একদিন উত্থানের পর বড় দরপতন পুঁজিবাজারে

দুই মাসের বেশি সময় পর সূচকে উল্লম্ফন নিয়ে পুঁজিবার চালু হওয়ার পরদিনই বড় দরপতন হয়েছে।

সপ্তাহের ‍দ্বিতীয় দিন সোমবার দেশের দুই পুঁজিবাজারে সূচক কমলেও লেনদেন বেড়েছে।

প্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ৬০ দশমিক ৯৫ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৫০ শতাংশ কমে ৩ হাজার ৯৯৯ দশমিক ৪৯ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

ডিএসইতে ১৯৭ কোটি ৭৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগেরদিন ছিল ১৪৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ১২৭ দশমিক ৮৯ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১১ হাজার ৩৪১ পয়েন্টে, যা আগের দিনের তুলনায় ১ দশমিক ১২ শতাংশ কম।

সিএসইতে ৫৫ কোটি ৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিন ছিল ৫১ কোটি ৭৩ লাখ টাকা বেশি।

ডিএসইর অন্য দুই সূচকের মধ্যে সোমবার ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ২১ দশমিক ৬৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৯২৯ পয়েন্টে। আর ডিএস৩০ সূচক ১৮ দশমিক ১৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৪৭ পয়েন্টে।

ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩২৭টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এর মধ্যে দর বেড়েছে ২৭টির, আর কমেছে ৭০টির। আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩০টির দর।

সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১২৩টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ২৭টির, কমেছে ৩৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৬২টির দর।

নভেল করোনাভাইরাসের মহামারী প্রতিরোধে ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মে বন্ধ ছিল দেশের দুই পুঁজিবাজার।

রোববার বাজার খোলার প্রথমদিনে ডিএসইএক্স আগের চেয়ে ৫২ দশমিক ১৬ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৩০ শতাংশ বেড়েছিল। আর সিএএসপিআই আগের চেয়ে ১৪১ দশমিক ০২ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ২৪ শতাংশ বেশি বেড়েছিল।

মহামারীর কারণে এখন সাধারণ সময়ের চেয়ে একঘণ্টা কমে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত লেনদেন হচ্ছে। সাধারণ সময়ে আড়াইটা পর্যন্ত থাকে।