০-৪৪-২, কামিন্দু মেন্ডিস ৬-০-৩২-১, আসালাঙ্কা ৩-০-১৩-০)

শ্রীলঙ্কা:
৪৮.৩ ওভারে ৩০০/৫ (নিসানকা ৭৫, কুসল মেন্ডিস ২৬, কামিন্দু মেন্ডিস ১৭, চান্দিমাল ৭৫, আসালাঙ্কা ৭১, শানাকা ১০*, চামিকা ৫*; মুজারাবানি ৯.৪-০-৫৭-১, চাতারা ৯-০-৫৬-০, এনগারাভা ৯-০-৫৬-৩, মাসাকাদাজা ৬-০-২৯-০, বার্ল ১-০-১২-০, উইলিয়ামস ৮-০-৪৩-০, রাজা ৪-০-২৩-১, মাধেভেরে ২-০-১৭-০)

ফল: শ্রীলঙ্কা ৫ উইকেটে জয়ী

সিরিজ:
তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথমটি শেষে ১-০ তে এগিয়ে শ্রীলঙ্কা

ম্যান অব দা ম্যাচ: দিনেশ চান্দিমাল।