মার্জিন ঋণের সুদের হার বেঁধে দিল বিএসইসি

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ভবন
মার্জিন ঋণের বিপরীতে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ১২ শতাংশের বেশি সুদ নিতে পারবে না বাবদ স্টক ব্রোকার ও মার্চেন্ট ব্যাংকাররা।

বুধবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই নির্দেশনা দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

এতে বলা হয়, মার্জিন ঋণের কস্ট অব ফান্ড বা তহবিলের খরচ হিসেবে ৩ শতাংশ সুদসহ সর্বোচ্চ ১২ শতাংশ রাখতে পারবেন স্টক ব্রোকার ও মার্চেন্ট ব্যাংকাররা।

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের বিপরীতে ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার সুযোগকে মার্জিন ঋণ বলা হয়।

আর্থিক জারিমানা

আইন ভঙ্গ করায় চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) ব্রোকারেজ হাউজ স্কাই সিকিউরিটিজ এবং ঢাকার ব্রোকারেজ হাউজ সাবভ্যালি সিকিউরিটিজ লিমিটেডকে ২ লাখ টাকা করে জরিমানা করেছে বিএসইসি।

এছাড়া ব্রোকারেজ হাউজ সাবভ্যালি সিকিউরিটিজ লিমিটেডের প্রতিনিধি ইকবাল হোসেনকে একলাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বন্ড অনুমোদন

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আইডিএলসি ফিন্যান্সকে বন্ড ছেড়ে ৫০০ কোটি টাকা তোলার অনুমতি দিয়েছে বিএসইসি।

৫০০ কোটি টাকার এই বন্ডের প্রতি ইউনিটের দাম হবে ৫০ লাখ টাকা। এর মেয়াদ হবে ৪ বছর।

সরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, ইনস্যুরেন্স কোম্পানি, তালিকাভুক্ত ব্যাংক, সমবায় ব্যাংক, আঞ্চলিক রুরাল ব্যাংক, সংগঠন, ট্রাস্ট ও স্বায়ত্তশাসিত করপোরেশন এই বন্ড কিনতে পারবে।

এটি হবে জিরো কুপন বন্ড। এটি হবে নন কনভার্টেবল, অর্থাৎ এই বন্ডকে শেয়ারে রূপান্তর করা যাবে না এবং এই বন্ডের টাকা তুলতে কোনো জামানত জমা দেওয়া হয়নি।

বন্ডটির ট্রাস্টি হিসেবে আছে ইসি সিকিউরিটিজ। আর লিড অ্যারেঞ্জার হিসেবে আছে আইডিএলসি ফিন্যান্স।