ঢাকার পশুর হাটে কোভিড পরীক্ষায় দুই দিনে ৬ রোগী শনাক্ত

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নয়টি কোরবানির পশুর হাটে দুই দিনে ৯২ জনের অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করে ছয়জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহায়তায় এবং উত্তর সিটির পরিচালনায় এই নয় হাটে ‘সুরক্ষা কর্নার’ বসিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতাদের অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করছেন ব্র্যাকের কর্মীরা।

ব্র্যাকের স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যা কর্মসূচির ব্যবস্থাপক ডা. মিরানা জামান জানান, শনিবার ৫৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছিল। রোববার বিকাল ৫টা পর্যন্ত ৩৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় আরও ৪ জনের কোভিড ধরা পড়ে।

রোববার থেকে ঈদের আগের দিন মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলবে।

ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে যাদের করোনাভাইরাসের উপসর্গ, যেমন- জ্বর, সর্দি, কাশি, গলাব্যথা ও শ্বাসকষ্ট রয়েছে, বা কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে এসেছেন, এমন ব্যক্তিরা নমুনা জমা দিতে পারবেন।

এ পরীক্ষার জন্য সরকার নির্ধারিত হারে ১০০ টাকা ফি দিতে হবে। তবে আগে থেকে রেজিস্ট্রেশনের প্রয়োজন পড়বে না। ফলাফল পজিটিভ হলে তা ৩০ মিনিটের মধ্যে জানিয়ে দেওয়া হবে এবং ৩-৪ ঘণ্টার মধ্যে ওয়েবসাইটে আপলোড করা হবে।  প্রতিটি সুরক্ষা কর্নারে প্রতিদিন দেড়শ নমুনা পরীক্ষা সম্ভব হবে।

যুক্তরাজ্য সরকারের ফরেইন, কমনওয়েলথ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অফিস (এফসিডিও) এই কার্যক্রমে সহায়তা করছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম রোববার ভাটারার সাঈদনগর হাটে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

তিনি বলেন, “মহামারীর এই সঙ্কটকালে ব্র্যাকের এই উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। আমরা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকেও এভাবে যার যার সাধ্যমত এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।”

বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিং (আফতাবনগর) ই ব্লকে সেকশন-৩–এর খালি জায়গা, কাওলা শিয়ালডাঙ্গা সংলগ্ন খালি জায়গা, উত্তরখান মৈনারটেক শহীদ নগর হাউজিং (আবাসিক) প্রকল্পের খালি জায়গা, উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টর এলাকায় অবস্থিত বৃন্দাবন থেকে উত্তর দিকে বিজিএমইএ পর্যন্ত খালি জায়গা, ভাটারা (সাইদনগর) অস্থায়ী পশুর হাট; মোহাম্মদপুরের বছিলায় ৪০ ফুট সড়কসংলগ্ন রাজধানী হাউজিং, স্বপ্নধরা হাউজিং-বছিলা গার্ডেন সিটির খালি জায়গা, ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের আওতাধীন ৩০০ ফুট সড়কসংলগ্ন উত্তর পাশেরসালাম স্টিল লিমিটেড-যমুনা হাউজিং কোম্পানি- ব্যক্তিমালিকানাধীন খালি জায়গা এবং মিরপুরের গাবতলী পশুর হাটে চলছে এই অ্যান্টিজেন পরীক্ষা।

দেশে বর্তমানে আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতেই করোনাভাইরাসের বেশিরভাগ নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে ফল পেতে অন্তত ২৪ ঘণ্টা কিংবা তার বেশি সময় লাগে।

অ্যান্টিজেন টেস্টে নমুনা পরীক্ষায় সময় লাগবে সর্বোচ্চ ৩০ মিনিট, যা সরকারের চলমান করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ কার্যক্রমকে আরও গতিশীল করবে বলে আশা করছে ব্র্যাক।

ব্র্যাকের স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যা কর্মসূচির পরিচালক মোর্শেদা চৌধুরী বলেন, “ব্যাপক জনসমাগমের কারণে কোরবানির পশুর হাট করোনাভাইরাস সংক্রমণের জন্য উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ। এই ঝুঁকির মাত্রা কমাতেই ব্র্যাক ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে একযোগে কাজ করছে।”

অ্যান্টিজেন পরীক্ষার মাধ্যমে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শনাক্ত করা গেলে হাটে আসা অন্যদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।