চোটে ছিটকে গেলেন দীর্ঘদিন পর ফেরা হেমন্ত

প্রায় চার বছর পর জাতীয় দলের ক্যাম্পে ফিরেছিলেন হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস। জাতীয় দলে হারানো জায়গা ফিরে পাওয়ার জোরাল আশাবাদও জানিয়েছিলেন এই মিডফিল্ডার। কিন্তু চোটের থাবায় জাতীয় দলে ফেরার সম্ভাবনা দীর্ঘ হলো তার। এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের ক্যাম্প থেকেই ছিটকে গেলেন ২৬ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়।

একদিন বিরতি দিয়ে রোববার বসুন্ধরা কিংস অ্যারেনায় ফের অনুশীলন শুরু করেছে দল। আগামী ৮ জুন মালয়েশিয়ার কুয়ালা লামপুরে শুরু হবে এশিয়ান কাপের বাছাই। তার আগে ১ জুন ইন্দোনেশিয়ার বিপক্ষে তাদের মাঠে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে হাভিয়ের কাবরেরার দল।

চলতি ক্যাম্প থেকে এ পর্যন্ত ছিটকে গেলেন তিন জন। হেমন্তের আগে চোট পান গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেল। দেরি করে ক্যাম্পে আসায় বাদ পড়েন আবাহনী লিমিটেডের ফরোয়ার্ড নাবীব নেওয়াজ জীবন।

২০১৬ সালে ভুটানের বিপক্ষে জাতীয় দলের হয়ে সবশেষ খেলেছিলেন হেমন্ত। ২০১৮ সালে সবশেষ ছিলেন জাতীয় দলের ক্যাম্পে। লম্বা সময় পর ফিরে জানিয়েছিলেন আগের অবস্থান ফিরে পাওয়ার প্রত্যয়।

জাতীয় দলের টিম ম্যানেজার ইকবাল হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে নিশ্চিত করেছেন হেমন্তের ছিটকে যাওয়া।

“অনুশীলনের সময় সে ডান ঊরুতে চোট পেয়েছে। চোটের যে অবস্থা, তাতে অল্প সময়ের মধ্যে সেরে ওঠার সম্ভাবনা নেই। দুই-তিন সপ্তাহ লাগবে। হেমন্তের জায়গায় কোচ এখনও কাউকে নেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেননি, ফলে নতুন কাউকে ক্যাম্পে ডাকা হচ্ছে না।”

বাছাইয়ের দিনক্ষণ ঘনিয়ে আসছে। শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি সেরে নিচ্ছেন খেলোয়াড়রাও। সাইফ স্পোর্টিংয়ের সেন্টার ব্যাক রিয়াদুল হাসান রাফিও জানালেন রক্ষণ সামলানোর কৌশলের পাশাপাশি বিল্ড-আপ ফুটবল আয়ত্তের চেষ্টা করছেন তারা। চোটের কারণে দলের বাইরে থাকা অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার তপু বর্মনের অনুপস্থিতি পূরণের চ্যালেঞ্জও নিচ্ছেন তারা।

“আমরা এই ক’দিন হাই ইন্টেসিটি নিয়ে অনুশীলন করছি। বিল্ড-আপ ফুটবল নিয়ে কাজ করছি। নিচ থেকে কিভাবে আক্রমণে ওঠা যায়। যেহেতু প্রতিপক্ষ আমাদের থেকে এগিয়ে, তাই আমরা চাই আমাদের পজিশনে কিভাবে বল রাখা যায়। একেক কোচ একেকরকম খেলাবে এটা আমাদের খেলোয়াড় হিসেবে মেনে নিতে হবে। এখন বল কিভাবে আমাদের দখলে রাখা যায় সেটা নিয়েই কাজ করা হচ্ছে।”

“একজন খেলোয়াড় হিসেবে চাই নিজের জায়গা দখলে রাখতে। এখন তপু ভাই ইনজুরিতে আছে, তবে সেটা না ভেবে আমরা কিভাবে দলকে সাপোর্ট দিতে পারব, তার জায়গা পূরণ করতে পারব, সেটা নিয়েই ভাবছি।”