কুবরার ৪ উইকেটে গুলশান ইয়ুথ ক্লাবের বড় জয়

একজন শুরু থেকে আগলে রাখলেন এক প্রান্ত। আরেক প্রান্তে বাকিরা যোগ দিলেন আসা-যাওয়ার মিছিলে। খাদিজা তুল কুবরা, রিয়া আক্তারদের দারুণ বোলিংয়ে মিরপুর প্রমীলা ক্রিকেট ক্লাব গুটিয়ে গেল পঞ্চাশ পেরিয়েই। দাপুটে পারফরম্যান্সে গুলশান ইয়ুথ ক্লাব তুলে নিল বড় জয়।

মেয়েদের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে বৃহস্পতিবার গুলশান ইয়ুথ ক্লাবের জয় ১০ উইকেটে। প্রতিপক্ষকে ৫২ রানে গুটিয়ে দিয়ে স্রেফ ১৩.২ ওভারেই তারা নিশ্চিত করে জয়।

মেয়েদের ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ডধারী অভিজ্ঞ অফ স্পিনার কুবরা ১৭ রানে ৪ উইকেট নিয়ে হয়েছেন ম্যাচের সেরা।

বিকেএসপির চার নম্বর মাঠে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকে নিয়মিত উইকেট হারায় মিরপুর প্রমীলা। দলটির একজন ব্যাটার শুধু যেতে পারেন দুই অঙ্কে। ইনিংস শুরু করে শেষ ব্যাটার হিসেবে আউট হওয়া অধিনায়ক প্রমা কুণ্ডু ৬০ বলে ২ চারে করেন ৩০ রান।

১০ এর বেশি বল খেলতে পারেন আর একজন। ৩১ বলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৮ রান করেন জনি আক্তার। পাঁচ জন আউট হন শূন্য রানে।

কুবরার ৪টি ছাড়া রিয়া ১৭ রানে ও আনিশা ২০ রানে নেন ৩টি করে উইকেট।

ছোট লক্ষ্য তাড়ায় দেখেশুনে খেলে দলকে জয়ের ঠিকানায় পৌঁছে দেন দুই ওপেনার শাহনাজ পারভিন ও সুমিয়া আইরিন। সুমিয়া ৪০ বলে ২৬ ও শাহনাজ ৪১ বলে ১১ রানে অপরাজিত থাকেন। অতিরিক্ত থেকে আসে ১৬ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

মিরপুর প্রমীলা ক্রিকেট ক্লাব: ২৪.১ ওভারে ৫২ (সাদিয়া ০, প্রমা ৩০, পাপিয়া ৩, জুমা ০, জনি ৮, মাসুমা ০, অর্পা ০, রিফাত ০, শারমিন ২, ইয়াসমিন ২, শেজদা ১*; রিয়া ৭-২-১৪-৩, আনিশা ১০-০-২০-৩, কুবরা ৭.১-১৭-৪)  

গুলশান ইয়ুথ ক্লাব: ১৩.১ ওভারে ৫৩/০ (শাহনাজ ১১*, সুমিয়া ২৬*; শেজদা ৪.২-০-১৪-০, ইয়াসমিন ৪-০-১৮-০, শারমিন ২-০-৫-০, রিফাত ১-০-৫-০, পাপিয়া ২-০-৬-০)

ফল: গুলশান ইয়ুথ ক্লাব ১০ উইকেটে জয়ী

প্লেয়ার অব দা ম্যাচ: খাদিজা তুল কুবরা

৩৮ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরার পুরস্কার জেতেন মারুফা আক্তার। ছবি: বিসিবি

আবাহনী-বিকেএসপি

মারুফা আক্তার ও রাবেয়া খানের দারুণ বোলিংয়ের পর ব্যাটারদের নৈপুণ্যে আবাহনী লিমিটেডের বিপক্ষে দারুণ জয় পেয়েছে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি)।

বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে দলটির জয় ৩ উইকেটে। আবাহনীর ১৪৩ রান ৪১ বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় তারা।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারে ১ রানে ২ উইকেট হারায় আবাহনী। সেই ধাক্কা সেভাবে আর সামলে উঠতে পারেনি তারা। নিয়মিত উইকেট হারিয়ে দেড়শর আগেই অল আউট হয়ে যায় দলটি।

সাত নম্বরে নেমে ৪২ বলে ৫ চারে ৩৬ রান করেন অধিনায়ক জাহানারা আলম। আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান শারমিন সুলতানাও করেন ৩৬ রান। তার ৫৯ বলের ইনিংসে চার ৫টি।

১০ ওভারে ৩৮ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা মারুফা। ২৯ রানে ৩ উইকেট নেন রাবেয়া।

রান তাড়ায় ৪৩ রানের উদ্বোধনী জুটিতে সুর বেঁধে দেন ফাহমিদা ছোঁয়া ও ইভা। এ জুটি ভাঙার পর অবশ্য তারা উইকেট হারায় নিয়মিত। তবে স্নায়ুর চাপ সামলে ঠিকই জয়ের আনন্দে মাঠ ছাড়ে দলটি।

৪৮ বলে ৬ চারে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন ইভা। ৬৭ বলে ৩৫ রান করে ‘রিটায়ার্ড হার্ট ‘ হয়ে মাঠ ছাড়েন সুমাইয়া আক্তার। ২২ বলে ১৫ রানের ইনিংসে দলের জয় নিয়ে ফেরেন অধিনায়ক দিশা বিশ্বাস।

আবাহনীর হয়ে ফাহিমা খাতুন নেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট। জাহানারার প্রাপ্তি ২টি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

আবাহনী লিমিটেড: ৪৫.৫ ওভারে ১৪৩ (শারমিন ৩৬, ইশমা ০, মন্টি ০, জিনাত ১২, তাজ ৩০, জাহানারা ৩৬, আশা ০, হ্যাপি ১২, সাবিকুন ২, লাবণ্য ১*; মারুফা ১০-০-৩৮-৪, ফাহমিদা ৬-০-২০-০, নিশিতা ৬-২-১৯-০, রাবেয়া ১০-৩-২৯-৩, দিপা ৮-০-২৩-১, আশরাফি ৩-০-৯-০, দিশা ২.৫-০-৫-০)

বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: ৪৩.১ ওভারে ১৪৭/৭ (ফাহমিদা ১০, ইভা ৩৬, উন্নতি ১২, সুমাইয়া ৩৫ রিটায়ার্ড হার্ট, জান্নাতুল ফেরদৌস ১৭, রাবেয়া ০, দিশা ১৫*, আশরাফি ৪, মারুফা ৬, দিপা ০*; সাবিকুন ১০-৩-২০-০, ফাহিমা ৮-০-২৮-৩, হ্যাপি ৪-০-১৮-০, লাবণ্য ৭.১-২-২৭-১, জাহানারা ৮-০-৩২-২, আশা ৬-২-১৬-১)

ফল: বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ৩ উইকেটে জয়ী

প্লেয়ার অব দা ম্যাচ: মারুফা আক্তার