সিওপিডি প্রতিরোধে সতর্ক থাকার পরামর্শ

বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ শ্বাসতন্ত্রের দীর্ঘমেয়াদী প্রদাহজনিত রোগ- সিওপিডি প্রতিরোধে সচেষ্ট ও সতর্ক থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে এক সেমিনারে।

এজন্য এ রোগ সম্পর্কে ভালোভাবে জানার তাগিদও দেওয়া হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এ সেমিনারে।

বিশ্ব সিওপিডি দিবস উপলক্ষে বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগ এ সেমিনারের আয়োজন করে। এদিন বিশ্বব্যাপী সিওপিডি দিবস পালন করা হয়।

শ্বাসতন্ত্রের দীর্ঘমেয়াদী প্রদাহজনিত রোগ হলো সিওপিডি। এটি অসংক্রামক রোগগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রধান। বর্তমানে বিশ্বে মৃত্যুর প্রধান অন্য রোগগুলোর মধ্যে রয়েছে হৃদযন্ত্রজনিত রোগ, ক্যান্সার, স্ট্রোক, স্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ ইত্যাদি।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএসএমএমইউর রেসপিরেটরি মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান।

তিনি বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে বিভিন্ন বিষাক্ত ও ক্ষতিকারক উপাদান শ্বাসতন্ত্রে প্রবেশের ফলে শ্বাসনালী ও ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং আক্রান্ত স্থানে প্রদাহ তৈরি হয়।

এছাড়া আক্রান্ত ফুসফুসের ছোট ছোট বায়ু কুঠুরিগুলো নিষ্ক্রিয় হয়ে যায় অথবা শ্বাসনালীর অংশগুলোর আবরণের ধরণ পরিবর্তিত হয়ে বাড়তি মিউকাস নিঃসরণ করে এবং সিলিয়া বা প্রক্ষেপকযুক্ত আবরণীয় সংখ্যা কমে যায়।

“এর ফলে দীর্ঘমেয়াদি কাশি, কফ নিঃসরণ ও শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি সমস্যাগুলো ধীরে ধীরে প্রছন্ন হয়ে উঠতে থাকে। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে সমস্যাগুলো প্রকট আকার ধারণ করে এবং এক সময় এমন অবস্থায় এসে পৌঁছায় যে তখন রোগী নিজের দৈনন্দিন কাজকর্ম করতেও শ্বাসকষ্টে ভোগেন।”

এ রোগের কারণে একইসঙ্গে হৃদরোগ, মাংসপেশির দুর্বলতা, ওজন হ্রাস, বিষণ্ণতা, ফুসফুসের ক্যান্সার ইত্যাদি নানান ধরনের সিওপিডিজনিত সমস্যাও বাড়তে থাকে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ডা. আতিকুর বলেন, ধূমপান না করা, কলকারখানা ধোঁয়াসহ সকল ধরনের ধোঁয়া থেকে দূরে থাকা, তামাক চাষ বন্ধ করা এবং তামাক জাতীয় দ্রব্য বিক্রি নিষিদ্ধ করার মাধ্যমে সিওপিডি রোগ থেকে বাঁচা সম্ভব।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএসএমএমইউর উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, “করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার কমলেও এ ভাইরাস এখনও বিশ্বব্যাপী বিদ্যমান। বর্তমানে বিশ্ব সিওপিডি দিবস পালন অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

“মুখে মাস্ক অবশ্যই পড়তে হবে। ধূমপান পরিহার ও দুষণমুক্ত পরিবেশ গড়ে তোলার মাধ্যমে সিওপিডি রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।”

সেমিনারে উপ উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. মো. নজরুল ইসলাম খান, পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আবু নাসার রিজভী বক্তব্য রাখেন।

এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন, রেজিস্ট্রার, প্রক্টর, বিভাগীয় চেয়ারম্যান, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।