রূপচর্চায় যেসব প্রাকৃতিক উপাদান ক্ষতিকর

প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে রূপচর্চা করা ভালো হলেও কিছু ক্ষেত্রে উল্টো ফল হতে পারে।

মধু বা লেবুর রস রূপচর্চায় বহুল ব্যবহৃত প্রাকৃতিক উপাদান হলেও সব ক্ষেত্রে এসব ব্যবহার ঠিক না।

ওয়েল অ্যান্ড গুড ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনা নিবাসি ভারতীয় বংশদ্ভূত চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মুনিব শাহ প্রচলিত কিছু সৌন্দর্য চর্চার উপকরণ সম্পর্কে জানান যা ত্বকের জন্য কার্যকর নয়।  

বাদ দিতে হবে- ব্রণের ওপর মধু ব্যবহার

করণীয়- বেঞ্জয়েল পারক্সাইড ব্যবহার

ব্যাক্টেরিয়া রোধী উপাদান থাকলেও মধুর কার্যক্ষমতা ব্রণের ক্ষেত্রে সীমিত। অতিরিক্ত ব্যবহারে এর কার্যক্ষমতা হ্রাস পায়।

তাই ব্রণ নিরাময়ে বিশেষজ্ঞরা বেঞ্জয়েল পারঅক্সাইড ব্যবহারের পরামর্শ দেন। মধু ত্বকের ক্ষত নিরাময় করে এবং বেঞ্জয়েল পারক্সাইড ত্বরকের ব্রণ সারাতে ক্লিনিক্যালি প্রথম সারিতে অবস্থান করে।

তাই মধুর বদলে বেঞ্জয়েল পারক্সাইড ব্যবহার করাই কার্যকর।

বাদ দিতে হবে- দাগ কমাতে লেবুর রস ব্যবহার করবেন না

করণীয়- ট্রিটিনয়েন, হাইড্রোকুইনন এবং অ্যাজেল্যাইক অ্যাসিড ব্যবহার

দাগ কমাতে ভিটামিন সি কার্যকর বলে অনেকেই ভিটামিন সি সমৃদ্ধ লেবু ব্যবহার করেন।

তবে ডা. শাহ দাগের সমস্যা সমাধানে সিট্রাস ব্যবহার না করে ট্রিটিনয়েন, হাইড্রোকুইনন ও আজেল্যাইক অ্যাসিড ব্যবহারের পরামর্শ দেন।

ট্রিটিনয়েন শক্তিশালী রেটিনয়েড যা কোষের পূর্ণবিন্যাস বাড়ায়। ফলে মেলানিনের উৎপাদন বাঁধা প্রাপ্ত হয়ে ত্বক উজ্জ্বল হয়। হাইড্রোকুইনন আরেকটি উপাদান যা ত্বকে ব্লিচের কাজ করে। অ্যাজেল্যাইক অ্যাসিড ব্রণের কারণে হওয়া ত্বকের দাগছোপ কমাতে সহায়তা করে।

বাদ দিবে হবে- বলিরেখার জন্য পট্টি ব্যবহার

করণীয়- ট্রিটিনয়েন এবং এসপিএফ ব্যবহার

বলিরেখার ক্ষেত্রে ‘কার্যকর’ ফলাফল পেতে ট্রিটিনয়েন এবং এর কার্যকারিতা বাড়াতে সানস্ক্রিন ব্যবহার বড় সমাধান বলে জানান ডা. শাহ।

গবেষোণায় দেখা গেছে, নিয়মিত এসপিএফ ব্যবহার বলিরেখা ও বয়সের ছাপ কমায়। প্রতিদিন ব্যবহারে বয়সের ছাপ অনেকটাই হালকা হয়ে আসে।

আরও পড়ুন

ব্রণ দূর করার পাঁচটি ঘরোয়া উপায়  

ত্বক ও চুলের যত্নে অ্যালো ভেরা  

ত্বক থাকুক বলিরেখা মুক্ত