দায়িত্বে থাকলে ‘অ্যাডজাস্ট’ করতে হয়: ওবায়দুল কাদের

ক্ষমতায় থাকলে কিছু ক্ষেত্রে ছাড় দিতে হয় বলে স্বীকার করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার সংসদে মহাসড়ক বিল পাসের প্রক্রিয়ার সময় বিরোধী সংসদ সদস্যের সমালোচনার জবাবে তার এই স্বীকারোক্তি আসে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, “পরিষ্কারভাবে একটি সত্য কথা বলতে চাই। এখানে অনেক সমস্যা আছে। যখন চেয়ারে বসবেন, অনেক কিছু মোকাবেলা করতে হয়। একটা চ্যালেঞ্জিং জব। এখানে আমরা কিছু কিছু বিষয় অ্যাডজাস্ট করি।”

মহাসড়ক বিলের জনমত যাচাই প্রস্তাবের পর সংসদ সদস্যদের বক্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে তিনি একথা বলেন।

জনমত যাচাইয়ের প্রস্তাবের উপর আলোচনায় বিএনপির রুমিন ফারহানা বলেছিলেন, সড়ক পরিবহন আইন পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের চাপে সংশোধন করে শাস্তি কমান হচ্ছে।

তিনি এই সংশোধনীর উদ্যোগকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতারণা বলেও মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

জবাব দিতে গিয়ে কাদের বলেন, “যেটা বলা হয়েছে তা মোটেও ঠিক নয়। আপনি আইনটির সংশোধিত রূপটি এখনও দেখেননি। এটা সংসদে আসেনি। ওয়েবসাইটে আছে। আইন শাখা এটা ইতোমধ্যে ভেটিং করেছে। তারপরও আমাদের ওয়েবসাইটে রেখেছি। মতামত নিচ্ছি।

“তিনজন মন্ত্রীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। তারা খুব সুন্দরভাবে দায়িত্ব পালন করেছে। স্টেকহোল্ডারদের সাথে আলোচনা করে একটি সংশোধিত রূপ দাঁড় করিয়েছে। আপনাদের আশ্বস্ত করতে চাই, এই আইনে সাজার শৈথিল্য বা কঠোরতা কোনোভাবেই শিথিল করা হয়নি। কোনো সাজা কমান হয়নি।”

শুধু ভাষাগত ও প্রতিশব্দের বিষয় এবং প্রতিবেশী অন্যান্য দেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আইনটি যুগোপযোগী করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, “এছাড়া অন্য কিছু এখানে নেই। এখানে সাজা কমিয়ে কাটছাঁট করে কারও সাথে প্রতারণা করিনি। জনবান্ধব শেখ হাসিনার সরকার জনগণের সাথে প্রতারণা করে না।”

সড়কে দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, “সড়কের দুর্ঘটনা বন্ধ শুধু সরকারের কাজ নয়। সকলের সহযোগিতা দরকার। সাধারণরা আইন মানলেও, আপনি ভিআইপি হয়ে রং সাইডে যেতে চান। সেখানে কি সড়কের শৃঙ্খলা থাকবে? মা শিশুকে কোলে নিয়ে হামাগুড়ি দিয়ে আইল্যান্ড ক্রস করছে। মোবাইল ফোন কানে দিয়ে কানে দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছে। দুর্ঘটনা হবে না? এজন্য কি শুধু চালকরা দায়ী?

“বেপরোয়া ড্রাইভিং অবশ্যই দায়ী, আমি সেটা অস্বীকার করছি না। কিন্তু আমরা জনগণ যারা রাস্তা ব্যবহার করি, তারা সচেতন নই। শধু চালক নয়, পথচারীরাও বেপরোয়া হয়ে যায়।”

গণপরিবহনে হাফ ভাড়া দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে সংসদে আলোচনায় সেই দাবি সমর্থন করেন বিএনপির রুমিন ফারহানা। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগ হামলা করেছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, “শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে বিআরটিসি বাসে হাফ ভাড়া চালু করা হয়েছে। এটা ১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হবে। এটা সারা দেশেই বিআরটিসি বাসের জন্য চালু হবে।

“বেসরকারি যে গণপরিবহন রয়েছে, তাদের উপর আমরা জোর করে চাপাতে পারি না। তারা তো সরকারের অধীনে না। সরকারের সঙ্গে হয়ত কাজ করে। বেসরকারি গণপরিবহনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত তাদের নেওয়া দরকার। সামাজিক দায়বদ্ধতা ও জনস্বার্থ বিবেচনায় তাদেরকে অনুরোধ করা হয়েছে।”

হাফ ভাড়া: দ্বিতীয় বৈঠকও নিষ্ফলা, বাস মালিকরা চান ভর্তুকি  

ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অভিযোগের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, “ছাত্রলীগ বিবৃতি দিয়ে ছাত্রদের হাফভাড়ার পক্ষে সমর্থন জানিয়েছে। যেখানে সাংগঠনিকভাবে তারা হাফ ভাড়ার পক্ষে সেখানে তারা হামলা কেন করতে যাবে? যিনি হামলার কথা বলেছেন, তাকে বলব তারা যে ছাত্রলীগ তা প্রমাণ করুন।”