ত্বকের দাগ-ছোপ দূর করার খাবার

খেয়ে কিংবা মেখে ত্বকের কালচে ভাব দূর করতে পারেন বিভিন্ন খাবার দিয়ে।

শুষ্ক, রুক্ষ বা দাগছোপ যুক্ত ত্বকে উজ্জ্বলভাব আনতে ব্যবহার করা যায় নানান ধরনের খাবার।

রূপচর্চা-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে ত্বক সুন্দর ও দাগহীন রাখতে উপকারী খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে জানানো হল।  

লেবু ও মধু: এক গ্লাস লেবুর পানিতে এক চা-চামচ মধু মিশিয়ে পান করলে প্রাকৃতিকভাবে শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান দূর হয়। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ভিটামিন সি প্রাকৃতিক উপায়ে ত্বকের ‘কোলাজেন’ বাড়াতে সহায়তা করে।

নিয়মিত এই পানীয় পান ও ত্বকে ব্যবহার করলে প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বলভাব আনে। দাগ ছোপ দূর করতে সাহায্য করে। মধুতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও লেবুর সিট্রিক উপাদান একসঙ্গে ব্লিচিংয়ের কাজ করে যা ত্বকের দাগছোপ ও রংয়ের ভারসাম্যহীনতা দূর করে।

অ্যালো ভেরার রস: অ্যালো ভেরা প্রাকৃতিকভাবেই ভিটামিন এ, বি, সি এবং ই সমৃদ্ধ। যা ত্বক ও স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। অ্যালো ভেরাতে ৯০ শতাংশ অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে। এছাড়াও ত্বক মসৃণ রাখার উপযোগী উপাদান সমৃদ্ধ, যা খাওয়া ও ত্বকে ব্যবহার করা দুই ক্ষেত্রেই উপকারী। 

নিয়মিত ত্বকে অ্যালো ভেরা ব্যবহার দাগ ও রংয়ের ভারসাম্যহীনতা কমায়। ত্বকের দাগ কমাতে অ্যালো ভেরার রস ‘স্লিপিং মাস্ক’ হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

যষ্টিমধু: এক কাপ যষ্টিমধুর চা পান অথবা এর মাস্ক ব্যবহার করা ত্বককে উজ্জ্বল করে। দাগছোপ কমায়। এতে আছে ‘গ্লাব্রিডিন’ নামক যৌগ যা ত্বকের যত্নে ও উজ্জ্বলতা রক্ষায় কার্যকর ভূমিকা রাখে। ত্বকে কালচে ও পোড়াভাব সৃষ্টি করার অন্যতম ‘এনজাইম’ ‘টাইরোসিনেইজ’ প্রতিহত করতে সাহায্য করে যষ্টিমধু।

পেঁপে: উপকারী ‘এনজাইম’ ও খনিজ উপাদান সমৃদ্ধ। নিয়মিত পেঁপে খাওয়া ও ত্বকে ব্যবহার করা দাগছোপ এবং বিবর্ণভাব দূর করতে সহায়তা করে। এছাড়াও ত্বকে আনে প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা।

পেঁপে মিহি করে বেটে মধু মিশিয়ে ২০ মিনিট ত্বকে মেখে রাখুন। এরপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার ত্বক নিঁখুত হয়ে।

কাঁচা আলু: কাঁচা আলুর রস বা টুকরা দাগাক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করা হলে দ্রুত তা দূর হয়। এছাড়াও রোদে পোড়াভাব ও ছুলি দূর করতে ভূমিকা রাখে আলুর রস। এতে থাকা ভিটামিন সি, পটাশিয়াম ও উজ্জ্বলতা রক্ষাকারী অন্যান্য উপাদান ত্বকের দাগ দূর করতে ও পোড়াভাব কমাতে সহায়ক ভূমিকা রাখে।

সহজেই আলুর প্যাক তৈরি করা যায়। আলু কুচি করে কেটে লেবু অথবা দই মিশিয়ে মুখে ব্যবহার করতে পারেন।

গ্রিন টি: গরম এক কাপ গ্রিন টি নিয়মিত পান করা ত্বক সুস্থ ও সুন্দর করতে সাহায্য করে। গ্রিন টি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ‘ক্যাটেচিন’ সমৃদ্ধ। মধু ও চিনির সঙ্গে গ্রিন টি মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করে মুখের ত্বক স্ক্রাব করতে পারেন। যা প্রাকৃতিকভাবে উজ্জ্বলতা বাড়ানোর পাশাপাশি ত্বক আর্দ্র রাখতে ও কোমলভাব আনতে সহায়তা করে।

টমেটো: ত্বকের দাগছোপ কমাতে টমেটো চমৎকার কাজ করে। সালাদ ও সুপ হিসেবে গ্রহণ করার পাশাপাশি  টমেটোর রস বা টুকরা করে কেটে দাগ আক্রান্ত স্থানে ব্যবহারে উপকার মেলে।

টমেটোর রস ও ময়দা একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে ১৫ মিনিট পরে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটা ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় ও দাগছোপ কমায়।

আরও পড়ুন

অ্যালো ভেরা দিয়ে রূপচর্চা  

বয়সের ছাপ দূর করার উপাদান  

দাগ কমাতে বেইকিং সোডা