বাংলাদেশের স্কোর ছুঁয়েই দ্রুত রান তুলতে চায় শ্রীলঙ্কা

শ্রীলঙ্কার কোচ ক্রিস সিলভারউড ও বাংলাদেশের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদের সঙ্গে লঙ্কান সহকারী কোচ নাভিদ নওয়াজ (মাঝে)।
স্কোরকার্ডে যে ছবি ফুটে উঠছে, তাতে ম্যাচে আপাতত এগিয়ে রাখা যায় শ্রীলঙ্কাকেই। লিড নেওয়ার সম্ভাবনাও তাদের আছে যথেষ্টই। আপাতত সেটিই তাদের মূল লক্ষ্য। বাংলাদেশের রান পেরিয়ে যাওয়ার পর লক্ষ্য থাকবে আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে যত দ্রুত সম্ভব লিড বাড়ানো, বললেন শ্রীলঙ্কার সহকারী কোচ নাভিদ নওয়াজ।

এমনিতে টেস্ট ম্যাচে তৃতীয় দিনটিকে সাধারণত মনে করা হয় ‘মুভিং ডে’, এই দিনেই ম্যাচ কোনো একদিকে মোড় নেয়। তবে এবার মিরপুরে তা হতে দেয়নি বৃষ্টি। তিন ঘণ্টার মতো খেলা হতে পারেনি বৃষ্টিতে। খেলা যেটুকু হয়েছে, সেখানে হয়নি নাটকীয় কিছু।

৫ উইকেটে ২৮২ রান নিয়ে দিন শেষ করেছে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস থেকে তারা পিছিয়ে আছে আর ৮৩ রানে।

আগের টেস্টে ১৯৯ রানের ইনিংস খেলা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস এখনও ক্রিজে আছেন ৫৮ রান নিয়ে। তার সঙ্গী দিনেশ চান্দিমাল, বাংলাদেশের বিপক্ষে যার রেকর্ড দুর্দান্ত। বাইরে অপেক্ষায় আছেন নিরোশান ডিকভেলা ও রমেশ মেন্ডিস। আগ্রাসী ডিকভেলা রান তুলতে পারেন দ্রুত। মেন্ডিসের তো প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ট্রিপল সেঞ্চুরিও আছে। লিড নেওয়ার আশা তাই তারা করতেই পারে।

তৃতীয় দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে দলের সহকারী কোচ নাভিদ নওয়াজ শোনালেন তাদের চতুর্থ দিনের পরিকল্পনা।

“আমাদের লক্ষ্য সেদিকেই (লিড নেওয়া)। তবে এখনও অনেক পরিশ্রম করতে হবে আমাদের। এখনও ৯০-৯৫ (আসলে ৮৩) রান পেছনে আমরা। চতুর্থ দিনের উইকেটে এটা অনেক রান। আমাদের প্রয়োজন, খুব বেশি উইকেট না হারিয়ে আরও একটি সেশন কাটানো। রান সমান করে ফেলার পর ব্যাপারটি হলো, কত দ্রুত আমরা রান তুলতে পারি।”

ম্যাচের তিন দিন শেষ হলেও দুই দলের প্রথম ইনিংসও এখনও শেষ হয়নি। সাদা চোখে আপাতত সবচেয়ে সম্ভাব্য ফল মনে হতে পারে ড্র। তবে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ হিসেবে এখানে চার বছর কাটিয়ে যাওয়া নওয়াজ এখনও জয়-পরাজয়ের সম্ভাবনা দেখছেন ভালোভাবেই।

“এখনও পর্যন্ত দুই দল মোটামুটি সমতায়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে বৃষ্টির কারণে দুটি সেশন হারাতে হয়েছে আজ। আগামীকালের দিনটি হবে গুরুত্বপূর্ণ। চতুর্থ দিনের শেষ দিকে ও পঞ্চম দিনে যদি উইকেটে বল ঘুরতে থাকে, তাহলে ফলাফল (জয়-পরাজয়) খুবই সম্ভব।”