টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তানের গ্রুপে বাংলাদেশ

গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শেষ হয়েছে মাত্র মাস দুয়েক আগে। এর মধ্যেই চূড়ান্ত হয়ে গেল আগামী বিশ্বকাপের গ্রুপিং ও সূচি। ২০ ওভারের বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভ-এ বাংলাদেশ খেলবে দুই নম্বর গ্রুপে। এই গ্রুপে ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গী হবে প্রথম পর্ব উতরে আসা দুই দল।

বিশ্বক্রিকেটের নিয়ন্তা সংস্থা আইসিসি শুক্রবার ঘোষণা করে বিশ্বকাপের গ্রুপিং ও সূচি। আগামী ১৬ অক্টোবর প্রথম পর্বে শ্রীলঙ্কা ও নামিবিয়ার ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের অষ্টম আসর।

প্রথম পর্বের ম্যাচগুলি হবে জিলং ও হোবার্টে। শ্রীলঙ্কা, নামিবিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, স্কটল্যান্ডের সঙ্গে প্রথম পর্বে খেলবে বাছাই পেরিয়ে আসা চার দল।

গত তিন আসর প্রথম পর্বে খেলার পর বাংলাদেশকে এবার শুরুর এই পর্বে খেলতে হচ্ছে না আইসিসির বেঁধে দেওয়া সময়ে র‌্যাঙ্কিংয়ে নিরাপদ অবস্থানে থাকায়।

সুপার টুয়েলভ-এর লড়াই শুরু হবে গত আসরের দুই ফাইনালিস্টের ম্যাচ দিয়ে। ২২ অক্টোবর মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে নিউ জিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া। একই দিন পার্থে আফগানিস্তানের সঙ্গে লড়বে ইংল্যান্ড। ‘১’ নম্বর গ্রুপে এই চার দলের সঙ্গী হবে প্রথম পর্ব পার করে আসা দুই দল।

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ অভিযান শুরু ২৪ অক্টোবর, হোবার্টে প্রতিপক্ষ থাকবে প্রথম রাউন্ডে ‘এ’ গ্রুপের রানার্স আপ দল। সুপার টুয়েলভ-এর পাঁচটি ম্যাচ বাংলাদেশ খেলবে চার ভেন্যুতে।

২৭ অক্টোবর সিডনিতে বাংলাদেশ খেলবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে, ব্রিজবেনের গ্যাবায় ৩০ অক্টোবর লড়াই প্রথম রাউন্ডের ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন দলের সঙ্গে।

এই পর্বের শেষ দুটি ম্যাচ বাংলাদেশ খেলবে অ্যাডিলেইডে। ২ নভেম্বর প্রতিপক্ষ ভারত, ৬ নভেম্বর পাকিস্তান।

৬ নভেম্বরই শেষ হবে সুপার টুয়েলভ পর্বের সব লড়াই। ৯ নভেম্বর প্রথম সেমি-ফাইনাল সিডনিতে, পরদিন দ্বিতীয় সেমি-ফাইনাল অ্যাডিলেইডে।

১৩ নভেম্বর ফাইনাল ১ লাখ দর্শক ধারণক্ষমতার ঐতিহাসিক মেলবোর্ন ক্রিকেট মাঠে।

সব মিলিয়ে অস্ট্রেলিয়ার ৭টি ভেন্যুতে হবে বিশ্বকাপের ম্যাচগুলি।

অস্ট্রেলিয়ায় এই আসরটি হওয়ার কথা ছিল ২০২০ সালে। তবে কোভিডের কারণে তা পিছিয়ে যায়।

সবশেষ আসরের ফাইনালে গত ১৪ নভেম্বর দুবাইয়ে নিউ জিল্যান্ডকে হারিয়ে ২০ ওভারের বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম শিরোপা জেতে অস্ট্রেলিয়া।