বাঁশখালী-কর্ণফুলীতে মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর

শারদীয় দুর্গোৎসবের মধ্যে চট্টগ্রামের বাঁশখালী ও কর্ণফুলী উপজেলায় পূজা মণ্ডপে প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।

বাঁশখালী উপজেলার চাম্বল ইউনিয়নের পশ্চিম চাম্বল জেলে পাড়া এলাকার বুড়া কালী মন্দির মণ্ডপে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হামলা হয় বলে পুলিশ ও স্থানীয়রা জানিয়েছে।

উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ডা. আশীষ শীল বলছেন, কুমিল্লায় কুরআন শরিফ অবমাননার কথিত অভিযোগের রেশ ধরে বাঁশখালীর চাম্বল এলাকায় হওয়া মিছিল থেকে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে।

“পশ্চিম চাম্বল বুড়া কালী মন্দিরে একটি মিছিল থেকে হামলা হয়েছে। এসময় দুর্গা প্রতিমা লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। এতে সরস্বতী, কার্তিক ও গনেশ মূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।” 

মণ্ডপের বেশ কয়েকজনও আহত হন বলে দাবি করেন তিনি। 

এ বিষয়ে চাম্বল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুজিবুল হক চৌধুরী বলেন, “মিছিল থেকে কয়েকটি পাথর মেরেছে। তবে তেমন কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।”

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুজ্জামান চৌধুরী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “পশ্চিম চাম্বল এলাকায় একটি পূজা মণ্ডপে হামলার ঘটনা ঘটেছে। তবে কারা, কেন এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা এখনও জানা যায়নি।”

চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কুমিল্লার ঘটনার জেরে এক দল লোক সন্ধ্যার পর মিছিল বের করে মণ্ডপটিতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। সাথে সাথে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।”

পূজামণ্ডপ এবং আশেপাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে এবং পূজার কাজ ‘স্বাভাবিকভাবে হচ্ছে’ বলে জানান পুলিশ সুপার।

রাত পৌনে ৯টার দিকে কর্ণফুলী উপজেলার জুরধা ইউনিয়নের শাহমিরপুর এলাকার সনাতন পাড়ায় হামলায় মণ্ডপের তিনটি প্রতিমা ভাঙচুর হয়।

কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীনা সুলতানা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সনাতন পাড়ায় হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে দুর্গাপূজোর কয়েকটি প্রতিমা ভাঙচুর হয়েছে।

এর বাইরে বেশি তিনি বলতে রাজি হননি। 

কর্ণফুলী থানার ওসি দুলাল মাহমুদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, কুমিল্লার ঘটনার জেরে কিছু লোক সনাতন পাড়া পূজো মণ্ডপে হামলা করেছে। এতে তিনটি প্রতিমা ভাঙচুর হয়েছে।

বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

স্থানীয়রা জানায়, জুলধা ইউনিয়নের সনাতনপাড়ায় জুরধা-শাহমিরপুর সার্বজনীন পূজা উদযাপন পরিষদের মণ্ডপে ৩০-৩৫ জনের একদল লোক এসে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে হামলা চালায়। এতে তিনটি মূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।