‘বিশেষ শিশুদের’ জন্য নিশো ও মেহজাবীনের অঙ্গীকার

ছবি: ‘ঘটনা সত্য’ নাটকের দৃশ্যে আফরান নিশো ও মেহজাবীন চৌধুরী।
‘ঘটনা সত্য’ নাটকে বিশেষ শিশুদের নিয়ে ‘অবৈজ্ঞানিক বার্তা’ প্রচারের অভিযোগ ওঠার পর তুমুল বিতর্কের মধ্যে সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে আজীবন বিশেষ শিশুদের কল্যাণে কাজ করে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন টিভি নাটকের হালের জুটি আফরান নিশো ও মেহজাবীন চৌধুরী।

প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সেন্ট্রাল মিউজিক অ্যান্ড ভিডিওর (সিএমভি) প্রযোজনায় মঈনুল সানুর চিত্রনাট্যে নাটকটি নির্মাণ করেন তরুণ নির্মাতা রুবেল হাসান। আফরান নিশো ও মেহজাবীন চৌধুরী তাতে প্রধান দুই চরিত্রে অভিনয় করেন।

চ্যানেল আইয়ের ঈদুল আজহার আয়োজনে নাটকটি প্রচারের পর শনিবার সিএমভির ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করা হয়। নাটকটি দেখে প্রতিবন্ধী শিশুদের নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংগঠন, অভিভাবক ও দর্শকদের মধ্য থেকে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হয়। অভিযোগ ওঠে, এ নাটকে প্রতিবন্ধী শিশুদের নিয়ে ‘অবৈজ্ঞানিক বার্তা’ দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগের মুখে রোববার নাটকটি ইউটিউব থেকে সরিয়ে নিয়েছে সিএমভি।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বুধবার নাটকের প্রযোজক, পরিচালক ও অভিনয়শিল্পীদের নিয়ে ছোটপর্দার ১৫ সংগঠনের মোর্চা ফেডারেশন অব টেলিভিশন প্রফেশনালস অর্গানাইজেশনের (এফটিপিও) বৈঠকের পর নিশো ও মেহজাবীন তাদের ফেইসবুক থেকে আলাদা পোস্টে বলেন, ভুল থেকে তারা শিক্ষা নিয়েছেন।

নিশো লিখেছেন, “আমি দুঃখিত, লজ্জিত, বিব্রত এবং অনুতপ্ত। আশা করছি, ভবিষ্যতে সামাজিক যে কোনো বিষয়ে আমি, আমরা আরো অনেক বেশি সংবেদনশীল থাকবো।

‘দায়িত্বহীন’ কাজ হয়েছে, ‘ঘটনা সত্য’ নাটক নিয়ে এফটিপিও  

সমালোচনার মুখে ‘ঘটনা সত্য’ সরিয়ে নিয়েছে সিএমভি  

প্রযোজক-পরিচালককে দুষছে শিল্পী সংঘ, নিশো-মেহজাবীনের পক্ষে সাফাই  

“বিশেষ শিশুদের প্রতি আমার বিশ্বাস, ভালোবাসা বরাবরই ছিল। এক ভুলে তা শেষ হয়ে যেতে দিবো না। আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, বিশেষ শিশুদের কল্যাণে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাবো।”

মেহজাবীন লিখেছেন, “বিশেষ শিশুর বাবা-মায়েদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, বিশেষ শিশুদের কল্যাণে আজীবন সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাবো। কারণ বিশেষ শিশুরা আমাদের সমাজ ও রাষ্ট্রের সম্পদ। তারা আগামী দিনের ভবিষ্যত।

“বিশেষ শিশু এবং তাদের বাবা-মায়ের সম্মানে আঘাত দেয়ার মত গর্হিত কোনো কাজে জ্ঞাত বা অজ্ঞাতভাবে আমি আর কখনোই কোনো ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা করবো না। বরং তাদের কল্যাণে আজীবন কাজ করার ব্যাপারে অঙ্গীকারবদ্ধ হচ্ছি।”

এর আগে ফেডারেশন অব টেলিভিশন প্রফেশনালস অর্গানাইজেশনের (এফটিপিও) চেয়ারম্যান অভিনেতা-নাট্যকার-পরিচালক মামুনুর রশীদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এটি খুব দায়িত্বহীন কাজ হয়েছে। নাট্যকাররা না জেনে-শুনেই স্বাস্থ্য সম্পর্কিত, মেডিকেলের বিষয়টিকে যে এভাবে তুলে ধরেছে তা ঘোরতর অন্যায়।”

ডিরেক্টরস গিল্ড, অভিনয় শিল্পী সংঘও এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে।

বুধবারের বৈঠকের পর এফটিপিওর তরফ থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নাটকটি কোনোভাবেই আর ইউটিউবসহ অন্য কোনো মাধ্যমে প্রচার করা যাবে না বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেই সঙ্গে ১৫ সংগঠনের সদস্যদের বাইরে কাউকে নিয়ে কাজ করা যাবে না।

শিল্পী, নির্মাতাদের জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা মেনে কাজ করার তাগিদ দেওয়ার হয়েছে বৈঠকে।