জয়ের ধারায় শেখ জামাল

গোলের পর শেখ জামালের খেলোয়াড়রা।
গোছালো আক্রমণ থেকে দলকে এগিয়ে নিলেন ওমর জোবে। দ্বিতীয়ার্ধে একক প্রচেষ্টায় ব্যবধান দ্বিগুণ করলেন সলোমন কিং। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র শেষ দিকে ব্যবধান কমানো গোল পেলেও তাদের হারিয়ে প্রিমিয়ার লিগে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিল শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার ২-১ গোলে জিতেছে শেখ জামাল। চট্টগ্রাম আবাহনীকে একই ব্যবধানে হারিয়ে লিগে শুভসূচনা করেছিল ২০১৪-১৫ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নরা।

শুরুতে দুই পক্ষই ছিল সাবধানী। ৩২তম মিনিটে প্রথম ভালো আক্রমণ শানায় চলতি লিগে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। ক্যামেরুনের ফরোয়ার্ড ক্রিস্তিয়ান বেকামেঙ্গের ব্যাক ভলি দূরের পোস্ট দিয়ে বেরিয়ে যায়।

শেখ জামাল এগিয়ে যায় ৩৮তম মিনিটের গোছালো আক্রমণ থেকে। শাকিল আহমেদের আড়াআড়ি ক্রস ধরে সলোমন কিং বাড়ান জোবের উদ্দেশে। গাম্বিয়ার এই ফরোয়ার্ডের টোকায় বল পোস্টের ভেতরের কানায় লেগে জালে জড়ায়।

লিগের ২০১১-১২ মৌসুমের রানার্সআপ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের রক্ষণে চাপ ধরে রাখা শেখ জামাল গোলবঞ্চিত হয় ৫৬তম মিনিটে। ২৫ গজ দূর থেকে ভালিদজানোভ ওতাবেকের দূরপাল্লার শট ক্রসবারে লাগে।

চার মিনিট পর কিংয়ের একক প্রচেষ্টার গোলে দ্বিগুণ হয় ব্যবধান। ডান দিক দিয়ে আক্রমণে উঠে গাম্বিয়ার এই ফরোয়ার্ড দুই ডিফেন্ডারের ফাঁক দিয়ে নিখুঁত শটে জাল খুঁজে নেন।

৭২তম মিনিটে ডি-বক্সের একটু ওপরে ইউসুকে কাতোকে ফাউল করেন মনির হোসেন। কিন্তু ফ্রি কিক থেকে জাপানি মিডফিল্ডার পারেননি মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে ম্যাচে ফেরাতে। আট মিনিট পর কাতোর শট দূরের পোস্টে লেগে ফিরলে দলটির হতাশা আরও বাড়ে।

দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে মেহেদী হাসান রয়েল হেডে মুক্তিযোদ্ধা সংসদকে এনে দেন ব্যবধান কমানো একমাত্র গোলটি।

কুমিল্লার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে ২-১ গোলে হারায় সাইফ স্পোর্টিং।

দিনের আরেক ম্যাচে, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে নিক্সন গুইলের্মের একমাত্র গোলে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘকে হারায় চট্টগ্রাম আবাহনী।