ফাইজারের কোভিড টিকায় শিশুদের ঝুঁকির চেয়ে উপকার অনেক বেশি: এফডিএ

পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের শরীরে ফাইজার-বায়োএনটেকের কোভিড ১৯ টিকা প্রয়োগের সম্ভাব্য যে উপকার হবে, তার তুলনায় হৃদযন্ত্রে প্রদাহের বিরল ঘটনাকে তেমন গুরুত্ব দিচ্ছেন না যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের (এফডিএ) বিজ্ঞানীরা।

এই বয়সশ্রেণির শিশুদের মধ্যে টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের ৯০ দশমিক ৭ শতাংশ কার্যকারিতা মিলেছে বলে শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানিটি দাবি করার পরদিন তাতে এফডিএর সমর্থনের এখবর দিল রয়টার্স।

এখন পাঁচ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের এই টিকা ব্যবহারে ব্যবহারের অনুমোদন এফডিএ দেবে কিনা মঙ্গলবার সংস্থাটির বাইরের বিশেষজ্ঞরা ভোটাভুটির মাধ্যমে তা ঠিক করবেন।

অনুমোদন পেলে এই বয়স শ্রেণির জন্য এটাই হবে এফডিএ অনুমোদিত প্রথম টিকা, যা নভেম্বরের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে পাওয়া যেতে পারে।

ফাইজার/বায়োএনটেক ও মডার্না- উভয়ের তৈরি টিকার প্রয়োগের সঙ্গে বিশেষত শিশু-কিশোরদের মধ্যে মায়োকার্ডাইটিস নামে হৃদযন্ত্র প্রদাহের কিছু ‘বিরল’ ঘটনার সম্পৃক্তা মিলেছে।

এফডিএর কর্মকর্তারা বলছেন, বেশিরভাগ প্রয়োগ বিশ্লেষণ করে এই বয়সশ্রেণির মধ্যে মায়োকার্ডাইটিসের ঘটনা ১২ থেকে ১৫ বছর বয়স শ্রেণির মতোই হবে ধরে নিয়ে বলা যায় হৃদযন্ত্রের এই প্রদাহের কারণে হাসপাতালে যাওয়ার যত ঘটনা ঘটেছে, তার চেয়ে বহুগুণ বেশি কোভিডে হাসপাতালে যাওয়া ঠেকানো গেছে।

তবে এফডিএর কাছে জমা দেওয়া নথিতে ফাইজার বলেছে, ৫ থেকে ১১ বছর বয়সীদের মধ্যে মায়োকার্ডাইটিসের ঝুঁকি কম থাকবে। কারণ ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সীদের চেয়ে তাদের নিম্নতর ডোজ দেওয়া হয়েছিল।

ওষুধ কোম্পানিটি বলছে, তাদের টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগে প্লাসিবো (স্বান্ত্বনা ওষুধ) পাওয়া ১৬ জন শিশু কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়, যেখানে টিকা পাওয়াদের মধ্যে মাত্র তিন জন আক্রান্ত হয়।

কোভিড: শিশুদেহে ফাইজারের টিকার ‘কার্যকারিতা ৯০.৭%’  

দুই হাজার ২৬৮ অংশগ্রহণকারীকে নিয়ে পরিচালিত এই পরীক্ষায় যত সংখ্যক শিশুকে প্লাসিবো দেওয়া হয়েছিল, তার দ্বিগুণের বেশি শিশুকে কোভিড-১৯ টিকা দেওয়া হয়েছিল। সে হিসেবে এটার কার্যকারিতা ৯০ শতাংশের বেশি হয়।

৫ থেকে ১১ বছর বয়সীদের নিয়ে ফাইজারের এই পরীক্ষায় ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকারিতা পরিমাপ করা উদ্দেশ্য ছিল না। বরং মূল্য উদ্দেশ্য ছিল শিশু ও বয়স্কদের শরীরে টিকার প্রভাবে অকার্যকর হওয়া অ্যান্টিবডির পরিমাণের তুলনা করা।

ওই ফলাফলের ভিত্তিতে গত মাসে ফাইজার ও বায়োএনটেক বলেছিল, তাদের কোভিড-১৯ টিকার ফলে শিশুদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিরোধক্ষমতা তৈরি হয়।

নিরাপত্তা ডেটা উন্নয়নের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল বিস্তৃত করে আওতাধীন শিশুর সংখ্যা দ্বিগুণের বেশি বাড়ানোর হয়েছিল বলে শুক্রবার দাবি করেছে ফাইজার।

নথি অনুযায়ী, পরে যুক্ত হওয়া ওইসব শিশুদের বিরূপ প্রতিক্রিয়া পর্যালেচনা করে টিকার নিরাপত্তার জন্য উদ্বেগজনক কিছু মেলেনি। এই বয়স শ্রেণির ক্ষেত্রে নিরাপত্তার বিভিন্ন দিকের সঙ্গে সাধারণত ১৬ থেকে ২৫ বছর বয়সীরা তুলনাযোগ্য।

দ্বিতীয় দলের শিশুদের কিছুটা কম সময়ের জন্য পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। তাদের সবাই দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছিলেন এবং যাদের ৭০ শতাংশের বেশি দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পর দুই সপ্তাহ পেরিয়ে গিয়েছিল।

বিশেষত শিশু-কিশোরদের আক্রান্ত হতে দেখা যায় মায়োকার্ডাইটিস নামে হৃদযন্ত্র প্রদাহের সঙ্গে ফাইজার/বায়োএনটেক ও মডার্নার টিকার ‘বিরল’ সংশ্লিষ্টতা মিলেছে।

১৬ বছর ও তদূর্ধ্ব বয়সীদের জন্য গত অগাস্টে এফডিএর পূর্ণ অনুমতিসহ ফাইজার/বায়োএনটেকের টিকা এর মধ্যে অন্তত ১২ বছর বয়সীদের জন্য জরুরি ব্যবহারের অনুমতি পেয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ১৯ কোটি মানুষ সম্পূর্ণ টিকার আওতায় এসেছে, যার ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী এক কোটি ১০ লাখ মানুষ ফাইজারের টিকা পেয়েছে।

৫ থেকে ১২ বছর বয়সী শিশুদের জন্য এই টিকার জরুরি ব্যবহারের অনুমতি এফডিএ যদি ফাইজারকে দেয়, তাহলে প্রয়োগ পদ্ধতি ঠিক করতে ২ ও ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের (সিডিসি) উপদেষ্টারা বৈঠকে মিলিত হবেন।

বেশিরভাগ রাজ্য টিকা দেওয়া শুরুর আগে প্রয়োগ পদ্ধতি নিয়ে সিডিসি সুপারিশের অপেক্ষায় থাকে।