মিউচুয়াল ফান্ড খাতকে ১০ গুণ বড় দেখতে চান বিএসইসি চেয়ারম্যান

শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম।(ফাইল ছবি)
বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ড খাতের আকার ১০ গুণ বড় করতে সব ধরনের সহায়তায় আশ্বাস দিয়েছেন পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম।

শনিবার সকালে অ্যাসোসিয়েশন অব অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি অ্যান্ড মিউচুয়াল ফান্ড (এএএমসিএমএফ) আয়োজিত বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহের ভাচুর্য়াল আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

দেশের পুঁজিবাজারে যেসব মিউচুয়াল ফান্ড ব্যবস্থাপক সফলতা দেখাতে পারবে সেগুলো যাতে বেশি আয় করতে পারে, সেরকম নীতি তৈরির করার কথাও জানান তিনি।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এর চেয়ারম্যান বলেন, “যেসব মিউচুয়াল ফান্ড ম্যানেজার ভালো পারফর্ম করবে তারা বেশি ফি নিতে পারবে। আর যারা ভালো করতে পারবে না, তারা বেশি ফি নিতে পারবে না।

“আপনারা যারা ভালো ফান্ড ম্যানেজ করতে পারেন না। বিনিয়োগকারীদের ভালো লভ্যাংশ দিতে পারেন না, তাদেরকে এত বেশি ফি নেওয়ার সুযোগ আমরা কেন করে দিব?”

ভালো ফান্ড ব্যবস্থাপকের জন্য ভালো খবর আসার ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, “আর যে ফান্ড ম্যানেজার আইনকানুন মেনে বিনিয়োগ করছে। নিজে ভালো থাকছে। বিনিয়োগকারীকে ভালো রাখছে তাদের বেশি টাকা পাওয়ার অধিকার আছে। আমরা সেদিকে যাচ্ছি, খুব দ্রুত আপনারা দেখতে পাবেন।”

‘টেকসই অর্থায়নে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর দায়িত্ব’ শীর্ষক আলোচনা সভায় অধ্যাপক শিবলী বলেন, বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ড খাত এখন অনেক ছোট। মাত্র ১৫ হাজার কোটি টাকা। এটাকে ১০ গুণ বড় করতে হবে। এজন্য যা সাহায্য লাগবে সেটা করা হবে।

“মিউচুয়াল ফান্ডগুলোকে খুঁজে বের করতে হবে এ খাতকে কিভাবে দেড় লাখ কোটি টাকার খাতে পরিণত করা যায়। কি সাহায্য লাগবে আমাদেরকে জানান। আইনসঙ্গতভাবে আমরা সব ধরনের সাহায্য করতে রাজি আছি। আপনাদের ব্যবসা আপনারা ১০ গুণ করুন। কোথায় বাধা আমাদের জানান। সরকার কোথায় আপনাদের সাহায্য করতে পারে আমাদের জানান।”

বিএসইসি চেয়ারম্যান এবছর ফান্ডগুলো ভালো করছে উল্লেখ করে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। একইসঙ্গে এ খাত যাতে আরও ভালো করতে পারে সেজন্য প্রয়োজেনে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানান।

ফান্ডগুলো ভালো করলেও সেটির প্রচার নেই বলে তিনি বিষয়টি বিজ্ঞাপন দিয়ে হলেও বিনিয়োগকারীদের জানানোর কথা বলেন।

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএসইসির কমিশনার মিজানুর রহমান বলেন, “দেশে মিউচুয়াল ফান্ড আইনের অপব্যবহার করা হয়েছে। এজন্য বিনিয়োগকারীরা ফান্ডগুলোকে বিশ্বাস করে না।

“কোনো কোনো ফান্ড ম্যানেজার সঠিকভাবে বিনিয়োগকারীদের তথ্য দেয়নি। যখন কোনো ফান্ড ম্যানেজার মুনাফা না করেও লভ্যাংশ দেয়, তখন সেই ফান্ড টিকে থাকতে পারে না।”

মিউচুয়াল ফান্ডের টাকা ঝুঁকিপূর্ণ খাতে বিনিয়োগ করা যাবে না বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

এএএমসিএমএফ এর সভাপতি হাসান ইমাম বাংলাদেশের মিউচুয়াল ফান্ড খাতের অবস্থা তুলে ধরেন।

এবার ৪ থেকে ১২ অক্টোবর বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ পালন করছে বিএসইসি।

 

আরও পড়ুন

পুঁজিবাজারের দুর্বলতা ঠিক করা হচ্ছে: বিএসইসি কমিশনার  

পুঁজিবাজারে ‘সূচক নিয়ে’ ভয়ের কারণ নেই: সালমান এফ রহমান  

পুঁজিবাজার ঝুঁকিপূর্ণ বলে বিনিয়োগকারীদের ভয় দেখানো হচ্ছে: বিএসইসি প্রধান