বাততিয়াপাড়া: চিম্বুকের কোলে সবচেয়ে বড় ম্রো গ্রাম

চিম্বুক পাহাড়ের পাদদেশে বাততিয়াপাড়া গ্রামকে স্থানীয়রা বলেন বাইট্যা পাড়া। বাততিয়া ম্রো নামের একজন কারবারির (পাড়ার প্রধান) নামেই এ গ্রামের নামকরণ।
পার্বত্য শহর বান্দরবান থেকে প্রায় ত্রিশ কিলোমিটার দূরে চিম্বুক পাহাড়ের কোলে ম্রো সম্প্রদায়ের একটি গ্রাম বাততিয়াপাড়া। সদর উপজেলার টংকাবতি ইউনিয়নের এ গ্রামটিই ম্রো সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় বসতি।
বাসিন্দাদের ভাষ্য, পাহাড়ের কোলে সবুজে ঘেরা এ ম্রো গ্রামের বয়স দুইশ বছরের বেশি। বর্তমানে এ পাড়ায় আশিটি পরিবারের বসবাস।
বাততিয়াপাড়ার মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে পাহাড়ি ঝিরি 'তুই হির'। ম্রো ভাষায় একটি বৃক্ষের নামেই এ ঝিরি বা খালের নামকরণ।
শুকনো মৌসুমে কমে গেলেও সারা বছরই পানির প্রবাহ থাকে ‘তুই হির’ খালে। এর উজানে রয়েছে প্রাকৃতিক পাথরের বিপুল ভাণ্ডার। তবে পাড়াবাসীর সচেতনতায় ‘পাথরখেকোদের’ হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে এই ঝিরি।
বাততিয়াপাড়ায় ম্রো সম্প্রদায়ের সব ঘরই বাঁশ ও কাঠের তৈরি। ঘরগুলো বানানো হয়েছে বাঁশ ও কাঠের মাচার উপরে।
ম্রো সম্প্রদায়ের ঘরগুলোতে একটি করে ছোট জানালাও থাকে।
বাততিয়াপাড়ার এই ম্রো বাড়িতে চলছে ‘বন্ধ’। অশুভ শক্তির হাত থেকে রক্ষা পেতে এবং প্রিয়জনদের মঙ্গল কামনায় এই ‘বন্ধ’ পালন করা হয় ।
ম্রোদের ‘বন্ধ’ হয় তিন দিন থেকে এক সপ্তাহ পর্যন্ত। এ সময়ে কেউ ঘরের বাইরে বের হন না। নিকট আত্মীয় ও প্রতিবেশীরাও ঘরে ঢোকার সুযোগ পান না।