পাহাড়ে বাবার খামারে মেয়ের অনলাইন ক্লাস

করোনাভাইরাস মহামারীতে স্কুল বন্ধ থাকায় পাহাড়ে বাবার খামারে টেবিল-চেয়ার পেতে অনলাইন ক্লাস করছে ১০ বছরের এক স্কুলছাত্রী। এমনই একটি ছবি ২০২১ সালের ‘আলোচিত ছবি’ হিসেবে উঠে এসেছে বিশ্ব গণমাধ্যমগুলোতে।

করোনাভাইরাসের প্রকোপে গত বছরের মার্চে ইতালির উত্তরের প্রদেশ ত্রেনতিনোকে ‘রেড জোন’ ঘোষণা করে স্থানীয় প্রশাসন। বিধিনিষেধের কারণে বন্ধ হয়ে যায় স্কুলগুলো, ঘরে বসে অনলাইনে পাঠ নেয় লাখ লাখ শিশু।

ইতালির সংবাদ সংস্থা এএনএসএ জানায়, ওই প্রদেশের মেজোলোম্বারডো শহরে একটি স্কুলের চতুর্থ গ্রেডের ছাত্রী ফিয়ামাত্তা (১০)। এক হাজার মিটার উঁচু ভ্যাল ডি সোল নামে পাহাড়ে বাবার ছাগলের খামারের ভেতর টেবিল-চেয়ার পেতে অনলাইন ক্লাস করে সে।  দুর্গম অঞ্চলে থেকেও শিক্ষক ও সহপাঠীদের সঙ্গে সংযুক্ত থেকে পড়াশোনা চালু রাখার এ চেষ্টা নজর কেড়েছে অনেকের। 

পাহাড়ের ওপর তার শ্রেণিকক্ষটি যেন বন্য চারণভূমিতে পরিণত হয়েছে। ৩৫০টি ছাগলের একটি পাল চড়ে বেড়ায় সেখানে। ফিয়ামাত্তার বাবা ম্যাসিমিলিয়ানো এগুলো লালন-পালন করেন এবং পনির ও রিকোটা বেচে জীবিকা নির্বাহ করেন।

ফিয়ামাত্তার মা পেশায় একজন সামাজিক স্বাস্থ্যকর্মী। তিনি জানান, মেয়েকে তিনি তার কর্মস্থলে নিয়ে যেতে পারেন না। তাই সে বাবার খামারে থেকেই পড়াশোনা করে।

এএনএসএ-কে তিনি বলেন, “ফিয়ামাত্তা পড়াশোনায় খুব ভাল, পাহাড়ের পরিবেশ তাকে সব প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়তে শেখাচ্ছে। মোবাইল ফোনের হটস্পট দিয়ে সে অনলাইন ক্লাস করে, আর ভাগ্যক্রমে ভ্যাল ডি সোল উপত্যকায় ইন্টারনেট সংযোগ ভাল।”

পড়াশোনার পাশাপাশি ফিয়ামেত্তা তার বাবাকে পশু দেখাশোনা করতে সাহায্য করে। তার বাবা বলেন, “শ্রেণিকক্ষ ও পশুপালন দুটি খুব আলাদা শেখার সরঞ্জাম, তবে উভয়ই একটি শিশুর বিকাশের জন্য খুব দরকারি।”