গরমে পেট ঠাণ্ডা রাখতে

আবহাওয়ার উত্তাপ প্রভাব ফেলে পরিপাক তন্ত্রে। ফলে দেখা দেয় নানান শারীরিক সমস্যা।

গরমকালে সাধারণত হজম জনিত সমস্যা বেশি দেখা দেয়। এছাড়াও পেট গরম হওয়া, পানি শূন্যতা, মাথা ঘোরানো, বমিভাব, গ্যাসের সমস্যা ইত্যাদি দেখা দিয়ে থাকে।

বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের ‘খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান’ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফারাহ মাসুদা গরমকালে পেট ঠাণ্ডা রাখার ক্ষেত্রে প্রথমেই যে পরামর্শ দেন তা হল, গরমে সুস্থ থাকতে নিজেকে আর্দ্র রাখা জরুরি।

তিনি বলেন, “পর্যাপ্ত পানি পান করা, তাজা ফলের রস, ডাবের পানি পান ইত্যাদি দেহের পানির ঘাটতি পূরণ করে।”

সুস্থ থাকতে দিনে কমপক্ষে দুই লিটার পানি পান করার পরামর্শ দেন তিনি।

দুপুরের কড়া রোদে ক্লান্তি কমাতে ব্যাগে সবসময় গ্লুকোজ ও স্যালাইনের প্যাকেট রাখা যেতে পারে। এতে দ্রুত দেহের ক্লান্তি দূর হয় এবং শক্তি যোগান দেয়।

গরমে পেট ভালো রাখতে মৌসুমি ফল খাওয়া উপকারী। বিশেষ করে ভিটামিন সি ধরনের ফল।

শস্য ও আঁশ ধরনের খাবার সবজি, ডাল, শাক ইত্যাদি খাওয়া হজম ক্রিয়া উন্নত করে এবং পেটের সমস্যা কমায়। তাছাড়া আঁশ ধরনের খাবার খাওয়া গরমকালে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও দূর করে।

গরমে রোগ মুক্ত থাকতে খাদ্যাভ্যাসের প্রতি মনোযোগ দেওয়ার পরামর্শ দেন এই পুষ্টিবিদ।

তেল, চর্বিযুক্ত খাবার দ্রুত পেট গরম করে ও হজমের সমস্যা ঘটায়। তাই এসব খাবার খেতে সচেতন হতে হবে।

তেল-চর্বি ধরনের খাবারের পাশাপাশি প্রক্রিয়াজাত খাবার, ভাজা খাবার, বেইক করে খাবার ও মিষ্টি ইত্যদি খাবারও বাদ দেওয়ার পরামর্শ দেন, ফারাহ মাসুদা।

তিনি বলেন, “মনে রাখতে হবে গরমে অতিরিক্ত চা বা কফি যতটা সম্ভব কম গ্রহণ করা যায় ততই ভালো। কারও যদি চা পান অভ্যস্যে দাঁড়িয়ে যায় তাহলে কড়া দুধ চায়ের পরিবর্তে মসলা ও ভেষজ চা পান করতে পারেন। এতে হজম স্বাস্থ্য ভালো থাকবে ও পেটের সমস্যা দূর হবে।”

বাইরে্র খাবার যতটা সম্ভব কম খাওয়া উচিত। আর একান্তই খাওয়ার প্রয়োজন হলে, কম তেলে রান্না করা হয়েছে অথবা সিদ্ধ করা খাবার বা সালাদ ধরনের খাবার বাছাই করতে হবে।

বাসায় রান্নার ক্ষেত্রেও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন, ফারাহ মাসুদা।

আরও পড়ুন

গরমে ত্বকের সুরক্ষায় বরফ  

গরমে নষ্ট হয় যেসব খাবার  

গরমে স্বস্তি দেবে সুস্বাদু পানীয় তবে ওজন বাড়াবে না  

হিমায়িত মাংস কক্ষ তাপমাত্রায় রাখার ঝুঁকি