গুলশানের ক্লাবে ভাংচুরের অভিযোগ পরীমনির বিরুদ্ধে

এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ করে আলোচনায় থাকা চিত্রনায়িকা পরীমনির বিরুদ্ধে গুলশানের একটি ক্লাবে ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে।

ঢাকা বোট ক্লাবের ঘটনার আগের দিন ৭ জুন মধ্যরাতে গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে পরীমনি ‘গ্লাস ও অ্যাসট্রে ভেঙ্গেছেন’ বলে অভিযোগ এই ক্লাবের সভাপতি কে এম আলমগীর ইকবালের।

তার ভাষ্য, “চিত্রনায়িকার আচরণ গ্রহণযোগ্য না হওয়ায় ক্লাব থেকে চলে যেতে বলা হলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ভাংচুর করেন।”

এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পরীমনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ইস্যু ঘোরানোর জন্য আমার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তোলা হয়েছে। আমার বিরুদ্ধে কোনো জিডিই হয়নি। আমাকে নিয়ে চক্রান্ত চলছে।“

অল কমিউনিটি ক্লাব কর্তৃপক্ষ ওই সময় জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ ফোন করে পুলিশের সহায়তা চাইলেও পরে আনুষ্ঠানিকভাবে গুলশান থানায় কোনো অভিযোগ বা সাধারণ ডায়েরি করেনি।

পরীমনিও পরে কোনো অভিযোগ করেননি বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানান।

গুলশানে নিজের বাড়িতে সংবাদ সম্মেলনে চিত্রনায়িকা পরীমনি। তাতে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ করেন তিনি। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভি

গুলশান বিভাগের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে হাঙ্গামা হচ্ছে, এমন খবর জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ থেকে গুলশান থানা পুলিশের কাছে আসে।

“টহল পুলিশ ওই রাতে ওই ক্লাবে গিয়ে জানতে পারে পরীমনির সাথে ক্লাব কর্তৃপক্ষের হাঙ্গামা হয়। ভাংচুরের ঘটনাও ঘটে। পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।”

কেউ থানায় কোনো অভিযোগ না করায় পুলিশ এই বিষয়ে আর কোনো কাজ করেনি।

জানতে চাইলে অল কমিউনিটি ক্লাবের সভাপতি কে এম আলমগীর ইকবাল আরও বলেন, “তিনি ১৫টি গ্লাস, ৯টি অ্যাশ ট্রে ছুড়ে ভেঙেছেন।”

তিনি বলেন, “পুলিশ এলে দেখেন, তারাই (পরীমনি ও তার সঙ্গীরা) ক্ষিপ্ত হয়ে ভাঙচুর করেছেন। পুলিশ এলে তারা শান্ত হয়ে চলে যান।”

এই ঘটনায় কোনো জিডি করা হয়নি এবং করার পরিকল্পনাও নেই বলে যোগ করেন তিনি।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের এই সময়ের জনপ্রিয় নায়িকা পরীমনি গত ৮ জুন ঢাকা বোট ক্লাবে গিয়ে ‘নির্যাতনের’ শিকার হয়েছেন বলে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন।

আবাসন খাতের ব্যবসায়ী ও বোট ক্লাবের এই প্রতিষ্ঠাতা সদস্যের বিরুদ্ধে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনেন পরীমনি।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে মঙ্গলবার পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে বেরিয়ে আসছেন চিত্রনায়িকা পরীমনি। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

ঘটনার চারদিন পর শনিবার রাতে প্রথমে ফেইসবুকে এবং পরে বনানীতে নিজের বাসায় সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরেন তিনি।

ঘটনার রাতে তিনি বনানী থানায় গিয়েও পুলিশের সহায়তা পাননি বলে অভিযোগ করেছিলেন।

এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনার মধ্যে পরীমনি সাভার থানায় সোমবার নাসির ও তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ ছয়জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

ওই দিনই আসামীদের রাজধানীর উত্তরা থেকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

মামলার এজাহারে এই চিত্রনায়িকা অভিযোগ করেন, পূর্ব পরিচিত অমি ৮ জুন রাতে তাকে ‘পরিকল্পিতভাবে’ বর্তমান বাসা থেকে বোট ক্লাবে নিয়ে যান এবং সেখানে নাসির তাকে ‘ধর্ষণের চেষ্টা’ করেন।

“ওই রাতে সঙ্গীয়দের সহায়তায় ধর্ষকের হাত থেকে প্রায় অচেতন অবস্থায় রক্ষা পান।”

পরীমনি অভিযোগের সময় পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ করলেও আসামিদের গ্রেপ্তারের পর এই বাহিনীকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন, বলেছেন, “পুলিশ বন্ধুসুলভ আচরণ করেছে।“

আরও পড়ুন

বোট ক্লাব: পৌনে দু’ঘণ্টা পর ধরাধরি করে বের করতে হয় পরীমনিকে  

বোট ক্লাবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি সংসদে  

পুলিশ ‘ম্যাজিকের মত’ কাজ করেছে: পরীমনি  

নাসির ‘ভালো লোক’: সংসদে বললেন জাপা এমপি চুন্নু  

নাসির ও অমি মাদক মামলায় ৭ দিন রিমান্ডে  

বোট ক্লাব: সেই রাতের ঘটনা বললেন পরীমনির কস্টিউম ডিজাইনার জিমি  

পরীমনির অভিযোগ: যা বললেন ঢাকা বোট ক্লাবের কর্মকর্তা  

ধর্ষণচেষ্টা: পরীমনির অভিযোগ এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে  

ধর্ষণচেষ্টা: পরীমনির মামলায় ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদ গ্রেপ্তার