দেশে চালের দাম একটু বেশি হলেও ‘অস্থিরতা’ নেই: কৃষিমন্ত্রী

বাংলাদেশে দাম একটু বেশি হলেও চাল নিয়ে অস্থিরতা নেই বলে মনে করছেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক।

সরকার সরবরাহ বাড়ানো এবং বাজার তদারকির মাধ্যমে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছে বলে এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন তিনি।

বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২১ উদযাপন উপলক্ষে রাজধানী ঢাকার ফার্মগেটে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলনে কথা বলছিলেন কৃষিমন্ত্রী।

এসময় তিনি গত মৌসুমে দেশে খাদ্যশস্যের উৎপাদন পরিস্থিতি তুলে ধরার পাশাপাশি চাল ও পেঁয়াজের দামবৃদ্ধি নিয়েও কথা বলেন।

গত মৌসুমে বিভিন্ন দেশে খাদ্য উৎপাদন কমলেও বাংলাদেশে উৎপাদন বেড়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

তিনি জানান, পেঁয়াজে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে এক বছরেই তার মন্ত্রণালয় ৭ লাখ টন উৎপাদন বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। এবছর ৩৩ লাখ টন পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে।

চালের দামের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা প্রসঙ্গে কৃষিমন্ত্রী বলেন, চালের দাম বা খাদ্য দ্রব্যের মূল্যটা আন্তর্জাতিক বিষয়। সব সময় ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটের সাথে রিলেটেড। বাংলাদেশে চালের দাম একটু বেশি হলেও চাল নিয়ে অস্থিরতা নেই।

“যদি ডিমান্ড গ্যাপ বেশি হয় এবং সাপ্লাই যদি কম হয়, দাম কিছুটা বাড়বেই। এটা হাজারো চেষ্টা করেও.....। তারপরও আমরা চেষ্টা করি সাপ্লাই বাড়ানোর মাধ্যমে, মনিটরিং বাড়ানোর মাধ্যমে বাজারকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য।“

ফাইল ছবি

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ২০২০-২১ অর্থবছরে রেকর্ড দুই কোটি টনেরও বেশি বোরো উৎপাদন হয়েছে, যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। গত বছরের তুলনায় এ বছর সব ফসলের উৎপাদনই বেড়েছে।

মোট চালের উৎপাদন হয়েছে ৩ কোটি ৮৬ লাখ টন, গম ১২ লাখ টন, ভুট্টা প্রায় ৫৭ লাখ টন, আলু ১ কোটি ৬ লাখ টন, শাকসবজি ১ কোটি ৯৭ লাখ টন, তেল ফসল ১২ লাখ টন ও ডাল ফসল ৯ লাখ টন।

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, “অনেক দেশ খাদ্য সংকটে পড়লেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এবং আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সব দুর্যোগ মোকাবিলা করে দেশের খাদ্য উৎপাদনের চলমান ধারা অব্যাহত রাখতে পেরেছি। ভবিষ্যতেও রাখতে পারব- এ আশা করি।“

খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী কৃষি মন্ত্রণালয় কাজ করছে জানিয়ে তিনি বলেন, ”ফলে করোনাকালেও দেশে খাদ্য উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রয়েছে ও তা আরও বেড়েছে।“

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, শনিবার কৃষি মন্ত্রণালয় ও জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) এর যৌথ উদ্যোগে অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও পালিত হবে ‘বিশ্ব খাদ্য দিবস-২০২১।

দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য হল- ‘আমাদের কর্মই আমাদের ভবিষ্যৎ- ভালো উৎপাদনে ভালো পুষ্টি, আর ভালো পরিবেশেই উন্নত জীবন’।

শনিবার দিবসের প্রথমভাগে সকালে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে প্রতিপাদ্যের উপর একটি আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ স্মরণীয় করে রাখার জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম গ্রহণ করেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

শুল্ক কমলেও দাম কমেনি চালের

আমদানির চাল বাজারে ছাড়ার সময় বাড়ল

চালের দাম আরও কমাতে ব্যবস্থা চায় সংসদীয় কমিটি

এর অংশ হিসেবে এ সেমিনারে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) প্রকাশিত ‘হানড্রেড ইয়ার্স অব এগ্রিকালচারাল ডেভেলপমেন্ট ইন বাংলাদেশ’ (বাংলাদেশে ১০০ বছরের কৃষি উন্নয়ন) শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) উদ্ভাবিত ‘বঙ্গবন্ধু ধান ১০০’ অবমুক্ত করবেন।

এছাড়া, প্রধানমন্ত্রী ‘বঙ্গবন্ধু ধান ১০০’ দিয়ে নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি উন্মোচন করবেন।

‘বাংলাদেশে ১০০ বছরের কৃষি উন্নয়ন’ বইটিতে ১৯২১ সাল থেকে আজকের বাংলাদেশ পর্যন্ত ধারাবাহিক কৃষি বিষয়ক উন্নয়নে গবেষণা, সম্প্রসারণ, শিক্ষা ইত্যাদির প্রচেষ্টা ও ফল বর্ণনা করা হয়েছে এবং এই ধরনের বই বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম।

বঙ্গবন্ধু ধান ১০০ বোরো মৌসুমের উচ্চ জিংকসমৃদ্ধ ধানের জাত। এতে জিংকের পরিমাণ ২৫.৭ মিলিগ্রাম/কেজি, যা জিংকের অভাব পূরণে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।

অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে আন্তর্জাতিক সেমিনারের পর বিকালে খাদ্য নিরাপত্তার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় করণীয় নিয়ে একটি কারিগরি সেশন অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন কৃষিমন্ত্রী। দেশ- বিদেশের কৃষি ও খাদ্য বিষয়ে প্রথিতযশা বিশেষজ্ঞরা এতে অংশ নেবেন।

এছাড়া দিবসটি উদযাপনে জনসচেতনতা বাড়াতে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।