দারুণ শুরুর পর শেষটায় হতাশ বাংলাদেশ

শক্ত অবস্থানে থেকে তৃতীয় দিন শেষ করেছে সফরকারীরা।

তৃতীয় দিন

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৩৬৫

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস: ৯৭ ওভারে ২৮২/৫

 

শেষটায় হতাশ বাংলাদেশ

দিনের দ্বিতীয় বলেই ধরা দিয়েছিল সাফল্য। প্রথম ঘণ্টায় পরে মিলেছিল আরেকটি। দারুণ শুরু পেলেও শেষ পর্যন্ত দিনটি নিজেদের করে নিতে পারল না বাংলাদেশ। মাঝে বৃষ্টিও বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল তাদের সম্ভাবনার পথে।

তবে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞায় শেষ পর্যন্ত দৃঢ় অবস্থানে থেকেই তৃতীয় দিন শেষ করল শ্রীলঙ্কা। তাদের রান ৫ উইকেটে ২৮২। স্বাগতিকদের চেয়ে পিছিয়ে ৮৩ রানে।

আলোক স্বল্পতায় আম্পায়ারদের খেলা শেষ করতে হয় একটু আগেই।

চারটি চার ও এক ছক্কায় ১৫৩ বল খেলা ম্যাথিউস অপরাজিত আছেন ৫৮ রান নিয়ে। তার সঙ্গে খেলছেন আরেক অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান দিনেশ চান্দিমাল। ২৯ বলে এক চারে তার রান ১০।

ইবাদত হোসেন ও সাকিব আল হাসান দিনের শুরুতে দুটি উইকেট এনে দেন। এরপর ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে নিয়ে শতরানের জুটি গড়ে বাংলাদেশের আশা অনেকটা ভেঙে দেন ম্যাথিউস।

ফিফটি করা ধনাঞ্জয়ার বিদায়ে তাদের জুটির ভাঙন কিছুটা স্বস্তি হয়ে এসেছে বাংলাদেশের জন্য। কিন্তু এখনও দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়েছে আছেন ম্যাথিউস।

বৃষ্টিতে হয়নি পুরো এক সেশন খেলা। আগামী দুই দিন খেলা শুরু হবে আধ ঘণ্টা আগে। খেলা শুরু সাড়ে নয়টায়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৩৬৫

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস: ৯৭ ওভারে ২৮২/৫ (করুনারত্নে ৮০, রাজিথা ০, ম্যাথিউস ৫৮*, ধনাঞ্জয়া ৫৮, চান্দিমাল ১০*; খালেদ ১৫-১-৬২-০, ইবাদত ২৬-৪-৭৮-২, সাকিব ২৬-৯-৫৯-৩, মোসাদ্দেক ২-০-১৪-০, তাইজুল ২৮-৬-৬৩-০)

ম্যাথিউসের ব্যাটে শ্রীলঙ্কার স্বস্তির সমাপ্তি

ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে ফেরালেও শেষ পর্যন্ত অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের প্রতিরোধ ভাঙতে পারল না বাংলাদেশ। আগের টেস্টের সেঞ্চুরিয়ানের ব্যাটে শক্ত অবস্থানে থেকেই তৃতীয় দিন শেষ করল শ্রীলঙ্কা।

বৃষ্টির বাগড়ায় মাঝের এক সেশন ভেস্তে যায়। তৃতীয় সেশনে খেলা হয়েছে ২৬.৫ ওভার। এই সময় লঙ্কানরা তুলেছে ৭২ রান, বাংলাদেশের প্রাপ্তি এক উইকেট।

জুটি ভাঙলেন সাকিব

ফিফটির পর ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে টিকতে দিলেন না সাকিব আল হাসান। লঙ্কান এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানকে রিভিউ নিয়ে ফেরাল বাংলাদেশ।

৮৮তম ওভারের পঞ্চম বলটি ঝুলিয়ে দেন সাকিব। পা বাড়িয়ে ডিফেন্স করেন ধনাঞ্জয়া। কিন্তু বাঁহাতি স্পিন টার্ন করে বেরিয়ে যাওয়ায় ঠিকমতো খেলতে পারেননি ব্যাটে।

ব্যাটের গা ঘেঁষে বল জমা পড়ে কিপার লিটন কুমার দাসের গ্লাভসে। আবেদন করেন ফিল্ডাররা। সাড়া দেননি আম্পায়ার।

সাকিব খুব একটা নিশ্চিত ছিলেন না। অনেক আলোচনার পর শেষ মুহূর্তে রিভিউ নেয় বাংলাদেশ। রিপ্লেতে দেখা যায়, বল হালকা ব্যাট স্পর্শ করেছে। উল্লাসে মাতে দল।

থামে ৯ চারে ৯৫ বলে খেলা ধনাঞ্জয়ার ৫৮ রানের ইনিংস। ভাঙে ১৯১ বল স্থায়ী ১০২ রানের জুটি।

ম্যাথিউসের সঙ্গে উইকেটে নতুন ব্যাটসম্যান দিনেশ চান্দিমাল।

শ্রীলঙ্কার রান ৫ উইকেটে ২৬৭।

ছক্কায় ম্যাথিউসের পঞ্চাশ

সঙ্গীর ফিফটি দেখে যেন তর সইল না অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের। পরের ওভারে সাকিব আল হাসানের বলে ছক্কায় উড়িয়ে পঞ্চাশে পা রাখলেন তিনি, ১২৫ বলে।

ক্যারিয়ারে এটি ম্যাথিউসের ৩৮তম ফিফটি, বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয়।

ধনাঞ্জয়ার ফিফটি

খালেদ আহমেদের অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বল ব্যাকফুটে দাঁড়িয়ে ড্রাইভ করলেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। বল গেল বাউন্ডারিতে। এর সঙ্গে ফিফটিতে পা রাখলেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান, ৯০ বলে।

বাংলাদেশের বিপক্ষে ফিফটি পেরুলেই সেঞ্চুরি স্পর্শ করেন ধনাঞ্জয়া। দলটির সঙ্গে দুটি সেঞ্চুরি আছে তার। আরও একবার পার করলেন পঞ্চাশ।

ক্যারিয়ারে এটি ধনাঞ্জয়ার দশম অর্ধশত। ইনিংসে মেরেছেন ৮টি চার।

দ্বিতীয় নতুন বল

উইকেটের খোঁজে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয় নতুন বল নিতে দেরি করল না। ৮১তম ওভারের মাঝপথে অধিনায়ক মুমিনুল হক নিলেন নতুন বল। সৈয়দ খালেদ আহমেদ ওভারটির দুই বল করার পর এই সিদ্ধান্ত নেন স্বাগতিক অধিনায়ক।

জুটির পঞ্চাশ

বৃষ্টির বাধায় খেলা হয়নি লম্বা এক সময় ধরে। তাতেও যেন মনোযোগে চিড় ধরেনি ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের। সতর্ক ব্যাটিংয়ে পঞ্চাশ ছুঁয়ে বড় জুটি গড়ার পথে হাঁটছেন তারা।

ইনিংসে দ্বিতীয় পঞ্চাশ ছোঁয়া জুটি পেল শ্রীলঙ্কা। ম্যাথিউস-ধনাঞ্জয়ার জুটি ফিফটি স্পর্শ করেছে ১২২ বলে।

জুটিতে অগ্রণী ধনাঞ্জয়া। তার অবদান ৩৪ রান। আর ম্যাথিউসের অবদান ১৫ রান।

খেলা শুরু চারটায়

মাঠ প্রস্তুতির কাজ প্রায় শেষ। সরিয়ে ফেলা হয়েছে কাভার। ৪ ঘণ্টা অপেক্ষার পর বিকাল চারটায় শুরু হবে খেলা।

আলো থাকার সাপেক্ষে ৬টা পর্যন্ত চলবে আজকের দিনের খেলা।

সাড়ে তিনটায় ফের পর্যবেক্ষণ

বৃষ্টি থেমেছে আধাঘণ্টার বেশি সময় হলো। চলছে মাঠ প্রস্তুতের কাজ। সরানো হচ্ছে কাভার।

তিনটায় একবার পরিদর্শন করে গেছেন আম্পায়াররা। সাড়ে তিনটায় ফের মাঠের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করবেন তারা। এরপর আসতে পারে সিদ্ধান্ত।

ভেসে গেল দ্বিতীয় সেশনের খেলা

লাঞ্চ বিরতির ঠিক আগ মুহূর্তে নামা বৃষ্টি চলল আড়াই ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে। তাতে ভেসে গেছে তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশনের খেলা।

বেলা আড়াইটার পর থামে বৃষ্টি। পরে শুরু হয় মাঠ প্রস্তুতের কাজ।

তিনটার দিকে মাঠ পরিদর্শন করে এরপর সিদ্ধান্ত নেবেন আম্পায়াররা। শেষ সেশনের খেলা হওয়ার সম্ভাবনা এখন পর্যন্ত ভালোই আছে।

বেড়েছে বৃষ্টির বেগ, খেলা শুরু হতে দেরি

শুরুতে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি থাকলেও এখন বেগ বেড়েছে অনেক। লাঞ্চের বিরতির সময় পার হয়ে গেলেও তাই এখনই খেলা শুরু হচ্ছে না।

স্বাভাবিকভাবেই উইকেটসহ মাঠের অনেকটা জায়গায় কাভার দিয়ে ঢাকা।

প্রথম ঘণ্টায় ২ উইকেট, পরের ঘণ্টায় ম‍্যাথিউস-ধনাঞ্জয়ার প্রতিরোধ

দ্বিতীয় বলেই এসেছিল উইকেট। কিছুক্ষণ পর সাকিব আল হাসানের হাত ধরে মেলে বড় শিকার। প্রথম সেশনটা নিজেদের করে এগিয়ে নেওয়ার পথেই ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু দ্বিতীয় ঘণ্টায় দারুণ প্রতিরোধ গড়লেন অ‍্যাঞ্জেলো ম‍্যাথিউস ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা।

লাঞ্চ বিরতিতে যাওয়ার সময় শ্রীলঙ্কার রান ৪ উইকেট হারিয়ে ২১০। সফরকারীরা এখনও ১৫৫ রানে পিছিয়ে।

২ চারে ৭৬ বলে ২৫ রানে খেলছেন প্রথম টেস্টের সেঞ্চুরিয়ান ম্যাথিউস। দ্রুত রান আসছে ধনাঞ্জয়ার ব্যাট থেকে। ৫ চারে ৪০ বলে তার রান ৩০।

এই দুইজনের অবিচ্ছিন্ন জুটি ৮৫ বলে ৪৬ রানের।

প্রথম সেশনে খেলা হয়েছে ২৪.১ ওভার। এই সময়ে ২ উইকেট হারিয়ে শ্রীলঙ্কা করতে পেরেছে ৬৭ রান।

লাঞ্চের ঠিক আগের ওভারে বৃষ্টি নামায় এক বল হতেই খেলা বন্ধ করে দেন আম্পায়াররা।

লাঞ্চের ঠিক আগে নামল বৃষ্টি

আকাশ অনেকক্ষণ ধরেই ঘন মেঘে ঢাকা। কাভার হাতে নিয়ে তৈরিই ছিলেন গ্রাউন্ডসম‍্যানরা। লাঞ্চের আগে সেটি ছিল শেষ ওভার। সাকিব আল হাসান প্রথম বলটি করা মাত্রই নামল বৃষ্টি।

পাঁচ বল বাকি থাকতেই নেওয়া হলো লাঞ্চ। উইকেটসহ বেশ অনেকটা জায়গা কাভার দিয়ে ঢাকা। এই মুহূর্তে বৃষ্টির বেগ খুব বেশি নয়।

ফিরলেন লিটন

মাঠ ছাড়ার তিন ওভার পরই ফিরলেন লিটন কুমার দাস। তার অনুপস্থিতিতে এই সময়ে গ্লাভস হাতে দাঁড়িয়েছিলেন নুরুল হাসান সোহান।

৬৪তম ওভার শেষ হওয়ার পর মাঠ ছেড়েছিলেন লিটন।

কিপিংয়ে সোহান

৬৪তম ওভারের পর মাঠ ছেড়ে উঠে গেলেন উইকেটরক্ষক লিটন কুমার দাস। তার জায়গায় উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়েছেন নুরুল হাসান সোহান। দিনের শুরুতে তাকে ফিল্ডিংও করতে দেখা যায়।

প্রথম ঘণ্টায় ২ উইকেট

চাওয়া অনুযায়ীই এখন পর্যন্ত দিন কাটছে বাংলাদেশের তৃতীয় দিন। প্রথম ঘণ্টায় তারা তুলে নিয়েছে শ্রীলঙ্কার ২ উইকেট।

এই সময়ে খেলা হয়েছে ১৩ ওভার। লঙ্কানরা রান তুলতে পেরেছে ৩৩।

ইবাদত হোসেনকে দিয়ে দিনের খেলা শুরু করেন মুমিনুল হক। কাসুন রাজিথাকে ফিরিয়ে দ্বিতীয় বলেই দলকে সাফল্য এনে দেন তিনি। এরপর দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে সাকিব আল হাসান বোল্ড করে দেন দেয়াল হয়ে দাঁড়ানো দিমুথ করুনারত্নেকে।

জুটি গড়ার চেষ্টায় আছেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। ১০ রানে খেলছেন ধনাঞ্জয়া, ম্যাথিউসের রান ১৩।

৫৯ ওভার শেষে সফরকারীদের রান ৪ উইকেটে ১৭৬।

সাকিবের দারুণ ডেলিভারিতে বোল্ড করুনারত্নে

আগের দিন কয়েকবার বেঁচে যাওয়া দিমুথ করুনারত্নেকে তৃতীয় দিন সকালেই ফেরালেন সাকিব আল হাসান। দারুণ এক ডেলিভারিতে বাঁহাতি এই স্পিনার বোল্ড করে দিলেন লঙ্কান অধিনায়ককে।

৫৬তম ওভারের শেষ বলটি রাউন্ড দা উইকেট থেকে করেন সাকিব। অফ স্টাম্পের ওপর ঝুলিয়ে দেওয়া বল এক পা এগিয়ে খেলেন করুনারত্নে।

কিন্তু শেষ মুহূর্ত বল ড্রিফট করায় ব্যাটে খেলতে পারেননি তিনি। মিস করে ফেলেন বলের লাইন। ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে ছোবল দেয় স্টাম্পে।

আর তাতে ভাঙে করুনারত্নের প্রতিরোধ। ৯ চারে ১৫৫ বলে ৮০ রান করেন বাঁহাতি এই ওপেনার।

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের সঙ্গে উইকেটে নতুন ব্যাটসম্যান ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা।

শ্রীলঙ্কার রান ৪ উইকেটে ১৬৪।

দ্বিতীয় বলেই ইবাদতের সাফল্য

দিনের খেলা শুরু হতেই দলকে সাফল্য এনে দিলেন ইবাদত হোসেন। নাইটওয়াচম্যান কাসুন রাজিথাকে দিনের দ্বিতীয় বলেই ফিরিয়ে দিলেন এই পেসার।

অফ স্টাম্পের ওপর লেংথ বলের লাইন মিস করলেন রাজিথা। তার ব্যাট ফাঁকি দিয়ে বল ছোবল দিল তার অফ স্টাম্পে।

বল হাতে ৫ উইকেট শিকারি রাজিথা ব্যাট হাতে ১২ বল খেলে রানের খাতা খুলতে পারেননি।

উইকেটে দিমুথ করুনারত্নের সঙ্গী প্রথম টেস্টে সেঞ্চুরি করা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস।

শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ১৪৪।

লঙ্কানদের দ্রুত থামাতে চায় বাংলাদেশ

উইকেট মিলতে পারত আরও কয়েকটি। কিন্তু ভাগ্য যেন খুব একটা সঙ্গী ছিল না বাংলাদেশ দলের। দ্বিতীয় দিনের সেই আক্ষেপ ভুলে তৃতীয় দিন ভালো শুরুর আশা নিয়ে নামছে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কাকে দ্রুত গুটিয়ে দিয়ে লিড নেওয়ায় চোখ রাখছে স্বাগতিকরা।

২ উইকেট হারিয়ে ১৪৩ রান নিয়ে দ্বিতীয় শেষ করেছে লঙ্কানরা। বাংলাদেশ থেকে এখনও তারা পিছিয়ে ২২২ রানে।

জীবন পাওয়া দিমুথ করুনারত্নে খেলছেন ১২৭ বলে ৭ চারে ৭০ রানে। তার সঙ্গী নাইটওয়াচম্যান হিসেবে শেষ বেলায় খেলতে নামা কাসুন রাজিথা ১১ বল খেলে এখনও রানের খাতা খুলতে পারেননি।

মঙ্গলবার দিনের খেলা শেষে ১৪১ রানের ইনিংস খেলা লিটন কুমার দাস বলেন, বুধবার সকালে দুয়েকটি উইকেট নিয়ে চালকের আসনে বসতে চান তারা।

“এখনও তারা পিছিয়ে আছে অনেকদূর। মিরপুরের উইকেটই এমন যে, সকালে একটি-দুটি উইকেট দ্রুত নিয়ে নিতে পারলে, অনেকখানি সম্ভাবনা থাকবে। অবশ্যই প্রথম ইনিংস অনেক গুরুত্বপূর্ণ এখানে। তারা যদি আমাদের কাছাকাছি আসে বা পেরিয়ে যায়, তাহলে আমরা ব্যাকফুটে চলে যাব। যতখানি লিড টানা যায়, এগিয়ে থাকা যায়, ততটা ভালো আমাদের জন্য।”

দ্বিতীয় দিন শেষে সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৩৬৫

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস: ৪৬ ওভারে ১৪৩/২ (ওশাদা ৫৭, করুনারত্নে ৭০*, মেন্ডিস ১১, রাজিথা ০*; খালেদ ৯-১-২৭-০, ইবাদত ৯-০-৩১-১, সাকিব ৯-৩-১৯-১, মোসাদ্দেক ২-০-১৪-০, তাইজুল ১৭-১-৪৯-০)