বেক্সিমকোর সুকুক বন্ডের শঙ্কা কাটল

পুঁজিবাজারে প্রাতিষ্ঠানিক ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য ছাড়া বেক্সিমকোর ৭৫০ কোটি টাকার গ্রিন সুকুক বন্ড পেতে ৪২২ কোটি টাকার আবেদন জমা পড়েছে, যা এই বন্ডের আইপিও অংশের মাত্র ৫৬ শতাংশ।

তবে এর মধ্য দিয়ে বেসরকারি খাতে দেশের প্রথম এই ‘অ্যাসেট-ব্যাকড’ বন্ড বাতিল হওয়ার শঙ্কা কাটল।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পাবলিক ইনফরমেশন অফিসার (পিআইও) এম সাইফুর রহমান মজুমদার বুধবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে এ তথ্য জানান।

বেক্সিমকোকে সুকুক আল ইস্তিসনা নামে পাঁচবছর মেয়াদী এই বন্ড ছেড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা তোলার অনুমোদন দিয়েছে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি।

বন্ডের মাধ্যমে এই অর্থ সংগ্রহ করে বেক্সিমকো তাদের বস্ত্র খাতের ব্যবসা বাড়াবে। এছাড়া সরকার অনুমোদিত দুটো সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্পে বিনিয়োগ করবে।

এই তিন হাজার কোটি টাকার অর্ধেক বা ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে তোলা হবে। ৭৫০ কোটি টাকা বা ২৫ শতাংশ পাবেন বেক্সিমকো লিমিটেডের বর্তমান শেয়ারহোল্ডাররা। বাকি ৭৫০ কোটি টাকা বা ২৫ শতাংশ আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজারে বিক্রি করে তোলার পরিকল্পনা ছিল বেক্সিমকোর।

সেজন্য চলতি বছরের ১৬ অগাস্ট এই বন্ডে আবেদন নেওয়া শুরু হয়। কিন্তু আইপিওতে সেভাবে সাড়া না মেলায় দুই দফায় আবেদনের সময় বাড়ানো হয়, যা ৩০ সেপ্টেম্বর শেষ হয়।

ওই সময় পর্যন্ত ৮২ জন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী মোট ৬০ লাখ ৬৪ হাজার ৫৫০টি বন্ডের জন্য আবেদন করে, যার মূল্য ৬০ কোটি ৬৪ লাখ ৫৫ হাজার টাকা। এই অঙ্ক ৭৫০ কোটি টাকার ৮ দশমিক শূন্য ৮৬ শতাংশ।

আর আইপিও অংশের জন্য সাধারণ বিনিয়োগকারীরা কী পরিমাণ আবেদন করেছে, সেই তথ্য জানা গেল বুধবার।

ডিএসই কর্মকর্তা সাইফুর রহমান মজুমদার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমরা এখনো পুরো তথ্য পাইনি। আমাদের কাছে যা তথ্য আছে, তাতে রাফলি এই বন্ডের জন্য মোট ৪২২ কোটি টাকা বা ৫৬ দশমিক ২৭ শতাংশের জন্য আবেদন এসেছে।”

ডেবট সিকিউরিটি রুলের ১২ ধারায় বলা হয়েছে, কোনো বন্ড আইপিওর মাধ্যমে ছাড়া হলে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে অন্তত ৩০ শতাংশ আবেদন আসতে হবে।

বেক্সিমকোর সুকুক বন্ড পেতে আবেদনের সময় বাড়ল  

৩ হাজার কোটি টাকার সুকুক বন্ড আনছে বেক্সিমকো  

বেক্সিমকো অনুমোদন পেল প্রথম গ্রিন সুকুক বন্ড ছাড়ার  

আন্ডার রাইটাররা যদি বন্ডের ২০ শতাংশ কিনতে চায়, তারপরও যদি মোট আবেদন ৫০ শতাংশের নিচে থাকে, তাহলে বন্ডটি বাতিল হবে।

শুরুতে যথেষ্ট সাড়া না মেলায় বেক্সিমকোর সুকুক বন্ডে আবেদনের সময় দুই দফা বাড়াতে হয়েছিল। ফলে এই বন্ডটি বাতিল হতে পারে বলেও শঙ্কা তৈরি হয়েছিল অনেকের মধ্যে। তবে শেষ পর্যন্ত ৫৬ শতাংশের বেশি আবেদন পাওয়ায় সেই শঙ্কা আর থাকল না।

এখনও যে ৪৪ শতাংশ ঘাটতি থাকল, তার কিছু অংশ মেটাতে ২০ শতাংশ আন্ডাররাইটিং করা বা কিনে নেওয়ার নিশ্চয়তা দেওয়া তিন কোম্পানিকে এ বন্ডে ১৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে হবে।

এই বন্ডের পাবলিক অফারে ছাড়া ৭৫০ কোটি টাকা সংগ্রহের জন্য প্রথম দফায় ২৩ অগাস্ট পর্যন্ত আবেদন করার সুযোগ দেওয়া হয়। ওই সময় পর্যন্ত ৭১ জন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ৭৫০ কোটি টাকার বন্ড কেনার আবেদন করেন, যা মোট আইপিও অংশের ৭ দশমিক ৪০ শতাংশ।

এরপর বেক্সিমকো আবেদন করে আরও ১০ কার্যদিবস সময় বাড়িয়ে নেয়। সেই সময় শেষ হয় ৬ সেপ্টেম্বর। সেই বাড়তি ১০ দিনে মাত্র একজন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী আবেদন করেন।

তাতে মোট ৫৫ লাখ ৭১ হাজার ৫৫০টি বন্ডের জন্য ৭২ জন বিনিয়োগকারীর টাকার অঙ্ক দাঁড়ায় ৫৫ কোটি ৭১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা, অর্থাৎ, আইপিওর মোট পরিমাণের ৭ দশমিক ৪৩ শতাংশ।

এরপর আবেদনের সময় আরেক দফা বাড়িয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সুযোগ দেওয়া হয়। সেই বাড়তি সময়ে ১০ জন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী আবেদন করেন। তাতে সব মিলিয়ে ৮২ জন বিনিয়োগকারীর বিনিয়োগের অঙ্ক দাঁড়ায় ৬০ কোটি ৬৪ লাখ ৫৫ হাজার টাকা, যা ৭৫০ কোটি টাকার আইপিওর ৮ দশমিক ০৮৬ শতাংশ।

এই হিসাবে বাকি ৪৭ দশমিক ৪১ শতাংশ এসেছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে।