এডিপি: তিন মাসে খরচ ৮.২৬%, স্বাস্থ্যে মাত্র ২.৩%

কোভিড-১৯ মহামারীর প্রকোপ কমলেও বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) বরাদ্দ অর্থ ব্যয়ে এখনও গতি আসেনি।

দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়নে যত অর্থ বরাদ্দ আছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন তার মাত্র ৮ দশমিক ২৬ শতাংশ ব্যয় করতে পেরেছে সরকার।

এর মধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আইন ও বিচার বিভাগ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের জন্য তাদের বরাদ্দের এক টাকাও ব্যয় করতে পারেনি।

আর করোনাভাইরাস মোকাবেলার বিশেষ পরিস্থিতির মধ্যে স্বাস্থ্য রক্ষার দায়িত্ব যার হাতে, সেই মন্ত্রণালয় তার বরাদ্দের মাত্র ২ দশমিক ৩ শতাংশ ব্যয় করতে পেরেছে।

২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য সরকার এডিপির জন্য ২ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এই বরাদ্দের মধ্য থেকে জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে ব্যয় হয়েছে ১৯ হাজার ৫৬০ কোটি টাকা বা মোট এডিপির ৮ দশমিক ২৬ শতাংশ।

অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকের হিসেবে খুব বেশি অগ্রগতি না হলেও এই ব্যয় চার অর্থবছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। এর আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে ব্যয় হয় ৮ দশমিক ২৫ শতাংশ।

তারপর ২০১৯-২০ এবং মহামারীর মধ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে এডিপির ৮ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ ব্যয় হয়।

গত ২০২০-২১ পুরো অর্থবছরে মোট বরাদ্দের ৮২ শতাংশ এবং তার আগের অর্থবছরে ৮০ শতাংশ ব্যয় হয়।

পুরো এডিপি বাস্তবায়নে সরকারের সক্ষমতা না থাকলেও দুই অর্থবছরে মহামারীর কারণে মোট এডিপি ব্যয় অনেক কম ছিল। তার আগের অর্থবছরে (২০১৮-১৯) মোট বরাদ্দের প্রায় ৯৫ শতাংশ ব্যয় হয়।

গত ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) এডিপির ১৭ হাজার ৩০১ কোটি টাকা, তার আগের অর্থবছরের একই সময়ে ১৭ হাজার ৩৪৩ কোটি টাকা ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরের একই ১৪ হাজার ৯২৭ কোটি টাকা ব্যয় হয়।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন ও পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা তাদের বরাদ্দের ১ শতাংশেরও কম ব্যয় করতে পেরেছে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন তদারকি প্রতিষ্ঠান আইএমইডি সচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাস কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের উচ্চ প্রভাবের মধ্যেও এবারের প্রথম প্রান্তিকে গত চার অর্থবছরের তুলনায় বাস্তবায়ন সামান্য হলেও বেশি হয়েছে।”

প্রধানমন্ত্রীও পরিকল্পনামন্ত্রীর প্রত্যক্ষ নজরদারিতে এডিপি বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়গুলোকে চিঠি দিয়ে তাগাদা দেওয়ার কারণে কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে তিনি মনে করেন।

আইএমইডির সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, সর্বোচ্চ বরাদ্দ পাওয়া ১৫টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মধ্যে প্রথম প্রান্তিকে সবচেয়ে বেশি প্রায় ২০ শতাংশ অর্থ ব্যয় করেছে শিল্প মন্ত্রণালয়।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ প্রায় ১৩ শতাংশ অর্থ ব্যয় করেছে রেলপথ মন্ত্রণালয় এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ প্রায় ১১ শতাংশ বরাদ্দ ব্যয় করতে পেরেছে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়।

তবে সর্বোচ্চ বরাদ্দপ্রাপ্ত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় প্রায় ১০ শতাংশ বরাদ্দ ব্যয় করেছে।

বরাদ্দের দিক দিয়ে বড় মন্ত্রণালয়ের মধ্যে মাত্র ২ দশমিক ৩৩ শতাংশ বাস্তবায়ন করে সবচেয়ে পিছিয়ে রয়েছে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ।

নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন মাত্র ৩ দশমিক ৫১ শতাংশ, বিজ্ঞান প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় মাত্র ৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ, বেসরকারি বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয় মাত্র ৫ দশমিক ৯২ শতাংশ এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ব্যয় করেছে মাত্র ৫ দমমিক ৯৪ শতাংশ বরাদ্দ।

আরও পড়ুন

কোভিড: এখনও অর্ধেকের বেশি জেলায় নেই আইসিইউ  

খুলনার হাসপাতালে কোভিড রোগী বাড়ছে, চলছে আইসিইউ সংকট  

ফরিদপুর মেডিকেলে আইসিইউর চিকিৎসকের পদ শূন্য

গাইবান্ধায় বাড়ছে রোগী, নেই আইসিইউ