রেকর্ড গড়ে রুলভের সোনা, অভিযোগ মারফির

টোকিওর সুইমিংপুলে আবারও আলো ছড়ালেন ইভজেনি রুলভ। রাশিয়ার এই সাঁতারুর পাশে আরেকবার ম্লান যুক্তরাষ্ট্রের রায়ান মারফি। টোকিও অলিম্পিকসে ছেলেদের ১০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকের পর এবার ২০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকেও সোনা জিতলেন রুলভ।

টোকিও অ্যাকুয়াটিকস সেন্টারে শুক্রবার ১ মিনিট ৫৩ দশমিক ২৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে সোনা জেতেন রুলভ।

২০১২ সালের লন্ডন অলিম্পিকে যুক্তরাষ্ট্রের টেলর ক্ল্যারির ১ মিনিট ৫৩ দশমিক ৪১ সেকেন্ড টাইমিংয়ের রেকর্ড ভেঙেছেন তিনি।

গত মঙ্গলবার ৫১ দশমিক ৯৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে ১০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে সোনা জিতেছিলেন রুলভ। ওই ইভেন্টে বিশ্বরেকর্ড ও অলিম্পিকের রেকর্ড গড়তে আর মাত্র দশমিক ১৪ সেকেন্ড আগে সাঁতার শেষ করার প্রয়োজন ছিল তার।

রুলভের চেয়ে দশমিক ৮৮ সেকেন্ড পেছনে থেকে ২০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে রুপা পান মারফি। ১ মিনিট ৫৪ দশমিক ৭২ সেকেন্ড টাইমিংয়ে ব্রোঞ্জ জেতেন গ্রেট ব্রিটেনের লুক গ্রিনব্যাংক।

তবে উচ্ছ্বাস-হতাশার আবহ ভিন্ন মোড় নেয় পরে। ২০১৬ রিও দে জেনেইরো অলিম্পিকসে এই ইভেন্টে জেতা মুকুট এবার হারিয়ে ফেলার পর মিক্সড জোনে এক সংবাদকর্মীর কাছে অভিযোগ করেন মারফি।

“বছরজুড়েই আমার জন্য এটা ভীষণ এক মানসিক পীড়ার ব্যাপার, যে লড়াইয়ে আমি সাঁতরাচ্ছি, তা সম্ভবত স্বচ্ছ নয় এবং আসলেই এটি তা।”

পরে অবশ্য সংবাদ সম্মেলনে রুলভকে অভিনন্দন জানান মারফি। অভিযোগ তোলার মানসিকতা নিয়ে মিক্সড জোনে ওই কথা বলেননি বলেও দাবি তার। তবে খানিকটা বিতর্ক ঠিকই উসকে দেন গত অলিম্পিকে তিনটি সোনা জয়ী এই সাঁতারু।

“বিষয়টি পরিষ্কার করা দরকার, আমি কখনই কোনো…. এখানে কোনো অভিযোগ করার ইচ্ছা আমার নেই। লুক ও ইভজেনিকে অভিনন্দন। তারা দুর্দান্ত সাঁতরেছে, দুজনই খুব মেধাবী সাঁতারু।”

“দিনশেষে …আমি বিশ্বাস করি, সাঁতারে এখনও এটার (ডোপ) উপস্থিতি ব্যাপক এবং এটাই সত্যি।”

সংবাদ সম্মেলনে নিজের অর্জন নিয়ে উচ্ছ্বাসের কথা বলবেন কী, রুলভকে বলতে হলো এই প্রসঙ্গ নিয়েই। ২৪ বছর বয়সী এই সাঁতারু বললেন নিজের প্রতি দায়বদ্ধতার কথা।

“আমি সবসময় ডোপ পরীক্ষা করাই…যদি কোনো কিছু নিয়ে থাকি, তাহলে নিজেকে ক্ষমা করতে পারব না। জানি না, এসবের কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানাতে হয়। কোনো কিছু নিয়েই অভিযুক্ত হইনি আমি।”