চাওয়া পূরণ হলেও সন্তুষ্ট নন আর্জেন্টিনা কোচ

সাত দিনের মধ্যে তিনটি বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ। নিশ্চিতভাবেই যা প্রবল চাপের, শারীরিক ধকল তো আছেই। মাঠের ফুটবলের পর আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনির কণ্ঠেও তাই ফুটে উঠল। কোনোরকম রাখঢাক না করে জানালেন, আঁটসাঁট সূচিতে খেলে ক্লান্ত ছিল তার দল।

মূল্যবান তিনটি পয়েন্ট পাওয়ায় সন্তুষ্ট তিনি। তবে মন মতো খেলতে না পারার খারাপ লাগাও আছে।

বুয়েনস আইরেসের মনুমেন্তাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ভোরে পেরুর বিপক্ষে ১-০ গোলে জিতেছে দুবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। প্রথমার্ধে একমাত্র গোলটি করেন লাউতারো মার্তিনেস।

বল দখল ও আক্রমণে এগিয়ে থাকলেও শেষ বাঁশির আগ পর্যন্ত অনিশ্চয়তায় ছিল আর্জেন্টিনা। পাল্টা আক্রমণে ভীতি ছড়ানো পেরু বেশ কয়েকবারই সমতা ফেরানোর কাছাকাছি যায়। ৬৫তম মিনিটে ইয়োশিমার ইয়োতুন পেনাল্টি মিস না করলে ম্যাচের ফল অন্যরকমও হতে পারতো।

তাই ম্যাচ শেষে কষ্টার্জিত এই জয়ের পর স্কালোনির কণ্ঠে ছিল স্বস্তির ছোঁয়া। ছিল আশানুরূপ পারফরম্যান্স করতে না পারার হতাশাও।

“আজ আমরা কিছুটা ক্লান্ত অনুভব করেছি। (এক আন্তর্জাতিক বিরতিতে) দক্ষিণ আমেরিকায় তিনটি ম্যাচ খেলা ক্লান্তিকর। তবে আমরা চেষ্টা করেছি এবং তিনটি পয়েন্ট পেয়েছি, যা আমরা চেয়েছিলাম।”

“দল খেলার গতি ধরে রাখতে পারেনি, অবশ্যই না। খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা ম্যাচ খেললাম এবং (চাওয়া অনুযায়ী) পারফর্ম করতে না পারায় মাঠে দুর্ভাবনা ছিল। আমার মনে হয় না, এই ফলে আর্জেন্টিনা সন্তুষ্ট। পেরু ভালো খেলেছে, তারা খুব কঠিন প্রতিপক্ষ। আমার মতে, ওই পেনাল্টির আগে ম্যাচ আমাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল।”

স্বস্তির এই জয়ে কাতার বিশ্বকাপের বাছাইয়ে লাতিন আমেরিকার পয়েন্ট টেবিলে দুইয়ে অবস্থান শক্ত করেছে আর্জেন্টিনা। ১১ ম্যাচে সাত জয় ও চার ড্রয়ে ২৫ পয়েন্ট তাদের।

দিনের আরেক ম্যাচে উরুগুয়েকে ৪-১ গোলে হারানো ব্রাজিল সমান ম্যাচে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে আছে শীর্ষে।

সমান ১২টি করে ম্যাচ খেলা একুয়েডর ১৭ পয়েন্ট নিয়ে তিনে ও কলম্বিয়া ১৬ পয়েন্ট নিয়ে আছে চার নম্বরে।

কলম্বিয়ার সমান ১৬ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে উরুগুয়ে।

এই অঞ্চলের বাছাইয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ চার দল সরাসরি ২০২২ বিশ্বকাপের টিকেট পাবে। পাঁচ নম্বর দলটি খেলবে আন্তঃমহাদেশীয় প্লে-অফ।