ভিনিসিউসের চমৎকার গোলে সেভিয়াকে হারাল রিয়াল

শীর্ষে ওঠার হাতছানিতে মাঠে নেমে শুরুতেই এগিয়ে গেল সেভিয়া। প্রথমার্ধেই ম্যাচে ফিরল রিয়াল মাদ্রিদ। বাকি সময়ে মিলছিল না আর জালের দেখা। শেষ দিকে দারুণ এক গোলে ব্যবধান গড়ে দিলেন ভিনিসিউস জুনিয়র। লা লিগার শীর্ষস্থান মজবুত করল কার্লো আনচেলত্তির দল।

সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে রোববার রাতে লিগ ম্যাচে ২-১ গোলে জিতেছে রিয়াল। রাফা মিরের গোলে সেভিয়া এগিয়ে যাওয়ার পর সমতা টানেন করিম বেনজেমা। পরে ভিনিসিউসের জয়সূচক ওই গোল।

বল দখলে দুই দলই ছিল প্রায় সমান-সমান। গোলের উদ্দেশে রিয়ালের ১৪ শটের চারটি ছিল লক্ষ্যে। আর সেভিয়ার ১১ শটের ছয়টি লক্ষ্যে ছিল।

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে শুরু থেকে জমে ওঠে লড়াই। নবম মিনিটে প্রথম সুযোগটা পায় রিয়াল। টনি ক্রুসের ক্রস ডান দিকে খুঁজে পায় দানি কারভাহালকে। তার পাসে বল পেয়ে বাইরে মারেন ভিনিসিউস।

দুই মিনিট পরই স্বাগতিকদের স্তব্ধ করে দিয়ে এগিয়ে যায় সেভিয়া। আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার মার্কোস আকুনার কর্নারে ১২ গজ দূর থেকে হেডে গোলটি করেন অরক্ষিত স্প্যানিশ স্ট্রাইকার রাফা।

একটু পর দারুণ নৈপুণ্যে ব্যবধান বাড়তে দেননি থিবো কোর্তোয়া। আলগা বল পেয়ে রাফার প্রচেষ্টা প্রথমে গোললাইন থেকে ফেরান ডাভিড আলাবা। ফিরতি বলে ওয়ান-অন-ওয়ানে রাফার শট পা দিয়ে ফেরান বেলজিয়ান গোলরক্ষক কোর্তোয়া।

২৮তম মিনিটে আরেকটি সুযোগ আসে ভিনিসিউসের সামনে। ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডের শটে তেমন জোর ছিল না, বল সহজেই ঠেকান সেভিয়ার গোলরক্ষক ইয়াসিন বোনো।

তিন মিনিট পর দুর্ভাগ্য বাঁধ সাধে সেভিয়ার সামনে। ডি-বক্সের বাইরে কাসেমিরোকে কাটিয়ে প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার লুকাস ওকাম্পোসের জোরালো শট ক্রসবারে লাগে।

৩২তম মিনিটে অনেকটা সৌভাগ্যসূচক গোলে সমতায় ফেরে রিয়াল। প্রায় ৩০ গজ দূর থেকে এদের মিলিতাওয়ের শটে তেমন বিপদ ছিল না। গোলরক্ষক বোনোর হাত ছুঁয়ে বল পোস্টে লেগে ফাঁকায় চলে যায়। ছুটে গিয়ে কাছ থেকে ফাঁকা জালে বল পাঠান বেনজেমা।

চলতি লা লিগার সর্বোচ্চ স্কোরারের গোল সংখ্যা বেড়ে হলো ১১টি, ১৩ ম্যাচে।

৩৮তম মিনিটে আলাবার চ্যালেঞ্জে ডি-বক্সে ওকাম্পোস পড়ে গেলে পেনাল্টির জোরালো আবেদন করেন সেভিয়ার খেলোয়াড়রা। তবে রেফারির সাড়া মেলেনি। বিরতির আগে ফেরলঁদ মঁদির পাস পেয়ে উড়িয়ে মেরে হতাশ করেন মার্কো আসেনসিও।

দ্বিতীয়ার্ধে খেলার গতি কমে আসে কিছুটা। এর মাঝেই ৫৮তম মিনিটে মাঝমাঠ থেকে কাসেমিরো দারুণ পাস বাড়ান আসেনসিওর উদ্দেশে। বল ধরে এগিয়ে গিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে স্প্যানিশ ফরোয়ার্ডের বাঁ পায়ের শট অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি।

৭০তম মিনিটে মাঝমাঠে আকুনার ভুলে আলগা বল পেয়ে এগিয়ে যান ভিনিসিউস। তবে উড়িয়ে মেরে হতাশ করেন তিনি। ৮৪তম মিনিটে ডি-বক্সে আলাবার দারুণ ভলি উড়ে যায় ক্রসবারের ওপর দিয়ে। 

ড্রয়ের পথেই এগোচ্ছিল ম্যাচ। নির্ধারিত সময়ের তিন মিনিট বাকি থাকতে বের্নাবেউয়ের দর্শকদের উচ্ছ্বাসে ভাসান ভিনিসিউস। বাম দিকে মিলিতাওয়ের ক্রস বুক দিয়ে নামিয়ে প্রতিপক্ষের দুই খেলোয়াড়ের বাধা এড়িয়ে এগিয়ে যান তিনি। এরপর জোরালো শটে ওপরের কোণা দিকে ঠিকানা খুঁজে নেন ২১ বছর বয়সী ফুটবলার।

এবারের লিগে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় সতীর্থ বেনজেমার পরেই আছেন ভিনিসিউস। ১৪ ম্যাচে তার গোল হলো ৯টি।

যোগ করা সময়ে সতীর্থের ক্রসে সেভিয়ার টমাস ডেলানির হেড অসাধারণ নৈপুণ্যে ফিরিয়ে তিন পয়েন্ট নিশ্চিত করেন কোর্তোয়া।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা দলের চেয়ে ৪ পয়েন্টে এগিয়ে গেল রিয়াল। ১৪ ম্যাচে ১০ জয় ও তিন ড্রয়ে তাদের পয়েন্ট হলো ৩৩।

দিনের আরেক ম্যাচে কাদিসকে ৪-১ গোলে হারানো আতলেতিকো মাদ্রিদ ২৯ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আছে। তাদের সমান পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে এস্পানিওলের কাছে ১-০ গোলে হারা রিয়াল সোসিয়েদাদ। ২৮ পয়েন্ট নিয়ে চারে সেভিয়া। এর মধ্যে সোসিয়েদাদ খেলেছে ১৫ ম্যাচ।

১৪ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে সাত নম্বরে আছে বার্সেলোনা।