হঠাৎ পরিবর্তনে মিরাজের জায়গায় চট্টগ্রামের নেতৃত্বে নাঈম

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে বেশ ঘটা করেই অধিনায়ক হিসেবে মেহেদী হাসান মিরাজের নাম জানিয়েছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। কিন্তু চার ম্যাচের সমাপ্তি এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডারের নেতৃত্বের অধ্যায়ের! পঞ্চম শনিবার সিলেট সানরাইজার্সের বিপক্ষে টস করতে দেখা গেল অভিজ্ঞ ক্রিকেটার নাঈম ইসলামকে।

নেতৃত্বে আচমকা নিয়ে পরিবর্তন নিয়ে ধোঁয়াশাও ছড়াল খানিকটা। টসের সময় নাঈম জানান, স্বেচ্ছায় নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন মিরাজ। তবে দলটির চিফ অপারেটিং অফিসার ইয়াসির আলম ও ম‍্যানেজার ফাহিম মুনতাসির সুমিত বলেছেন অন‍্য কথা।

চট্টগ্রাম দলের ম‍্যানেজার ফাহিম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, শুক্রবার ইংল‍্যান্ডে ফিরে যাওয়া কোচ পল নিক্সনের পরামর্শে এই পরিবর্তন এসেছে।

“নিক্সনের সঙ্গে পুরো আসরের জন‍্যই চুক্তি ছিল। তার কাউন্টি ক্লাব থেকে জরুরি বার্তা পেয়ে তিনি ইংল‍্যান্ডে ফিরে গেছেন। যাওয়ার আগে দল কীভাবে চলবে, তিনি এর একটি পর্যবেক্ষণ দিয়ে গেছেন। তার ভিত্তিতেই এই পরিবর্তন এসেছে। মিরাজ দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। তাকে নির্ভার খেলার সুযোগ দিতে তিনি নেতৃত্ব বদলের কথা বলেছিলেন।”

চট্টগ্রামের চিফ অপারেটিং অফিসার ইয়াসির আলমের কথাও অনেকটা একইরকম।

“নিক্সন তার কাউন্টি দল লেস্টারশায়ারে ফিরে যাওয়ায় এখন প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করবেন পেস বোলিং কোচ শন টেইট। মিরাজের জায়গায় নাঈমকে অধিনায়ক করার পরামর্শ দিয়ে গিয়েছিলেন নিক্সন। সেই অনুযায়ী এখন থেকে দলকে নেতৃত্ব দেবেন এই অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার।”

মিরাজের নেতৃত্ব ৪ ম‍্যাচে চট্টগ্রামের জয়-পরাজয় দুটি করে। এই চার ম‍্যাচে অফ স্পিনে ৮ উইকেট নিয়েছেন মিরাজ। ব্যাটে হাতে একটিতে খেলেছেন ৩০ রানের ইনিংস, আরেক ম‍্যাচে করেছেন ২৫। বাকি দুই ম‍্যাচে যেতে পারেননি দুই অঙ্কে।

অভিজ্ঞ নাঈম চার ম‍্যাচ মিলিয়ে করেছেন ৫৫ রান। এক ম‍্যাচ বোলিং করে নিয়েছেন একটি উইকেট। বিপিএলে তার নেতৃত্বের অভিজ্ঞতা আছে আগেও। ঘরোয়া অন্যান্য  ক্রিকেটেও নিয়মিতই দলকে নেতৃত্ব দেন তিনি।