রিয়াল-চেলসি সেমি-ফাইনাল তাহলে হচ্ছে?

প্রস্তাবিত ইউরোপিয়ান সুপার লিগের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার আগে-পরে দলগুলোকে কড়া বার্তা দিয়েছিল উয়েফা। ‘বিদ্রোহী’ লিগটির ভবিষ্যৎ চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে যাওয়ায় এখন সুর কিছুটা নরম হয়েছে উয়েফা সভাপতি আলেকসান্দের চেফেরিনের। কাটতে শুরু করেছে রিয়াল মাদ্রিদ ও চেলসির মধ্যে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমি-ফাইনাল মাঠে গড়ানোর নিয়ে তৈরি হওয়া জটিলতা।

রিয়াল, বার্সেলোনা, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, চেলসি, ইউভেন্তুসসহ ইউরোপের ১২ ধনী দল সুপার লিগের ঘোষণা দেয়। তাৎক্ষণিকভাবে কঠোর অবস্থান জানায় উয়েফাও। সুপার লিগে খেলা ফুটবলারদের জন্য জাতীয় দলের দরজা বন্ধ করে দেওয়া হবে, দলগুলোকে নিষিদ্ধ করা হবে অন্যান্য প্রতিযোগিতায়।

এমনকি এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ চার থেকে রিয়াল, চেলসি ও ম্যানচেস্টার সিটিকে নিষিদ্ধ করা হতে পারে বলে আভাস দিয়েছিলেন উয়েফা নির্বাহী কমিটির এক সদস্য।

এরই মধ্যে সুপার লিগ থেকে সরে দাঁড়িয়েছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ছয় দল। ইন্টার মিলান, আতলেতিকো মাদ্রিদও প্রতিযোগিতাটির সঙ্গে নেই। চলে যাওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনও না দিলেও ইউভেন্তুস সভাপতি বলেছেন, প্রতিযোগিতাটি মাঠে গড়ানোর তেমন সম্ভাবনা দেখছেন না তিনি।

সুপার লিগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও রিয়াল সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেসের দাবি অনুযায়ী এখনও জোটবদ্ধ আছে রিয়াল, বার্সেলোনা, ইউভেন্তুস ও এসি মিলান। কিন্তু এরই মধ্যে খবর এসেছে বার্সেলোনার এই প্রতিযোগিতায় খেলার ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে দলটির সদস্যদের উপর। চুক্তির শর্ত অনুযায়ী সদস্যরা অনুমতি না দিলে তারা খেলবে না এই বিদ্রোহী লিগে। সব মিলিয়ে ভেস্তে যেতে বসেছে সুপার লিগ।

চলতি মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সূচি অনুযায়ী আগামী মঙ্গলবার রিয়াল ও চেলসি এবং পরের দিন পিএসজি ও ম্যানচেস্টার সিটির সেমি-ফাইনালের প্রথম লেগে মুখোমুখি হওয়ার কথা। পিএসজি ছাড়া বাকি দলগুলো সুপার লিগের সঙ্গে জড়িত থাকায় ম্যাচগুলো নিয়েও জেগেছিল শঙ্কা। তবে স্লোভেনিয়ার টিভি ২৪ইউআরকে ম্যাচ দুটি হওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন উয়েফা সভাপতি।

“মূল বিষয় হলো, এই মৌসুম শুরু হয়েছে আগে। যদি আমরা সেমি-ফাইনালগুলো হতে না দেই, তাহলে ক্ষতিপূরণের জন্য সম্প্রচার প্রতিষ্ঠানগুলো আমাদের কাছে আসবে।”

“আগামী সপ্তাহে ম্যাচগুলো মাঠে না গড়ানোর সম্ভাবনা খুবই কম। কিন্তু আগামীতে বিষয়গুলো ভিন্ন হতে পারে।”

রিয়াল সভাপতি পেরেস সমালোচনা করে বলেছেন, তিনি চেফেরিনের মতো হতে চান না। পাল্টা জবাব দিতে গিয়ে উয়েফা প্রধান দিলেন, ইউরোপিয়ান ও বিশ্ব ফুটবলের মঙ্গলের জন্য কাজ করে যাওয়ার বার্তা।

“এটা (পেরেসের কথা) আমাকে এই দায়িত্বে থেকে যাওয়ার জন্য আরও অনুপ্রেরণা জোগাবে। তিনি এমন একজন সভাপতি চান, যে তার কথা শুনবে এবং তিনি যা ভাববেন, তাই করবে। ইউরোপিয়ান ও বিশ্ব ফুটবলের জন্য যা ভালো মনে করি, আমি সেটাই করি।”