তিলোত্তমাসহ ছাত্রলীগের ৩২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

সংঘর্ষের মধ্যে গত বৃহস্পতিবার মিছিলে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।
গত সপ্তাহে দুদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন হাই কোর্ট-দোয়েল চত্বর এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় এবার ছাত্রলীগের ৩২ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ছাত্রদলের এক নেতা।

রোববার ঢাকার হাকিম আদালতে করা এই মামলায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি তিলোত্তমা শিকদারকে আসামির তালিকায় শীর্ষে রাখা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ও ছাত্রদল নেতা মানসুরা আলমের করা এই মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে মারধর, হত্যা চেষ্টা, মোবাইল ও টাকা-পয়সা চুরির অভিযোগ আনা হয়েছে।

মহানগর হাকিম মো. শান্ত ইসলাম মল্লিক অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে শাহবাগ থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান বাদীপক্ষের আইনজীবী আবুল কালাম খান।

মামলায় ৩২ জনের নাম উল্লেখের পাশাপাশি অজ্ঞাতনামা আরও একশজনকে আসামি করা হয়েছে।

ছাত্রদল ও ছাত্রলীগের ওই সংঘর্ষের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের পর ছাত্রলীগের এক নেতা শাহবাগ থানায় একটি মামলা করেছিলেন ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে।

ঢাবিতে সংঘর্ষ: এবার ছাত্রদলের নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ নেতার মামলা  

থানায় সেই মামলার পাল্টায় এবার আদালতে মামলা করা হল ছাত্রদলের পক্ষ থেকে।

মানসুরের মামলায় আরও আসামি করা হয়েছে- ছাত্রলীগের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক আল আমিন রহমান, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সম্পাদক রাশেদ ফেরদৌস আকাশ, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন, সহ সম্পাদক আমানুল্লাহ আমান, পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শামীম পারভেজ, গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল্লাহ হিল বারী, উপ দপ্তর সম্পাদক মো. নাজির, উপ আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক শাহিন তালুকদার, উপ দপ্তর সম্পাদক খান মোহাম্মদ শিমুল, কর্মসূচি ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের নেতা অভিজ্ঞান দাস অন্তু, শামসুন নাহার হলের সভাপতি খাদিজা আক্তার উর্মি, ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক সামাদ আজাদ জুলফিকার, অমর একুশে হলের সভাপতি এনায়েত এইচ মনন, অমর একুশে হলের সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হোসেন সোহাগ, অমর একুশে হলের সহ সভাপতি রাকিব হোসেন, বিজয় একাত্তর হলের সাবেক সহ সভাপতি মজিবুল বাশার, ঢাবির সলিমুল্লাহ হলের কর্মী নাজিমুদ্দিন সাইমুন, ঢাবির শহিদুল্লাহ হলের সভাপতি শরীফ আহম্মেদ, চুয়েট ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সৈয়দ ইমাম বাকের, এফ রহমান হলের কর্মী আব্দুর রহিম, ছাত্রলীগের কর্মী মাহমুদ চৌধুরী, ঢাবি ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ, এস এম হলের কর্মী সায়েম, ঢাবির এফ রহমান হলের সভাপতি রিয়াজ, ঢাবির বঙ্গবন্ধু হলের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, ঢাবি ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি আব্দুল্লাহ আল ফারিয়াল, ঢাবির শহীদুল্লাহ হলের সাধারণ সম্পাদক মুনিম শাহরিয়ার, সূর্যসেন হল ছাত্রলীগের কর্মী নাহিদ সানি, জগন্নাথ হলের কর্মী ঐশিক শুভ্র, জগন্নাথ হলের কর্মী সৌরভ চক্রবর্তীকে।