থর’য়ের পরের ছবিতে ম্যাট ডেইমন

অস্ট্রেলিয়াতে ম্যাট ডেইমনের সঙ্গে ক্রিস প্র্যাট। ছবি: ম্যাট ডেইমনের ইন্সটাগ্রাম থেকে।
‘থর: লাভ অ্যান্ড থান্ডার’ ছবির কাজের জন্য অস্ট্রেলিয়াতে পরিবার-সহ থিতু হলেন ম্যাট ডেইমন।

মার্ভেল স্টুডিও’র সুপার হিরো ছবির ধারাবাহিকতায় ‘থর: লাভ অ্যান্ড থান্ডার’ দেখার জন্য ভক্তরা নিশ্চিই মুখিয়ে আছেন। আর সেই ছবিতে প্রধান চরিত্রে থাকা ক্রিস হেমসওর্থসহ, ক্রিশ্চিয়ান বেইলকে দেখার পরও যদি আশ না মেটে তবে ‘জেসন বর্ন’ খ্যাত ম্যাট ডেইমন দেবে বাড়তি পাওনা।

কারণ ‘থর: লাভ অ্যান্ড থান্ডার’ ছবিতে আবারও দেখা যাবে ম্যাট ডেইমনকে। আবারও বলার কারণ হল, এর আগে ‘থর: র‌্যাগনারক’ ছবিতেও এই মার্কিন অভিনেতাকে বিশেষ একটি চরিত্রে অতিথি শিল্পী হিসেবে দেখা গিয়েছিল।

বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, পরিবার-সহ ম্যাট ডেইমন এরই মধ্যে ছবির কাজের জন্য অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে অবতরণ করেছেন। আপাতত রয়েছেন ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে। তার সঙ্গে আরও আছেন ক্রিস প্র্যাট, ডেভ বাতিস্তা, টেসা থম্পসন।

এছাড়া অভিনেত্রী নাটালি পোর্টম্যান, যিনি থর’য়ের প্রেমিকা জেন ফস্টার’য়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন আগের ছবিগুলোতে, তিনি গত সেপ্টেম্বর মাস থেকেই অস্ট্রেলিয়াতে আছেন।

আর ক্রিস হেমসওর্থের বাড়ি-ই অস্ট্রেলিয়াতে, উত্তর সিডনির সমুদ্র-শহর বাইরন বে’তে থাকেন তিনি।

অস্ট্রেলিয়ার স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে ডেইমন বলেন, “আগামী কয়েক মাসের জন্য অস্ট্রেলিয়াকে আমি ও আমার পরিবার ঘর হিসেবে মনে করে দারুণ আনন্দ লাগছে। অস্ট্রেলিয়ার কলাকুশলীরা তাদের পেশাদারিত্বের জন্য সারা বিশ্বে সমাদৃত। তাদের সঙ্গে কাজ করার যে আনন্দ, সেখানে এই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন কিছুই না।”

মার্ভেল সিনেম্যাটিক ইউনিভার্সের চতুর্থ পর্যায়ের ছবিগুলোর মধ্যে ‘থর: লাভ অ্যান্ড থান্ডার’ অন্যতম। ‘থর: র‌্যাগনারক’ খ্যাত পরিচালক টাইকা ওয়াইটিটি পরিচালিত ছবিটি মুক্তির তারিখ ঠিক হয়ে আছে ২০২২ সালের ৬মে।

এই লটের অন্যান্য ছবির মধ্যে আছে ‘ব্ল্যাক উইডো’, ‘শ্যাং চি অ্যান্ড দি লেজেন্ড অফ দি টেন রিংস’, ‘ইটার্নাল্স’, স্পাইডার-ম্যান ছবির তৃতীয় পর্ব এবং ‘ডক্টর স্ট্রেইঞ্জ ইন দ্য মাল্টিভার্স অফ ম্যাডনেস’।